প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অতীত ভুলের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চাইলেন বদরুদ্দোজা চৌধুরী
তবে অলি আহমেদের দাবি, বি. চৌধুরীই জামায়াতকে জোটে এনেছিলেন

শিমুল মাহমুদ : ২০০১ সালে জামায়াতের সাথে বিএনপির জোট গড়ার সময় দলীয় সিদ্ধান্তের বিরোধিতা না করায় জাতির কাছে ক্ষমা চাইলেন বিকল্পধারা প্রেসিডেন্ট বদরুদ্দোজা চৌধুরী। ৭১ টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাতকারে বিএনপির এ প্রতিষ্ঠাতা সদস্য বলেন, ‘আমার সেদিন প্রতিবাদ করে বেরিয়ে আসা উচিত ছিলো।’ তবে এই ইস্যুতে বি. চৌধুরীর দিকেই অভিযোগের তীর ছুঁড়েছেন এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ। তিনি বলেছেন, ‘বি. চৌধুরীই জামায়াতকে বিএনপির জোটে এনেছিলেন।’

সাক্ষাতকারে বি. চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের নেত্রী এসে বললেন, আমি একটা কাজ করেছি। তোমরা আপত্তি করতে পারবা না। তিনি বললেন, আজকে আমি জামায়াতের সাথে চুক্তি করেছি। তখন আমি একটা প্রচণ্ড রকম ধাক্কা খেলাম। সে দিনের অপরাধের জন্য আমি জাতির কাছে ক্ষমা চাই। আমার সেদিন প্রতিবাদ করে বেরিয়ে আসার উচিত ছিলো।’

কিন্তু জামায়াতের সাথে ঐক্যের ব্যাপারে বি. চৌধুরীই ছিলেন মূল কারিগর, এমন দাবি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের। তিনি বলেন, ‘জামায়াতকে বিএনপির জোটে এনেছেন বি. চৌধুরী এবং তাদের ভোটেই রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে বি. চৌধুরীর উদ্যোগেই বিএনপির সাথে জোটে যোগ দেয় যুদ্ধাপরাধী দল জামায়াতে ইসলামী। এদের সাথে আসন ভাগাভাগি ও মন্ত্রিত্ব দেয়ার মূল কারিগরও ছিলেন তিনি।’

অলি আরো বলেন, ‘তখনতো আমি জামায়াতকে না নেয়ার পক্ষে ছিলাম। বি. চৌধুরী কখনো এটার বিরুদ্ধে ছিলেন না। এমনকি নিজামী সাহেবের পাশে দাঁড়িয়ে শপথ গ্রহণ করেছেন। তিনি আজকে তো বলতে পারেন না, জামায়াত ভালো না।’
তবে অলি আহমেদের এসব বক্তব্যকে ‘অসত্য’ বলেছেন বি. চৌধুরী।

বিকল্পধারা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটে যোগ দিতে যাচ্ছে, এমন গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে তিনি দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাথে জোটে যাবার কোন পরিকল্পনা আমাদের নেই। আমি এদেশের জন্য রাজনীতি করেছি। কখনো সন্ত্রাসীদের সাথে যুক্ত হইনি। দুর্নীতি করেছি, এ কথা কেউ বলে না।

সেই সঙ্গে সরকারকে সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধ্য করতে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অথবা ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের আহ্বান জানান তিনি।’

সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ