প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যাত্রাবাড়ীতে প্রতিযোগীতায় দুই বাসের চাপায় নিহত ২

সুজন কৈরী: রাজধানীর যাত্রাবাডীতে ট্রান্স সিলভা পরিবহনের দুই বাসের মাঝে চাপা পড়ে সেলিম মিয়া (২২) ও জুয়েল হাওলাদার (৩০) নামের দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। বাস দুটি আগে যাওয়ার প্রতিযোগীতায় লিপ্ত ছিল। সোমবার বেলা ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় দুইজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সেলিমকে ২টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন। আর চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল ৫টায় মারা যান জুয়েল।

নিহত সেলিম মাদারীপুরের শিবচরের আলেপুর গ্রামের ফজল হকের এক মাত্র ছেলে। তিনি ডেমরার মুড়াপাড়া এলাকায় স্ত্রী হেনা বেগম ও ২ ছেলে ১ মেয়েকে নিয়ে ভাড়া বাসায় থাকতেন। পেশায় তিনি দরজা জানালার বল কারখানার শ্রমিক। আর জুয়েল বরিশালের বাকেরগঞ্জের বড়ইকাঠি গ্রামের মোতালেব হাওলাদারের ছেলে। যাত্রাবাড়ীর দয়াগঞ্জ এলাকায় পরিবারের সঙ্গে ভাড়া বাসায় থাকতেন। ২ ছেলে ও ১ মেয়ের জনক জুয়েল তুরাগ পরিবহনের বাস চালক ছিলেন।

হাসপাতালে নিহত সেলিমের মা মনোয়ারা বেগম জানান, হার্টের সমস্যার কারনে চিকিৎসার জন্য গ্রামের বাড়ী থেকে সেলিম তাকে সোমবার ঢাকায় নিয়ে আসেন। গাড়ি থেকে নেমে যাত্রাবাড়ী মোড়ে রাস্তা পার হওয়ার সময় দুটি বাসের চাপায় সেলিম আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, তার চোখের সামনেই মুহূর্তেই ঘটনাটি ঘটে গেল। বাস দুটি কে কার আগে যাবে তার প্রতিযোগীতায় লিপ্ত ছিল।

জুয়েলের দুলাভাই কবির হোসেন জানান, দুপুরে যাত্রাবাড়ী মোড়ে বাস পার্ক করেন জুয়েল। পরে সড়কের বিপরীতে যাওয়ার জন্যরাস্তা পার হওয়ার সময় দুইবাসের মাঝে চাপা পরেন। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল ৫টায় তার মৃত্যু হয়।

যাত্রাবাড়ীর থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী জানান, দুর্ঘটনার পর পরই ট্রান্স সিলভা পরিবহনের বাস দুটিকে জব্দ করা হয়। একটি বাসের চালক শাহীন গাজীকে আটক করা হয়েছে। তার গাড়ি চালানোর লাইসেন্সও নেই। অপর বাসের চালক ও বাস দুটির চালকের সহকারী (হেল্পার) পালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।