প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আন্দোলন ও নির্বাচন ২ প্রস্তুতিতেই বিএনপি

মানবজমিন : আন্দোলন ও নির্বাচনের দ্বিমুখী প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। সরকারবিরোধী নবগঠিত বৃহত্তর প্লাটফর্ম জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মাধ্যমেই শুরু হয়েছে এ তৎপরতা। ফ্রন্টের নেতারা একদিকে আন্দোলন কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের কৌশল নিয়ে কাজ করছেন, অন্যদিকে নির্বাচনী আসন ও সম্ভাব্য প্রার্থীদের ব্যাপারে সার্বিক পরিস্থিতির হালনাগাদ তথ্যসংগ্রহের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সংগৃহীত তথ্যের চুলচেরা বিশ্লেষণ শেষে চূড়ান্ত করা হবে প্রার্থী মনোনয়ন। এসব কর্মতৎপতা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সব দলের নেতাদের সমন্বয়ে গঠন করা হবে একাধিক টিম। বিএনপির পক্ষ থেকে বহিষ্কৃত নেতাদের দলে ফেরানো ও নিষ্ক্রিয়দের সক্রিয় করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। একের পর এক জরিপ করা হচ্ছে আসনভিত্তিক। সেই সঙ্গে আন্দোলন কর্মসূচিতে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে অর্ধেক নির্বাচনী প্রস্তুতি সেরে নিতে চায় বিএনপি।

এদিকে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে যখন জাতীয় ঐক্য তৈরি হয়েছে তখন ২০ দলীয় জোট ছেড়ে গেছে দুটি শরিক দল। বিষয়টিকে জাতীয় ঐক্য বিনষ্টে সরকারের ষড়যন্ত্র হিসেবেই দেখছে বিএনপি। তবে ২০ দলের সঙ্গে থাকার ঘোষণা দিয়েছে দল দুটির একাংশ। তার পরও নির্বাচনী আসন নিয়ে অনিশ্চয়তা দূর করতে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের সঙ্গে আলোচনা করছেন বিএনপি নেতারা। বাস্তবতাসাপেক্ষে প্রতিটি দলকে যথাযথ মূল্যায়নের আশ্বাসও দিচ্ছে জোটের শীর্ষ দল বিএনপি। যদিও কৌশলগত কারণে প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়টি এখনই প্রকাশ্যে আনতে চায় না বিএনপি।

বিএনপি সূত্র জানায়, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন সময়ে নানা কারণে বহিষ্কৃত নেতাদের দলে ফেরানোর একটি উদ্যোগ নিয়েছে শীর্ষ নেতৃত্ব। তারই অংশ হিসেবে বহিষ্কারের কারণ, এলাকার জনপ্রিয়তা, গ্রহণযোগ্যতার সার্বিক তথ্যসহ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে একটি তালিকা পাঠানো হয়েছে। সে তালিকার অনেক নেতার সঙ্গে আলোচনা করে তাদের সক্রিয়ভাবে দলীয় কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণের নির্দেশনাও দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। এ ছাড়া বিভিন্ন নির্বাচনী আসনে নেতাদের দ্বন্দ্ব-কোন্দল মেটাতে কাজ করছেন একটি টিম। বিএনপি চেয়ারপারসন কার্যালয় সূত্র জানায়, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আসনভিত্তিক একাধিক জরিপ করেছে বিএনপি। আলাদা আলাদা সে জরিপের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে মার্কিং করছেন শীর্ষ নেতৃত্ব। এ ছাড়া দলের সিনিয়র নেতাদের মধ্যে মহাসচিবসহ যাদের আসনে জটিলতা নেই তারা নিয়মিত এলাকায় যাচ্ছেন। সম্প্রতি এলাকায় গিয়ে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ কয়েক দফায় ক্ষমতাসীনদের রোষানলেও পড়েছেন। এদিকে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে প্রার্থিতার সবুজ সংকেত না পেলেও সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নেতারা এলাকায় কাজ করছেন। তারা নানা অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে এলাকায় যাচ্ছেন। ঘরোয়া বৈঠক, অনানুষ্ঠানিক মতবিনিময় ও ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানে দান-অনুদান দিচ্ছেন। কয়েকজন সিনিয়র নেতা জানান, বড় ও গণতান্ত্রিক দল হিসাবে সব সময় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত বিএনপি।

এদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে এ প্লাটফর্মের কর্মতৎপরতা। তারই অংশ হিসেবে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রথম আনুষ্ঠানিক বৈঠক করেছেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। বৈঠকের পর ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে প্রথম কর্মসূচি হিসেবে আজ বাংলাদেশে নিযুক্ত বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিকাল ৩টায় গুলশানের হোটেল লেকশোরে এ মতবিনিময় করবেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মতবিনিময় সভায় কূটনীতিকদের সামনে বাংলাদেশের সার্বিক পরিস্থিতি সংক্ষেপে তুলে ধরা হবে। বিশেষ করে আগামী জাতীয় নির্বাচন কেন একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠানের প্রয়োজন রয়েছে এবং দেশের বেশিরভাগ রাজনৈতিক দল এই দাবির পক্ষে, তা কূটনীতিকদের জানানো হবে। ঐক্যফ্রন্টের ঘোষিত ৭ দফা দাবির পক্ষে যুক্তি তুলে ধরা হবে। সেই সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের ১১ লক্ষ্য ব্যাখ্যা করা হবে। বিএনপি নেতারা বলছেন, সরকারের বিরুদ্ধে সবাই ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন তারই একটি রূপমাত্র। এর বাইরেও বামজোটসহ অনেক দল সরকারের বিপক্ষে এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের পক্ষে স্বতন্ত্র অবস্থান থেকে আন্দোলনে সোচ্চার হচ্ছে। রাজনৈতিক দলের বাইরে পেশাজীবী ও সুশীল সমাজও ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। এই ঐক্যের প্রক্রিয়া দিনকে দিন জোরদার হবে। ঐক্যের মাধ্যমে সারা দেশে সরকারবিরোধী জনমত সংগঠিত হবে। সেই জনমতের চাপে সরকার দাবি পূরণে বাধ্য হবে। নেতারা বলছেন, আন্দোলন কেবল রাজপথেই হয় না। রাজপথের বাইরেও আন্দোলন রয়েছে। প্রচলিত ধারার আন্দোলন কর্মসূচি থেকে বেরিয়ে শান্তিপূর্ণ ও জনসম্পৃক্ত কর্মসূচির মাধ্যমে পথ চলবে ঐক্যফ্রন্ট।

বিএনপির দায়িত্বশীল কয়েকজন নেতা জানান, এখন তাদের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে দুইটি বিষয়- আন্দোলন ও নির্বাচন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা ঘোষিত সাত দফা দাবি আদায়ের কৌশল ও কর্মসূচি প্রণয়ন এবং নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে কাজ করছেন। দফায় দফায় অনানুষ্ঠানিক আলোচনা চলছে কর্মকৌশল ও কর্মসূচি নিয়ে। তারা সবাই, জনসম্পৃক্ত কিন্তু শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে সরকারের ওপর দেশের মানুষ এবং আন্তর্জাতিক মহলের সর্বোচ্চ চাপ সৃষ্টির মাধ্যমে নিরপেক্ষ সরকারের দাবি আদায়ের পথে হাঁটতে একমত। মহানগর ও জেলা পর্যায়ে সমাবেশ এবং পেশাজীবীসহ বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের মাধ্যমে তারা সে চাপ সৃষ্টি করতে চান। তবে পরিস্থিতি বাধ্য করলে রাজপথের কড়া কর্মসূচি দিতেও দ্বিধা করবে না জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিএনপি নেতারা জানান, আন্দোলনের পাশাপাশি প্রস্তুতি রাখা হচ্ছে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের। সেজন্য প্রার্থী বাছাইয়ের কাজও করবেন বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের নিয়ে গঠিত সংশ্লিষ্ট একটি টিম। সেখানে বিএনপির শক্ত ভোটব্যাংকগুলোতে দলের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় প্রার্থীকেই বেছে নেয়া হবে। অন্যদিকে যেসব আসনে বিএনপির সাংগঠনিক অবস্থান এবং ভোট ব্যাংক তুলনামূলক দুর্বল সেখানে ২০ দলীয় জোটসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের বিবেচনা করা হবে। বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চলমান আন্দোলন সম্পৃক্ত কোনো পক্ষকেই মনোনয়ন বঞ্চিত বা হতাশ করা হবে না।

বিএনপি নেতারা জানান, আগামী জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আসন বণ্টন ও মূল্যায়নের ব্যাপারে বিএনপির ওপর চাপ তৈরি করে আসছিল কয়েকটি শরিক দল। এই নিয়ে শরিক দলগুলোর মধ্যে কিছুটা অস্বস্তি, অসন্তোষও ছিল। এসব দল তাদের মূল্যায়নে চাইছিলেন দৃৃশ্যমান আশ্বাস। তবে জোটের ঐক্য ধরে রাখা ও সুষ্ঠু নির্বাচনের আন্দোলনে মনোযোগ ধরে রাখতে তাদের চাওয়া-পাওয়ার বিষয়ে এখনই সিদ্ধান্ত নিতে চাইছিল না বিএনপি। এমনকি নিজ দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদেরও বিএনপি শীর্ষ নেতৃত্ব কোনো সংকেত দেয়নি। এছাড়া ২০ দলীয় জোট বিদ্যমান থাকা অবস্থায় অন্যান্য দলের সমন্বয়ে জাতীয় ঐক্য গড়ার ব্যাপারে কিছুটা অস্বস্তি ছিল কয়েকটি শরিক দলের। জাতীয় ঐক্য গড়ার বিষয়টিকে জোটের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়ার ব্যাপারে কিছু নেতার বক্তব্য সেটা তীব্র করে তুলেছিল। ফলে জোটের অনেক শরিক এই ঐক্য গঠনের সমালোচক ছিলেন। তাদের মধ্যে শঙ্কা কাজ করছিল- আগামী নির্বাচনে তাদের থেকে এই ঐক্যকেই বেশি প্রাধান্য দেবে বিএনপি। এ নিয়ে দুয়েকটি শরিক দলের সন্দেহ আর অবিশ্বাসকে কাজে লাগিয়ে ক্ষমতাসীন মহল ও বিভিন্ন জায়গা থেকে তাদের নানাভাবে প্রলুব্ধ করা হচ্ছিল। যার ফলে বাংলাদেশ ন্যাপ ও এনডিপির একাংশ ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা দেয়। বিএনপি শুরুতে বিষয়টিকে গুরুত্ব না দিলেও দলের হাইকমান্ডের নির্দেশনায় শরিক দলগুলোর সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন সিনিয়র নেতারা। বিএনপি স্থায়ী কমিটির দুই সদস্য বলেন, ২০ দলের কয়েকটি শরিক দলের ওপর ক্ষমতাসীনদের তরফে চাপ ও টোপ রয়েছে। তবে তারা আশা প্রকাশ করেন অন্য কোনো শরিক দল চাপের মাধ্যমে নতি স্বীকার ও লোভের কাছে পরাজিত হবে না। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যুক্তরাজ্য থেকে খোদ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান শরিক দলের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। তিনি নিজেই শরিক দলের শীর্ষ নেতাদের যথাযথ মূল্যায়নের ব্যাপারে আশ্বস্ত করছেন। বিএনপি নেতারা জানান, গত বৃহস্পতিবার দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে তিন নেতা মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও নজরুল ইসলাম খান লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি- এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ বীরবিক্রমের বাসায় যান। এসময়ে তারা বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট, বিএনপির অবস্থান, অতীতের নানা ঘটনা নিয়ে আলোচনা করেন। সার্বিক বিষয়ে তার পরামর্শও নেন। এছাড়া বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মে. জে. (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীকের জন্মদিনে তার বাসায় যান বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদ বীরবিক্রমসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা। একইভাবে প্রবীণ রাজনীতিবিদ বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল সভাপতি এএইচএম কামরুজ্জামান খানসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। বিএনপি নেতারা জানান, শরিক দলগুলোর আস্থা রক্ষায় নেতারা তাদের বাসায় যাচ্ছেন, আলাদা করে আলোচনা করছেন।

এসব বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দলগুলোর চিন্তাভাবনা থাকে নানা ধরনের। তবে যে দলগুলো গত ১০ বছর ধরে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছে, তাদের মধ্যে হঠাৎই কেউ বেরিয়ে গেলে দেখতে খারাপ দেখায়। ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, জোটে কোনো ভাঙন নেই। দুটি দলের কিছু নেতা চলে গেছেন। তবে তাদের দলের বড় অংশটি এখনো জোটেই আছেন। জোটের ঐক্য অটুট রয়েছে। অন্য কোনো দলের জোট ছেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছি না। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ২০ দলীয় জোট ভাঙছে না। এখানে দু-একজন নেতা চলে গেছেন। তবে তাদের দল থাকছে। তারা ইতিমধ্যে দলত্যাগীদের বহিষ্কার করেছেন। তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্য নষ্ট করতে নানামুখী চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র থাকতে পারে, কিছু মানুষের বৈষয়িক লাভও থাকতে পারে। সব জায়গায় এই রকম কিছু মানুষ ঘাপটি মেরে থাকে। কিছু মানুষ বৈষয়িক প্রশ্নে অনেক সময় আপস করে। স্বাধীনতাযুদ্ধের সময়ও এমনটি হয়েছে। এই আপসকামিতা আসলে স্বার্থের কাছে আত্মা বিক্রির নামান্তর। বিএনপির এক ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ২০ দলীয় জোট থেকে সরে দাঁড়িয়েছিল মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামীর নেতৃত্বাধীন ইসলামী ঐক্যজোট ও শেখ শওকত হোসেন নীলুর নেতৃত্বাধীন এনপিপি। ক্ষমতাসীনদের কোনো ধরনের মূল্যায়ন পাননি নীলু। ইতিমধ্যে তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন। অন্যদিকে মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী এখন রাজনীতিতে হতাশ এবং নিষ্ক্রিয়। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, বিএনপির সঙ্গ ছেড়ে যাওয়া এনডিপি ও বাংলাদেশ ন্যাপের একাংশও রাজনীতিতে সুবিধা করতে পারবে না, হতাশ হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ