প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কলেজছাত্র হত্যায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড

ডেস্ক রিপোর্ট : মানিকগঞ্জে কলেজছাত্র মনির হোসেন হত্যা মামলায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড ও একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং তিনজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়াও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ মো. শহিদুল আলম ঝিনুক এই রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের বাদশা মিয়া, সিংগাইর উপজেলার ভাটিরচর গ্রামের লাল মিয়া, গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ার কোশলা গ্রামের আজগর চৌধুরী ও দিনাজপুরের আওলিয়াপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে আনোয়ার ও আজগর পলাতক রয়েছেন।

এ মামলার আরেক আসামি নারায়ণগঞ্জের কালিয়ারচর হাজিরটেক গ্রামের আক্তার হোসেন জামালকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও এক বছরেরকারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। হত্যা মামলায় অপর তিন আসামি শুকুর আলী, আলম ও মাসুদকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর শিবালয় উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের পরোশ আলীর একমাত্র ছেলে খান বাহাদুর ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র মনির হোসেনকে চাচা বাদশা মিয়া সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার কথা বলে সাভার নিয়ে যায়। পরে তাকে লুকিয়ে রেখে পরিবারের কাছে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। মুক্তিপনের টাকা না পেয়ে পরের দিন আসামিরা মনিরকে হাত-পা বেঁধে সাভারের বংশী নদীতে ফেলে হত্যা করে।

পরের দিন ১১ সেপ্টেম্বর মনিরের মা মালেকা বেগম বাদশা মিয়াসহ অজ্ঞাত আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। পুলিশ বাদশা মিয়াকে গ্রেফতার করে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী দুইদিন পর নদী থেকে মনিরের লাশ উদ্ধার করে। পরে পর্যায়ক্রমে আরও ৬জনকে আটক করা হয়। আটককৃতরা আদালতে মনিরকে হত্যার কথা স্বীকার করে।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জজকোর্টের পিপি আবদুস সালাম এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। আর আসামি পক্ষের আইনজীবী সিপ্রা সাহা উচ্চ আদালতে রায়ের আপিল করা হবে বলে জানিয়েছেন।

এ দিকে মনির হোসেনের বাবা মো. পরোশ আলী এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে দ্রুত রায় কার্যরের দাবি জানিয়েছেন। সারাবাংলা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ