প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ সত্ত্বেও কেরলের মন্দিরে ঢুকতে দেওয়া হলো না নারীদের

আশিস গুপ্ত ,নয়াদিল্লি: মুসলমান নারীদের সমানাধিকার নিশ্চিত করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ভারতের এনডিএ সরকার। যার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর তিন তালাক বেআইনি ঘোষণা করে তড়িঘড়ি নতুন আইন বানিয়ে ফেলেন। সেই সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছিলো কেরলের শবরীমালা মন্দিরে সব বয়সের নারীদের প্রবেশাধিকার থাকবে।

উল্লেখ্য ,যুগ যুগ ধরে শবরীমালা মন্দিরে ১০ থেকে ৫০ বছর বয়সের মেয়ে বা নারীদের প্রবেশ নিষেধ। সেই ব্যবস্থার বিরুদ্ধে দেওয়া সুপ্রিম কোর্টের রায়কে অবমাননা করে কেরলের বিজেপি, আরএসএস নেতৃত্বাধীন সঙ্ঘ পরিবার ধর্মের নামে নারীদের প্রবেশ করতে দিলো না মন্দিরে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। সম্ভবত তিনিও মনে করেন শবরীমালাই মন্দিরে নারীর সমানাধিকার অনুচিত। যেমন কিছু মুসলমান ধর্মগুরু মনে করেন তালাক প্রথা ধর্মের বিধান। শুক্রবার তৃতীয় দিনেও হল না আয়াপ্পাস্বামীর মন্দিরে ঢোকা। শবরীমালা থেকে ফিরলেন মহিলা সাংবাদিক কবিতা জাক্কাল এবং সমাজকর্মী রেহানা ফতিমা। মন্দিরের মূল গর্ভগৃহে ঢোকার ১৮টি সিঁড়ি আগে বসে পড়েন পুরোহিতরা। তাঁরা স্লোগান দেন, যদি কোনও নারী ওই শেষ সিঁড়িগুলি চড়েন তাহলে তাঁরা পুজো বন্ধ করে দেবেন। মন্দিরের দায়িত্বে থাকা দেবস্বম বোর্ডের মন্ত্রী সিপিআইএম ‘র কাডাকামপল্লী সুরেন্দ্রণ বলেন, যদি কোনও সত্যি মহিলা ভক্ত মন্দিরে ঢুকতে চান তাঁরা বাধা দেবেন না।

কিন্তু কোনও সমাজকর্মীকে তাঁদের সাফল্য প্রমাণের জন্য মন্দিরে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। পুজো বন্ধ করে দেবার হুমকি শোনার পর দুই মহিলা ফিরে যাবার সিদ্ধান্ত নেন। শবরীমালা মন্দিরের বিতর্কের রেশ দশমীর ভোরেই পৌঁছায় মহারাষ্ট্রের পুনেতে। পুনে থেকে সমাজকর্মী ত্রুপ্তি দেশাইকে আটক করেছে মহারাষ্ট্র পুলিশ। শবরীমালা মন্দিরে নারী প্রবেশে ফের নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতায় সরব হন ত্রুপ্তি। শুক্রবারই সিরডির সাই বাবা মন্দিরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।তার আগে সিরডি পৌঁছতে চেয়েছিলেন ত্রুপ্তি সহ বিক্ষোভরত নারীর।সেখানেই ছিল বিক্ষোভ কর্মসূচি। তার আগেই পুলিশ তাদের ঘিরে ফেলে বলে অভিযোগ। আটক করা হয় ত্রুপ্তি দেশাইকে।অন্যদিকে শবরীমালা মন্দিরে মহিলা প্রবেশের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে বিক্ষোভে নেমেছে শবরীমালা বাঁচাও কমিটি। যে আন্দোলনে সক্রিয় সমর্থন আছে বিজেপি ,আরএসএস পরিবারের। গত কয়েকদিন ধরেই মন্দিরে ১০-৫০ বছরের নারীদের মন্দিরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। এর বিরোধিতায় মন্দিরের সামনেই নারী সমাজকর্মীরা বিক্ষোভ করেন। বৃহস্পতিবারই নিউইয়র্ক টাইমসের ২ নারী সাংবাদিককে হেনস্থা করা হয়। তাদের লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছোড়ে “শবরীমালা বাঁচাও কমিটি”-র সদস্যরা। বুধবারও আক্রান্ত হন ভারতের প্রচার মাধ্যমের বেশ কিছু নারী সাংবাদিক। এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব তাদের নিয়ন্ত্রণে আনা বলে মনে করছেন ত্রুপ্তি। শুক্রবার সিরডি সাইবাবা মন্দিরের বেশ কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানেই বিক্ষোভ মিছিলের পরিকল্পনা ছিল ত্রুপ্তির। তার আগেই আটক করা হয় তাঁকে।যা অসাংবিধানিক বলে মনে করছেন বিক্ষোভরত নারীরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ