প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্বে চালের উৎপাদন বেড়েছে

নূর মাজিদ : চলতি অক্টোবর মাসে ভারতের চালের উৎপাদন বৃদ্ধি পাওয়ায় বিশ্বে চালের উৎপাদন বেড়েছে। একই সময় মিশরের ধানের উৎপাদন কম হওয়ায় বিশ্ববাজারে মিশ্র প্রভাব পড়েছে । ফলে চলতি বছরের শেষে বিশ্বের মোট চাল উৎপাদন আগামী বছরের রেকর্ড উৎপাদনের চাইতে কম হবে বলেই জানা গেছে। বিশ্বের বৃহৎ চাল উৎপাদক দেশগুলোর দেয়া তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে এই পূর্বাভাষ দেয়া হয়। যদিও চলতি বছরে ২০১৭ সালের তুলনায় চালের চাহিদা সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে তবু মাস চলতি মাসের শেষে বিশ্বের বৃহৎ চাল উৎপাদকদের কাছে যথেষ্ট চালের মজুদ থাকবে। বিশ্বের চালের অষ্টম বৃহৎ উৎপাদক ফিলিপাইনের অভ্যন্তরীণ বাজারের চাহিদার প্রেক্ষিতে চলতি মাসে দেশটির চাল আমদানির পরিমাণ বেড়েছে। তবে একই সময় বিশ্বের সর্ববৃহৎ চাল উৎপাদক চীনের বাজারে ভোক্তা চাহিদা কমায় বৈশ্বিক চালের বাজারে একটি ভারসাম্যমূলক অবস্থা বিরাজ করছে।

বিশ্বে চালের উৎপাদন ও চাহিদার মাঝে সামান্য সমন্বয় এসেছে চলতি মাসে। এই কারণেই চলতি মাসের শেষে বৈশ্বিক চালের মজুদ বেশি থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও, যুক্তরাষ্ট্র-চীন বানিজ্য উত্তেজনা আন্তর্জাতিক চালের বাজারে কোন প্রভাব ফেলেনি। গত মাসে বৈদেশিক বাজারে চাহিদা কমায় ভারতীয় চালের রপ্তানি মূল্য টনপ্রতি ৩৭৫ ডলারে নেমে আসে। একই সময় থাইল্যান্ডের উৎপাদিত চাল বিক্রি হয়েছে টনপ্রতি ৪০৯ ডলারে। এছাড়াও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় চালের উৎপাদন বৃদ্ধি পাওয়ায় ভিয়েতনামের উৎপাদিত চাল টনপ্রতি ৩৯৮ ডলারে বিক্রি হয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার অপর দেশ পাকিস্তানের চালের মূল্য বর্তমানে ৩৮৫ ডলারেই স্থির রয়েছে। কমোডিটি অনলাইন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ