প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঝুঁকিপূর্ণ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ভবন, দ্রুত সংস্কারের দাবি সংশ্লিষ্টদের

এস এম নূর মোহাম্মদ: ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার চলা পুরাতন হাইকোর্ট ভবন। যা এখন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ভবন নামে পরিচিত। তবে দ্রতই ভবনটি সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তারা বলেন, শিগগিরই সংস্কার না হলে যে কোন মুহুর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

জানা গেছে, পুরাতন হাইকোর্ট ভবন রাজধানী ঢাকার অন্যতম ঐতিহ্যের অংশ। ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গের সময় এটি নির্মিত হয়েছিল। ২০১০ সালের ২৫ মার্চ ট্রাইব্যুনাল গঠন করার পর ওই ভবনে বিচার শুরু হয়। যা এখনো চলমান রয়েছে।

ট্রাইব্যুনাল ভবনের পাশেই রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের জন্য বসার ব্যবস্থা রয়েছে। যেটা প্রসিকিউশন কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। জানা গেছে, প্রসিকিউশন থেকে আইন মন্ত্রণালয় ও গণ পূর্ত অধিদপ্তরে বেশ কযেকবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠির পর গণ পূর্ত অধিদপ্তর থেকে প্রকৌশলিরা এসে ভবন পরিদর্শনও করেছেন। কিন্তু কার্যত তেমন কোন কাজ হয়নি।

সরে জমিনে গিয়ে দেখা গেছে, প্রসিকিউশন কার্যালয়ের একটি কক্ষের সিলিং ভেঙ্গে পড়ে রয়েছে। ছাদেও বেশকিছু স্থানে ফাটল। জানা যায়, এই কক্ষেই আগে বসতেন প্রসিকিউটর সৈয়দ রেজাউর রহমান। তবে এই কক্ষটি এখন ব্যবহারের অনুপযোগী বলে জানিয়েছেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সীমন। তিনি বলেন, বিষয় গুলো মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে।

এদিকে আদালত ও প্রসিকিউশন ভবন দুটিই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে বলে জানিয়েছেন প্রসিকিউটর মোখলেছুর রহমান বাদল। তিনি বলেন, বেশ কয়েকবার আইন মন্ত্রণালয় ও গণ পূর্ত অধিদপ্তর চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানানো হয়েছে। কিন্তু এখনো কোন সংস্কার করা হয়নি। আশা করি দ্রুতই তা সংস্কার করা হবে।

বাদল বলেন, আমরা চাইনা অন্য কোথাও ট্রাইব্যুনাল স্থানান্তর করা হোক। এই ভবন দুটি ঐতিহাসিক স্থাপনা। তাই কোন দুর্ঘটনা ঘটার আগেই তা সংস্কার করে সংরক্ষণের উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করেন তিনি।

এছাড়া প্রসিকিউটর হায়দার আলী বলেন, চিঠি দেওয়ার পর গণ পূর্ত অধিদপ্তর থেকে প্রকৌশলিরা এসেছিলেন। তারা বলেছেন, এটা ব্যবহারের অনুপযোগী। যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। হায়দার বলেন, আমি আশা করবো সরকার দ্রতই এই ভবন সংস্কারবে। অন্যথায় অন্যকোন স্থানে এই ট্রাইব্যুনাল সরিয়ে নিবে।

প্রসঙ্গত, ট্রাইব্যুনালের চিঠির প্রেক্ষিতে এর আগে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এই ভবন পরিদর্শন করেছিলেন। এর পর কিছুট সংস্কারও হয়েছিল। তবে দীর্ঘ মেয়াদের জন্য আরও সংস্কার দরকার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ