প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি কমেছে চার শতাংশেরও বেশি

সোহেল রহমান : তারল্য সঙ্কট ও আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে বেসরকারি খাতে বড় অঙ্কের ঋণ বিতরণে আগ্রহ দেখাচ্ছে না ব্যাংকগুলো। সাম্প্রতিক সময়ে বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি চার শতাংশেরও বেশি কমেছে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি যেখানে ছিল ১৯ শতাংশ, গত আগস্ট শেষে এটা ১৪ দশমিক ৫ শতাংশে নেমে এসেছে। সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন

অন-লাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশের ৩০টিরও বেশি বাণিজ্যিক ব্যাংক বর্তমানে তারল্য বা নগদ টাকার সংকটে রয়েছে। অন্যদিকে অবশিষ্ট ব্যাংকগুলো জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ঋণ বিতরণে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। ফলে ব্যাংক খাতে এখন ঋণ বিতরণ কার্যক্রম প্রায় বন্ধ হয়ে পড়েছে। বড় অঙ্কের ঋণ বিতরণ হচ্ছে না একদমই।
বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ার বিষয়ে ব্যাংকগুলো বলছে, সাধারণত নির্বাচনের বছরে ব্যাংকগুলো বাড়তি সতর্কতার সঙ্গে দেখে-শুনে ঋণ দেয়। কিন্তু এবার ঋণ ও আমানত অনুপাত (এডিআর) কমানোর পর থেকে ব্যাংক খাতে বাড়তি চাপ তৈরি হয়েছে। যেসব ব্যাংকের এডিআর নির্ধারিত সীমার ওপরে রয়েছে তারা ঋণ দিতে পারছে না। আর এডিআর সীমার মধ্যে থাকা ব্যাংকগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী সর্তকতার সঙ্গে ঋণ দিচ্ছে। ফলে ঋণের প্রবৃদ্ধি কমেছে।
জানা যায়, সাধারণ বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো তাদের মোট আমানতের ৮০ দশমিক ৫০ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংকগুলো মোট আমানতের ৮৫ শতাংশ ঋণ দিতে পারে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সীমার অতিরিক্ত ঋণ বিতরণ করেছে ১৬টি বাণিজ্যিক ব্যাংক।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঋণ বিতরণে ব্যাংকগুলো নিজেরা এখন একটু রক্ষণশীল ভঙ্গিতে এগোচ্ছে। সিঙ্গেল ডিজিট সুদে ঋণ দেওয়ার ঘোষণা থাকলেও সব ব্যাংক এটি বাস্তবায়ন করেনি। এ কারণে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করতে চাচ্ছে না। এ কারণে ঋণের প্রবৃদ্ধি কমছে।