প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংসদ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন

বাংলা ট্রিবিউন : একাদশ সংসদ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। নির্বাচন কমিশনের (ইসি) পক্ষ থেকে ইউরোপীয় দেশগুলোর জোট ইইউকে চিঠি দিয়ে সংসদ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাতে অনুরোধ জানানো হয়। জবাবে ইইউ জানায়, তারা নির্বাচনে কোনও পর্যবেক্ষক পাঠাবে না। তবে, নির্বাচনের আগে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও নির্বাচনের প্রস্তুতি জানতে দুই জন নির্বাচন বিশেষজ্ঞ পাঠাবে ইইউ। অবশ্য পর্যবেক্ষক না পাঠানোর সিদ্ধান্তকে বড় করে দেখছে না কমিশন। কমিশন জানিয়েছে, আইন ও বিধি মেনে দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকদের তারা স্বাগত জানাবে। তবে, তারা পর্যবেক্ষণ করতে আসার জন্য কাউকে প্রভাবিত করবে না।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর ইইউসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থা ও গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোকে একাদশ সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণের আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। ওই চিঠিতে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার বিষয়টিও উল্লেখ করা হয়েছে।

জানা গেছে, নির্বাচন কমিশনের ওই চিঠির জবাবে ইউরোপীয় এক্সর্টানাল অ্যাকশন সার্ভিস থেকে গত মাসের (সেপ্টেম্বর) ২৭ তারিখে তাদের অবস্থান জানিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি (নোট ভার্বাল) দিয়েছে। এতে ইইউ নির্বাচন পর্যবেক্ষষে না আসার সিদ্ধান্ত জানালেও আমন্ত্রণের জন্য বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন আগামী সংসদ নির্বাচনে কোনও পর্যবেক্ষক টিম না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে, তারা দুই সদস্যের ইলেকশন এক্সপার্ট মিশন পাঠাবে। ওই বিশেষজ্ঞরা বাংলাদেশের রাজনৈতিক দল, প্রার্থী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলবেন। তবে, তারা নির্বাচন পদ্ধতি নিয়ে প্রকাশ্য কোনও অভিমত দেবেন না।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের আগামী সংসদ নির্বাচন গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করে বাংলাদেশে একটি স্বচ্ছ, গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানে উৎসাহিত করে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের ৭ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে নির্বাচন পর্যবেক্ষণে তাদের অবস্থানের কথা তুলে ধরেছে বলে জানা গেছে। সাক্ষাৎকালে ইইউ-এর পক্ষ থেকে ওই চিঠিও ইসিকে সরবরাহ করা হয়েছে বলে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে।

বৈঠক শেষে প্রতিনিধি দলের প্রধান ও ইইউ রাষ্ট্রদূত রেনসে টেরিংক সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পর্যবেক্ষণ না পাঠানোর বিষয়ে কিছু না জানালেও নির্বাচনের আগে এক্সপার্ট মিশন পাঠানোর কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘আমরা আশা করি, নির্বাচন হবে সব দলের অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য এটা গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনের আগে ইইউ বিশষজ্ঞ টিম পাঠাবে। তফসিলের পরে নভেম্বরে তারা দুই সপ্তাহ অবস্থান করে ভোটের পরস্থিতি দেখবে।’

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন বলেন, ‘তারা আমাদের কাছে পর্যবেক্ষক (অবজারভার) সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। আমরা তাদের বলেছি, আমাদের ১১৯টি স্থানীয় পর্যবেক্ষণ গ্রুপ রয়েছে। এ ছাড়া বাইরের দেশ থেকে যে পর্যবেক্ষকেরা আসতে চাইবেন, তাদের স্বাগত জানানো হবে। তাদের জন্য একটি নীতিমালা আছে। সে অনুযায়ী তারা সবকিছু করতে পারবেন। তাদের আইডি কার্ড দেওয়া হবে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কমিশনার রকিফুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা কাউকে পর্যবেক্ষক পাঠানোর জন্য অনুরোধ করিনি। আমরা বলেছি, নীতিমালার অধীনে কেউ পর্যবেক্ষণ করতে চাইলে তাকে স্বাগত জানাবো। তবে, কাউকে আসার ব্যাপারে প্রভাবিত করবো না। আসবে কিনা, সেটা তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্ত। তবে, যেই আসুক, নীতিমালা মেনেই আসতে হবে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন আসবে কিনা, সেটা নিয়ে আমাদের মাথাব্যথা নেই।’

ইইউ-এর চিঠি প্রসঙ্গে রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘তারা বেশ আগেই আমাদের দূতাবাসে নোট ভার্বালটি দিয়েছিল। বৃহস্পতিবার কমিশনের সঙ্গে সাক্ষাতের সময়ও তার একটি কপি তারা সরবরাহ করেছে।’

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি ও তাদের মিত্রদের বর্জনের মধ্য দিয়ে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কোনও পর্যবেক্ষক পাঠায়নি। তবে, তারা ২০০৮ সালের নবম সংসদ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠিয়েছিল বলে ইসির যুগ্ম সচিব (গণসংযোগ) এসএম আসাদুজ্জামান নিশ্চিত করেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত