প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নারীর প্রতি আক্রমণ ও গণতন্ত্র প্রশ্ন শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা
ক্ষমা নয়, ব্যারিস্টার মইনুলকে কঠিন শিক্ষা দিতে হবে

সাব্বির আহমেদ : প্রকাশ্যে নারীকে চরিত্রহীন বলা শুধু মানহানি নয় সম্পূর্ণ নারী নির্যাতন। যার দায়ে অপরাধীকে অব্যাহতি নয়, কঠিন শায়েস্তা করা করা উচিত। সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে প্রকাশ্যে চরিত্রহীন বলে অত্যন্ত গর্হিত কাজ করছেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে। সুলীল গণতন্ত্রের জন্যেই মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে সামাজিক ও আইনি লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে ৭১ টেলিভিশন আয়োজিত নারীর প্রতি আক্রমণ ও গণতন্ত্র প্রশ্ন শীর্ষক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

সাংবাদিক ফারজানা রুপার পরিচালনায় ওই সভায় একাত্তর দালাল নির্মূল কমিটির আহবায়ক শাহরিয়ার কবির বলেন, নারী সুরক্ষায় দেশে আইন থাকলেও তার প্রয়োগ নেই। মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলা মানহানি নয়, নারী নির্যাতনের শামিল। ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে করা মামলার পক্ষে আমরা লড়বো। ব্যারিস্টার মইনুল মাসুদা ভাট্টিকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন, ধৃষ্টতার সীমা থাকা উচিত! ক্ষমা নয়, মইনুলকে শিক্ষা দিতে চাই। বিচার থেকে অব্যাহতির সংস্কৃতি বন্ধ করতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হবে ভবিষ্যতেও এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে।

তিনি বলেন, জামায়াতে ইসলামী কোনও রাজনৈতিক দল নয়। তাদের সঙ্গে যারা ঘর করেছে, তাদের মানসিকতা এমনই হয়। দেশে ধর্মের নামে রাজনীতি বন্ধ করতে হবে।

সাবেক বিচারপতি সৈয়দ আমিরুল ইসলাম বলেন, সমাজে আইনের প্রয়োগ নেই- এটাই বড় সমস্যা। পুরুষ বাইরে গেলে এক, ঘরে আসলে আরেক রূপ ধারণ করেন। গণতান্ত্রিক চেতনার অভাব। পুরুষশাসিত সমাজে নারীরা আজও ভোগের সামগ্রী। এসব বদলাতে দরকার মনস্তাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। তাও একদিনে হয়ে যাবে না। অন্যদিকে ধনতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারী ও পুরুষ সমান হতে পারে না। জাতীয় সংসদে নারীদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হলে তাদের দাবিগুলো জোরদার হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন বলেন, মাসুদা ভাট্টির লড়াইটা নারী-পুরুষ উভয়ের। নারী সাংবাদিককে যিনি আক্রমণ করেছেন- উনি আসলে মানুষ কিনা সন্দেহ। ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের প্রতিবাদ জোরালো করতে হবে। প্রকাশ্যে চরিত্রহীন বলে নারীদের অবমাননা করা হয়েছে। নারী- পুরুষ নির্বিশেষে আমরা মাসুদা ভাট্টির সঙ্গে আছি।

ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন বলেন, মইনুল হোসেনের খালেদা জিয়াও একদিন সংসদে বলেছিলেন, চুপ, বেয়াদব! এদেরকে সমাজে প্রশ্রয়ের ফলই মাসুদা ভাট্টির ঘটনা। ব্যারিস্টার মইনুল মনে করেন উনার কিছু হবে না। অর্থের সঙ্গে আইনকেও তার পক্ষে মনে করছেন। রাজনৈতিক শক্তি তো আছেই।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক বলেন, ব্যারিস্টার মওনুল হোসেন অত্যন্ত গহির্ত কাজ করেছেন। এমন নিন্দনীয় কাজ ও এর অপরাধে তাকে ক্ষমা চাইতে হবে। প্রকাশ্যে নারী সাংবাদিকের সঙ্গে এমন আচরণ নারীদের প্রতি হেয় প্রতিপন্ন করার মনোভাব। তাকে আইনের সম্মুখীন হতে হবে। ব্যারিস্টার মইনুলকে শায়েস্তা করা উচিত। সামাজিকভাবে এমন ঘটনার নিন্দা করতে হবে। বিষয়টি থেকে মাসুদা ভাট্টিকে প্রতিকার দিতে হবে।

মানবাধিকার কর্মী সালমা আলী বলেন, আইন আছে, তবে তা ভঙ্গ করলে দেশে বিচার হয় না। পুরুষরা চারটে বিয়ে করলেও তার চরিত্র নিয়ে কথা হয় না। সবক্ষেত্রে নারীরা অসম্মানিত হচ্ছে। আর অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে।

অভিনেতা পিষুজ বন্দোপাধ্যায় বলেন, কিভাবে টকশোতে শিষ্টাচার রক্ষা করতে হয়, এ ব্যাপারে আমাদের দেশে একটি ওয়ার্কশপ থাকা উচিত। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে এসব আমাদের বুঝতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন বলেন, নারীদের সমান অধিকার অর্জন করতে না পারলে উন্নয়ন ম্লান হয়ে যাবে। আইনের পাশাপাশি দেশে পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনা জরুরি।

ব্যারিস্টার তানিয়া আমির বলেন, নারীদের অধিকার দিতে হবে না। অধিকার আছে, অধিকার ভোগ করতে আগাছা পরিষ্কার করতে হবে।

মানবাধিকার কর্মী আয়েশা খানম বলেন, নারী সাংবাদিকের সঙ্গে এমন ঘটনা চরম লজ্জা ও দু খজনক। আমরা বিস্মিত হয়েছি।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করে সমকাল সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত বলেন, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের মতো লোকদের কেনো টকশোতে ডাকা হয়? আমাদের উচিত এদের অপছন্দ করা।

বিভিন্ন দৃষ্টিকোন থেকে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন অপরাধী দাবি করে সাংবাদিক মোজাম্মেল বাবু বলেন, প্রত্যেকের অবস্থান থেকে তাকে প্রতিরোধ করা উচিত। ব্যারিস্টার মইনুল নারী, জনগণ ও পেশার শত্রু। তাকে শায়েস্তা করা উচিত।

সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি বলেন, ওইদিনের ঘটনার পরের অভিজ্ঞতা খুবই ইতিবাচক। এর মাধ্যমে একটি সলিডারেটি তৈরি হল। অন্যায়কারী বিরুদ্ধে যে প্রতিবাদ- তা ইতিবাচক দিক। এমন একটি ব্যবস্থা হওয়া উচিত, যাতে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ