প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মন্ত্রিসভা ছোট না হওয়ার সম্ভাবনা!
তফসিল ঘোষণার আগে নির্বাচনকালীন সরকার

আনিসুর রহমান তপন : আসন্ন সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে তফসিল ঘোষণার আগেই নির্বাচনকালীন সরকার গঠন গঠন হতে পারে। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র এমন দাবি করলেও বিভিন্ন মহলের দাবি, বর্তমান মন্ত্রিসভাই নির্বাচনকালীন সরকার হিসেবে নির্বাচন পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে যাবে। সে ক্ষেত্রে মন্ত্রিসভার আকার ছোট না-ও হতে পারে।

এদিকে বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব সাংবাদিকদের জানান, নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ১১তম সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। এর পরপরই নির্বাচনকালীন সরকার কবে গঠন করা হবে তা নিয়ে চলছে জোর জল্পনা-কল্পনা। বিভিন্ন মহলে আলোচনা চলছে, মন্ত্রিসভায় কে থাকছেন আর কে যুক্ত হচ্ছেন। সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী রাজনৈতিক দলের কারা কারা অর্ন্তভুক্ত হচ্ছেন মন্ত্রিসভায়।

ইতিপূর্বে জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এবং কো-চেয়ারম্যান ও সংসদেও বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ পৃথক পৃথকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে নির্বাচনকালীন সরকারে জাতীয় পার্টির প্রতিনিধিত্ব বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন। উভয় নেতা মন্ত্রিসভায় জাতীয় পার্টির বর্তমান তিন মন্ত্রীর পাশাপাশি আরো কয়েকজনের নাম প্রস্তাব করে এসেছেন।

এ ব্যাপারে মন্ত্রিসভার এক সদস্য ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় জাতীয় পার্টির ৬ জন মন্ত্রী ছিলেন। আসন্ন মন্ত্রিসভায় এ সংখ্যা বাড়ানো তাদের মুল দাবি। এইচএম এরশাদ মন্ত্রিসভায় নতুন সদস্য হিসেবে এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ এবং জিয়াউদ্দিন বাবলুর নাম প্রস্তাব করে এসেছেন। বেগম রওশন এরশাদ এর বাইরে ফখরুল ইমাম ও সেলিম উদ্দিনকে মন্ত্রিসভায় দেখতে চেয়েছেন। তাদের এ চাওয়া পূর্ণ হবে কি-না তা নির্ভর করছে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের উপর।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এর আগে ঢাকা ক্লাবের এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছিলেন, অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে নির্বাচনকালীন সরকারের ঘোষণা আসতে পারে। সে হিসেবে নির্বাচনকালীন সরকারের আকার ছোট হবে। ২০ থেকে ৩০ সদস্যে এই মন্ত্রিসভায় শুধুমাত্র সরকারের রুটিন ওয়ার্ক করবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এ বিষয়ে মন্ত্রিসভা বা দলের কেউ কিছু জানেন বলে আমার মনে হয়না, এটা প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। তিনিই শুধু জানেন, কত জন থাকবেন এই সরকারে এবং কবে তা গঠন করা হবে।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সরকারের পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ জানান, বিষয়টি সম্পূর্ণই প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল। তিনিই ঠিক করবেন কবে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করবেন বা তাতে কে কে থাকবেন। তবে শুনেছি সেই সরকারে ২৫ জন সদস্য থাকতে পারেন।

সরকারের সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র অবশ্য ভিন্ন আভাসও দিয়েছেন। নির্বাচনের আগে মন্ত্রিসভায় কোনো পরিবর্তন না এনেই বর্তমান মন্ত্রিসভাকেই নির্বাচনকালীন সরকার হিসেবে চালিয়ে নেয়া হবে। তবে পুরো বিষয়টিই রয়েছে জল্পনা-কল্পনার উপর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া এ বিষয়ে এখনও কেউ চ’ড়ান্তা কিছু বলতে পারছে না। নির্বাচনকালীন সরকার কেমন হবে কিংবা এর রূপরেখা কী সেটা জানতে সময়ের জন্য অপেক্ষা ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।

সম্পাদনা : আসাদুজ্জামান সম্রাট

সর্বাধিক পঠিত