প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বেরিয়ে পড়ল ঐক্যফ্রন্টের থলের বেড়াল

প্রভাষ আমিন : বিএনপি খুব কৌশলে দুই নৌকায় পা রেখেছে, ২০-দলীয় জোটে জামায়াতকে পাশে রেখে নিজেদের ভোট ব্যাংকটা অটুট রাখতে পেরেছে। আবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে ড. কামালকে সামনে রেখে নিজেদের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারের চেষ্টাটাও করতে পারছে। কিন্তু কাজটা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। বিএনপির এই কৌশলের থলের বেড়াল বেরতে দুদিনের বেশি লাগেনি। ১৩ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মপ্রকাশ করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট; যেখানে বিএনপি আছে, কিন্তু ২০ দলীয় জোট নেই। কিন্তু দুদিনের মধ্যে ১৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত বৈঠকে ২০-দলীয় জোটের বৈঠকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে স্বাগত জানানো হয়েছে। পাশাপাশি ২০-দলীয় জোট ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফা দাবি এবং ১১ দফা লক্ষ্যকে সমর্থন দিয়েছে। বৈঠক করে আনুষ্ঠানিকভাবে একাত্মতা প্রকাশ না করলেও সবাই জানে ২০ দল বিএনপির সঙ্গে আছে। আর বিএনপির সঙ্গে আছে মানে ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গেও আছে। তার মানে কিন্তু জামায়াতে ইসলামীও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছে, স্বাগত জানিয়েছে; তাদের দাবি ও লক্ষ্যে সমর্থন দিয়েছে। কারণ ২০-দলীয় জোটের ঘোষণায় কিন্তু ২০-দলের কথাই বলা হয়েছে, জামায়াতে ইসলামকে বাদ দিয়ে বলা হয়নি। জামায়াতসহ ২০-দলের সমর্থনের বিষয়টি ঐক্যফ্রন্টের নেতারা কীভাবে নিচ্ছেন, সেটা জানতে পারলে ভালো হতো। কিন্তু জানতে পারবো না। কারণ ঐক্যফ্রন্টের নেতারা আরও কৌশলী। অনেক বিষয়ে তারা কথা বলেন, আবার কিছু বিষয় এড়িয়েও যান। আমি নিশ্চিত জামায়াত বিষয়ে তারা মুখ খুলবেন না, যেমন মুখে কুলুপ এঁটেছেন, ২১ আগস্ট মামলার রায় নিয়ে।

তবে আমার ধারণা ছিল, চক্ষুলজ্জার কারণে হলেও বিএনপি ২০-দল তথা জামায়াতের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একটা সম্মানজনক দূরত্ব বজায় রাখবে। কিন্তু চক্ষুলজ্জার বালাই না করে বিএনপি সরাসরি মাঠে নেমে গেলো। শোনা যাচ্ছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট তাদের দাবি আদায়ে, লক্ষ্য অর্জনে কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামবে। সেই কর্মসূচিতে নিশ্চয়ই বিএনপির সঙ্গে ২০ দলও অংশ নেবে। জামায়াতের কর্মী-সমর্থকরা যদি সেসব কর্মসূচিতে অংশ নেয়, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কী তাদের ফিরিয়ে দেবে?

লেখক : হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ