প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আড়াইহাজারে চার যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার একজনের পরিচয় সনাক্ত

এম এ হাকিম ভূঁইয়া, আড়াইহাজার : নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে চার যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। খবর পেয়ে রোববার ভোর পৌনে ৬টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সাতগ্রাম ইউনিয়নের পাঁচরুখী ঘিদিরপাড়া নামক স্থান থেকে পুলিশ লাশগুলো উদ্ধার করে। তাদের প্রত্যেকের মুখমন্ডলে মারাত্মক আঘাতের ক্ষত চিহৃসহ সবার মাথার এক পাশের অংশ থেঁতলে দেওয়া হয়েছে।

নিহত ব্যাক্তিদের তিন জনের পরনে জিন্সের প্যান্ট এবং গায়ে ছিল টি-শার্ট ও একজনের পরনে ছিল লঙ্গি। তাদের বয়স ৩০ থেকে ৪৫ এর মধ্যে হতে পারে। ঘটনাস্থল থেকে দুইটি পিস্তুল, এক রাউন্ড তাজা গুলি ও ঢাকা মেট্রো-চ-১৩-০৫০১ সিরিয়াল নাম্বারের একটি সাদা রঙয়ের নোয়া গাড়ী উদ্ধার করা হয়েছে বলে দাবী পুলিশের। খবর পেয়ে সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের সহকারি পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবদুল্যাহ আল মামুন ও আড়াইহাজার থানার ওসি মুহাম্মদ আবদুল হক ঘটনাস্থল পরির্দশন করেন। নিহতদের মধ্যে একজনের নাম লুৎফর মোল্লা (৩৬)। সে ফরিদপুর জেলার ভাঙা থানাধীন উত্তর আখন্দপাড়া এলাকার মুনসর মোল্লার ছেলে। পরিবার নিয়ে তিনি ঢাকার রামপুরার অবদা রোড় এলাকায় একটি ভাড়া বাড়িতে বসবাস করতেন। তিনি পেশায় মাক্রোবাসের চালক ছিলেন বলে জানা গেছে। নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে এসে স্ত্রী রেশমা আক্তার স্বামীর লাশ সনাক্ত করেন।

এদিকে নাম না প্রকাশে স্থানীয়রা জানান, ভোর ৪ টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে। কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তা কেউ দেখেনি। তবে রাতে হৈইচৈর শব্দ শোনা গেছে। ঘটনাস্থলের পাশে একটি অনুষ্ঠান চলায় বিষয়টি কেউ বুঝে উঠতে পারেনি। সকালে পুলিশ খবর পেয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অবস্থায় লাশগুলো উদ্ধার করে। নিহত ব্যাক্তিদের মধ্যে এক জনের পরনে লঙ্গি ছিল। অন্য তিনজনের পরনে ছিল জিন্সের প্যান্টে ও গায়ে টি-শার্ট। তাদের বসয় ৩০ থেকে ৪৫ এর মধ্যে পতে পারে। এলাকার শত শত লোক ঘটনাস্থলে ভিড় জমায়। তবে ভয়ে কেউ প্রকাশ্যে মুখ খোলতে চাচ্ছিল না। তাদের ধারনা গুলি করে এ চার ব্যাক্তিকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের সহকারি পুলিশ সুপার আবদুল্যাহ আল মামুন (অপরাধ) আড়াইহাজার থানায় গুলিবিদ্ধ হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে সাংবাদিকদের জানান, রোববার ভোর পৌনে ৬টার দিকে সরকারি সেবা সার্ভিস ৯৯৯ থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পরে রাস্তার দুই পাশে পড়ে থাকা অবস্থায় চার ব্যাক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে দুইটি পিস্তুল, এক রাউন্ড তাজা গুলি ও একটি নোয়া ব্যান্ডের সাদা মাইক্রোবাস উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহের মুখমন্ডলে আঘাতের চিহৃ ছিল এবং মাথার কিছু অংশ থেঁতলে দেওয়া হয়েছে। দুই একটি লাশের মাথার মগজ বের হয়ে গেছে। জেলা পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে যেহেতু পিস্তুল উদ্ধার করা হয়েছে। তাতে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে ডাকাত দলের সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়ে থাকতে পারে। ঘটনাস্থল থেকে গুলির কোন খোসা উদ্ধার করা হয়নি; এতে মনে হচ্ছে গুলির কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে লাশের ময়নাতদন্তের পর সঠিকভাবে বলা যাবে।

আড়াইহাজার ওসি তদন্ত শফিকুল ইসলাম বলেন, নিহতের পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে বিভিন্ন সূত্র ধরে তাদের পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতদের পরিবারের কেউ থানায় বা ঘটনাস্থলে আসেনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ