প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সন্ধ্যা হলেই আতঙ্ক নামে কুমিল্লায় বিমান বন্দর এলাকায়

মাহফুজ নান্টু, কুমিল্লা : কুমিল্লা শহরের দক্ষিন পাশে লাগোয়া রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল(ইপিজেড)। তারপাশেই পুরাতন বিমান বন্দর এলাকা। বিমান উঠানামা না করলেও বিমান বন্দরের সড়কগুলো ব্যবহার করে বাসায় ফিরে ইপিজেডসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পেশা শ্রেণীর মানুষজন। সম্প্রতি সন্ধ্যা হলেই মাদকসেবী-ছিনতাইকারীদের আনাগোনা বেড়ে যায়। বেশ কয়েকটি চুরি-ছিনতাই,খুন ও ধর্ষনের মত ঘটনা ঘটে যাওয়ায় সন্ধ্যা হলেই পুরো বিমানবন্দর এলাকাজুড়ে সাধারণ মানুষের মনে আতঙ্ক নামে বিরাজ করে

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন (কুসিক) ১৯ নং ওয়ার্ড রাজাপাড়া দক্ষিণ চৌমুহনী থেকে ২০ নং ওয়ার্ডের কালিকাপুর ও দিশাবন্দের এক কিলোমিটারের বেশি অংশ সড়কে নেই আলোর ব্যবস্থা। ২০১৭ সালের ৮ জুলাই বিমান বন্দর সড়ক সংলগ্ন খালে থেকে একজন পুরুষের কংকাল উদ্ধার করে সদর দক্ষিণ থানা পুলিশ। গত ১২ সেপ্টেম্বর গৃহবধূ হত্যার পর গোধূলী লগ্নে বিমান বন্দর সড়কের পাশে ফেলে যাওয়ার সময় হাতেনাতে ধরে ঘাতক স্বামীকে স্থানীয় লোকজন ইপিজেড ফাঁড়ি পুলিশের হাতে সোপর্দ করে। গত আগস্টে বিমান বন্দরে পড়ন্ত বিকেলে বেড়াতে আসে একদম্পতি তাদের থেকে মোবাইল ফোন ও ডিএসএলআর ক্যামেরা চিনিয়ে নেয় একদল যুবক । সন্ধ্যার পর প্রায় এখানে ছিনতাইকারীদের আনাগোনা দেখা যায় বলে জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন। তাই সন্ধ্যা হলে আতঙ্ক নামে কুমিল্লা বিমান বন্দর সড়কে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিমান বন্দরের রয়েছে প্রায় ৩২ ফুটের প্রশস্ত সড়ক। সড়কটি সিটি কর্পোরেশন এলাকায় হলেও রাতে চলাচলের জন্য নেই কোন আলোর ব্যবস্থা। দু’পাশে জমিতে বড় বড় ঘাস।
আবদুল্লাহ নামের এক ব্যক্তি জানান, এ ঘাসের ভেতর থেকে গত মাসে উদ্ধার করা হয় নিহত গৃহবধূর লাশ। ইপিজেড কর্মী শাহানাজ আক্তার বলেন, অফিস ছুটি হয় সন্ধ্যা ৬টার পর প্রায় ২নং গেইটে গাড়ি পাওয়া যায় না। হেঁটে যেতে হয় এই রাস্তা দিয়ে, লাইটের ব্যবস্থা নেই, খুব ভয়ের মধ্যে থাকি।

কুমিল্লা বিমান বন্দরের প্রধান কর্মকর্তা প্রকৌশলী আব্দুল গণি জানান, যেহেতু বিমান বন্দরটি পরিত্যক্ত , এটা এখন আন্তর্জাতিক রোডের বিমানের সিগনালিং এর কাজ করে। আমাদের ২১ জন জনবল আছে, আমরা শুধু রাডার ও অফিসের কাজ দেখাশোনার দায়িত্বে আছি। সড়ক বা পরিত্যক্ত রানওয়ের বিষয়টি আমাদের দায়িত্বে নেই।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ জাকির হোসেন জানান, বিষয়টি সিটি কর্পোরেশনকে অবগত করা হয়েছে। এয়ারপোর্টের দক্ষিণ সড়কটিতে বৈদ্যুতিক খুঁটি নেই। এ জন্য লাইট স্থাপন করা যায়নি। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন মনিরুল হক সাক্কু বলেন, নতুন বাজেটে আমরা খুঁটি ক্রয় করেছি। এগুলোর টেষ্ট চলছে। আশা করি আমরা অল্প সময়ের মধ্যে এ সমস্যা সমাধান করতে পারবো। সিটি কর্পোরেশনের গুরুত্বপূর্ণ কোন সড়কে রাতে অন্ধকার থাকবে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ