প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গণমাধ্যম কর্মী আইন, অসাধারণ আইন : মনজুরুল আহসান বুলবুল

জুয়েল খান: একুশে টেলিভিশনের প্রধান সম্পাদক মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেছেন, বর্তমান সরকার যে ওয়েজ বোর্ড ঘোষণা করেছে এটা একটা যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত। সাংবাদিক সমাজের দীর্ঘদিনের আন্দোলন সংগ্রামের ফসল এই নবম ওয়েজ বোর্ড।
সবধরনের গণমাধ্যম কর্মীদের জন্য চাকরির শর্তাবলী ঠিক করে, গনমাধ্যম কর্মী আইণ ২০১৮ খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদন করেছে সরকার। সাংবাদিকদেরকে আগের মত শ্রমিক নয়, গণমাধ্যমকর্মী হিসাবে অভিহিত করা হয়েছে এই আইনে।

তিনি বলেন, বিএনপি সরকারের আমলে ২০০৬ সালের শ্রম আইনের মাধ্যমে সাংবাদমাধ্যমের শৃঙ্খলা বিনষ্ট হয়। ওই আইনে মজুরি বোর্ডের ১৪৩ ধারায় সাংবাদিকদেরকে শ্রমীক হিসাবে বিবেচনা কারা হয়। এবং ৭৪ সালের আইনকে বাতিল করা হয়। ধারণাগতভাবে একটা সময় সম্পাদকদেরক বিম্ববিদ্যালয়ের ভিসির মর্যাদায় দেখা হতো । কিন্তু ২০০৬ সালের আইন করার মাধ্যমে তাদেরকে আবার শ্রমিক হিসাবে বিবেচনা করা হলো।

তিনি বলেন, আমাদের সাংবাদিক সমাজের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল এই ওয়েজ বোর্ড। এই আইন অবশ্যই সংবাদিকদের সুরক্ষা দেবে। এই আইনের খসড়ায় বলা আছে, যে সাংবাদিককে অ্যাপয়েনমেন্ট লেটার দিতে হবে, সপ্তাহে ৩৬ ঘন্টা কাজকরাসহ নারী সাংবাদিকদের ৬ মাসের মাতৃকালীন ছুটি দিতে হবে। এবং ভবিষ্যৎ তহবিল গঠন করার কথা বলা হয়েছে। তহবিলের জন্য সংবাদকর্মী তার বেতন থেকে ৮ শতাংশ দেবে এবং মালিকপক্ষের ৮ শতাংশ টাকা দিয়ে তহবিল গঠন করা হবে।

তিনি আরও বলেন, এই আইনের মাধ্যমে একটা জিনিস নিশ্চিত হবে যে একজন সাংবাদিককে অবশ্যই পূর্ণকালীন সাংবাদিকতা করতে হবে তা না হলে ওয়েজ বোর্ডের আওতায় আসার কোনো সুযোগ থাকবে না। তবে আশাকরি সবার চেষ্টায় এবং সরকারের আন্তরিকতায় এই আইনের বাস্তবায়ন সম্ভব হবে। সূত্র: ডিবিসি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ