প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমার দেখা সবচেয়ে সুন্দর দুর্গাপূজা

নির্মলেন্দু গুণ : ঢাকার খামারবাড়ি, ফার্মগেট-এ অনুষ্ঠিত ঐতিহ্যবাহী দুর্গাপূজা। আধুনিক প্রযুক্তিকে আশ্চর্য কুশলতার সঙ্গে ব্যবহার করে আয়োজিত এরকম রাজসিক দুর্গাপূজা আমি আগে কখনও কোথায়ও দেখিনি।  এখানে দুটো দুর্গাপট নির্মিত হয়েছে। প্রথমটি নকল দুর্গা। এই দুর্গাপটে সবাই আছেন, কিন্তু ঐ পটের কুশীলবদের মন্ত্রবলে প্রাণের প্রতিষ্ঠা করা হয়নি, তাই পূজা পাচ্ছেন না তিনি বা তাঁর সাথিরা কেউ। সেখানে লক্ষ্মীর ভাণ্ড থেকে বেরিয়ে আসছে বাংলাদেশের কাগজীমুদ্রা।

ষোড়শ উপচারে চণ্ডীপাঠের মাধ্যমে পূজিত হচ্ছেন যে দুর্গা, তাঁর পট তৈরি হয়েছে নকল দুর্গা থেকে ৫০ গজ পেছনে। সেই হচ্ছে আসল পূজামণ্ডপ। ঐ মণ্ডপেই ব্রাহ্মণ পূজা করছেন দেবীর, আর সামনের আসনগুলোতে বসে ভক্তবৃন্দ করজোড়ে প্রণাম করে চলেছেন মায়ের উদ্দেশ্যে।

পূজামণ্ডপের বাইরে থেকে হাজার হাজার ভক্ত লাইন করে পূজামণ্ডপে প্রবেশ করছেন এক পথে, আর দেবীকে প্রণাম করে অন্য পথ দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছেন তৃপ্তচিত্ত নিয়ে।

অন্য কোনো পূজামণ্ডপে আমি এতো ভক্তজনের ভিড় কখনও দেখিনি। চমৎকার কুশলতার সঙ্গে ভক্তদের ভিড় নিয়ন্ত্রণ করে চলেছেন ভলান্টিয়ারগণ। কবি হিসেবে আমাকেই শুধু তারা ছাড় দিয়েছেন, তা না হলে এই দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে খামারবাড়ির দুর্গাদর্শন আমার পক্ষে সম্ভব হতো না। অবশ্য তার জন্য আমাকে যে কিছু খেসারত দিতে হয়নি, তা নয়। ভলান্টিয়ারদের সঙ্গে ছবি তোলার সুযোগ দিতে হয়েছে আমাকে।

কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের বিশাল প্রাঙ্গণে এই দুর্গাপূজা গত ২৭ বছর ধরে চলে আসছে বলে জানালেন পূজা কমিটির সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ।

পূজাপ্রাঙ্গণে নির্মিত হয়েছে গয়া, কাশী, বৃন্দাবনসহ হিন্দুদের বেশকিছু তীর্থস্থান, যা পূজা-দর্শনার্থীদের জন্য উপরি পাওয়া।

লেখক : দেশখ্যাত কবি/ সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ