প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘ভোট’ আর ‘জোটের’ হাওয়া এবং কঞ্চি কাহিনী

সৈয়দ জাহিদ হাসান : বিপদ এলে বিভ্রান্তি এসেও হাজির হয়। বিপদে যে ধৈর্য ধারণ করতে পারে, বিবেক-বুদ্ধি জাগ্রত রেখে যে বিপদ মোকাবিলা করতে পারে, বিভ্রান্তি তাকে ভুল পথে পরিচালিত করতে পারে না। দিনে দিনে আমাদের সামনে এসে জড়ো হচ্ছে বিভ্রান্তির পাহাড়। এই অচল, অটল পাহাড় ঠেলে এগিয়ে যেতে হলে চোখ-কান খোলা রাখা সার্বক্ষণিক কর্তব্য। আজ আমরা সবাই যার যার সুবিধা আদায় করে নিতে ব্যস্ত। কেউ অন্য কারো কথা ভাবছি, অন্যের সুখ-দুঃখের কথা আজ যেন আমরা ইচ্ছে করেই ভুলতে বসেছি। আজ আমরা প্রত্যেকেই আটকে যাচ্ছি ব্যক্তিগত স্বার্থের বৃত্তে। স্বার্থবৃত্তের বাইরে বেরিয়ে বৃহৎ পরিসরে দাঁড়াবার সাহস আজ আমাদের কম মানুষেরই আছে। ‘মানবসেবা’, ‘মানবভক্তি’ কিংবা ‘মানবধর্ম’ কথাগুলো মানুষের মন-মাথা থেকে তো গেছেই, এমনকি আজকাল বই-পুস্তকেও এই কথাগুলো খুব একটা দেখা যায় না। আজ আমরা প্রযুক্তিগত শিক্ষার অজুহাতে হৃদয়হীন হওয়ার যে নির্দয় পথ ধরেছি, ওই পথের শেষে আমাদের জন্য কী অপেক্ষা করছে তা একটু ভেবে দেখা দরকার। চটুল কিংবা চটকদার কথায় আজ আমরা বিভ্রান্ত হয়ে সর্বস্ব হারাতে বসেছি। অনেকেই এর মধ্যে সর্বস্ব হারিয়ে ফেলেছি। বিভ্রান্তির সঙ্গে লোভযুক্ত হয়ে ক্রমাগত আমাদের নিয়ে যাচ্ছে সর্বনাশের অতল গহ্বরে, আজ সর্বত্রই দেখতে পাচ্ছি লোভের বিজ্ঞাপন। রাজনীতিতে লোভের বিজ্ঞাপন, ব্যাংক-বীমায় লোভের বিজ্ঞাপন। এমনকি ধর্মালয়েও আজ লোভের বিজ্ঞাপন প্রচার করা হচ্ছে। মুলোর লোভ দেখিয়ে গাধাকে যেমন গন্তব্যে যেতে বাধ্য করা হয়, বড়শিতে খাবারের লোভ দেখিয়ে নির্বোধ-ক্ষুধার্ত মাছকে যেমন জলের ভেতর থেকে ডাঙায় টেনে তোলা হয় তেমনি ‘অফারের’ লোভ দেখিয়ে আমাদের সবকিছু কেড়ে নিচ্ছে প্রতারকচক্র। ওরা আমাদের নিঃস্ব করতে চায়, উদ্বাস্তু করতে চায়, আমাদের মাথায় কাঁঠাল ভেঙে কৌশলে খেয়ে যেতে হয়। সারা পৃথিবীতেই আজ শঠের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। শঠেরা ক্ষমতাবান হয়ে নির্বোধ-দুর্বলদের উপর নানা রকম চাতুরির কৌশল প্রয়োগ করছে। এই কৌশল প্রথমে উপকারী মনে হলেও কিছুদিন পরে দেখা যায় ‘জান ধরে টান দিচ্ছে।’

বাংলাদেশে এখন ভোটের হাওয়া বইছে। ভোটের হাওয়ার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ‘জোটের চাওয়া-পাওয়া’। কে কার সঙ্গে জোট করে কী কী সুবিধা পাবে, মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রী হবে এসব হিসাব-নিকাশে ব্যস্ত রাজনৈতিক দলগুলো। ভোটের সময় বাংলাদেশের গরিব মানুষের আদর বাড়লেও ভোটের পরে তারা বন্য বাঁদরের মতো তাড়া খায় নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের কাছে। এখনকার বাংলাদেশের জনপ্রতিনিধিদের বেশিরভাগই আসছে ব্যবসায়ী গোষ্ঠী থেকে। ব্যবসায়ীরা লেনদেনে দক্ষ হয়ে থাকেন। ভোটের বাজারেও তারা লেনদেন করতে ওস্তাদি দেখিয়ে থাকেন। গরিবের ক্ষুধাকে পুঁজি করে এরা টাকা দিয়ে ভোট কিনে শুধু গরিবের সঙ্গেই নয়, পুরো জাতির সঙ্গেই প্রতারণা করে থাকেন। যারা অবৈধ কালো টাকা দিয়ে ভোট কিনতে চায়, আগামী নির্বাচনে তাদের বয়কট করার মানসিক শক্তি প্রদর্শন করা দরকার।

আশাহীন ব্যক্তির বুকে যেমন হতাশা বাসা বাঁধে, তেমনি আশাহীন জাতির মনেও দেখা দেয় বিভ্রান্তি। আশাহীন জাতির বুকে আশা জাগিয়ে তাদের সামনের দিকে দুর্বার বেগে এগিয়ে নেওয়াই নৈতিকতাসম্পন্ন নেতাদের প্রধান কাজ। আজ আমাদের বেশিরভাগ নেতাই ভোগমত্ত ও দুর্বৃত্ত। এদের কাছে বেশি কিছু আশা করা বোকামি হলেও হাল ছেড়ে দেওয়া ঠিক হবে না। যতক্ষণ না বাঁশ পাওয়া যায় ততক্ষণ কঞ্চি দিয়েই কাজ চালিয়ে নিতে হয়। আজ আমাদের সমাজে কাজ চালানোর মতো কঞ্চির সংখ্যাও সীমিত। তবু এই সীমিত সংখ্যা দিয়েই সীমাহীন সমস্যার সমাধান করতে হবে। অনেক প্রলোভন এখন সমাজের সামনে আসবে। এসব প্রলোভনের ফাঁদে পা না দিয়ে, মরীচিকায় বিভ্রান্ত না হয়ে যেখানে তৃষ্ণার জল পাওয়া যাবে সেখানেই আশ্রয় নিতে হবে আমাদের। এখন বিচলিত হয়ে সিদ্ধান্ত নিলেই মৃত্যু অবধারিত। মৃত্যু নয়, জীবনের গানই হোক বিভ্রান্ত পথিকের এগিয়ে চলার মন্ত্র।

লেখক : কবি ও কথাশিল্পী

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ