প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সৌদি আরব নির্দোষ : ট্রাম্প
খাসোগজিকে নির্যাতনের নির্দেশ দেন সৌদি কনস্যুলেট জেনারেল

নূর মাজিদ : ভিন্নমতাবলম্বী সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগজিকে ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে জেরা ও নির্যাতনের সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সৌদি কনস্যুলেট জেনারেল। এমনকি তিনি জেরার সময় খাসোগজির হাতের আঙুলগুলো এক এক করে কেটে ফেলার নির্দেশ দেন সৌদি গুপ্তঘাতক দলের সদস্যদের। গতকাল বুধবার তুর্কি দৈনিক ইয়েনি সাফাক দেশটির সরকারি গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে এই খবর প্রকাশ করে। পত্রিকাটি জানায়, তুর্কি গোয়েন্দাদের হাতে থাকা অডিও রেকর্ডে সৌদি কনস্যুলার জেনারেল মোহাম্মদ এল-ওতাইবি এবং গুপ্তঘাতক দলের সদস্যদের কথাবার্তা ও নির্যাতনের সময় খাসোগজির চিৎকার স্পষ্ট শোনা যাচ্ছে। নির্যাতনের পর একটি বিষাক্ত ইঞ্জেকশন দিয়ে হত্যা করা হয় জামাল খাসোগজিকে। এরপর তার মৃতদেহ একটি বিশেষ ধরনের হাড় কাটার করাত দিয়ে টুকরো টুকরো করে সৌদি গুপ্তঘাতক দল।

তুর্কি কর্মকর্তাদের দাবি, এরপর বিমানবন্দরের তল্লাশি এড়াতে কূটনৈতিক লাগেজে করে তার লাশ নিয়ে তুরস্ক ত্যাগ করে গুপ্তঘাতক দল। দলটির এক গুরুত্বপূর্ণ সদস্যের নাম জানিয়েছে তুর্কি গোয়েন্দাসূত্র। এই সদস্যের নাম মাহের আব্দুল আজিজ মুতরেব। সে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের একজন বিশ্বস্ত দেহরক্ষী। সৌদি যুবরাজের নিরাপত্তার দায়িত্বপালনকালীন অবস্থায় তাকে এর আগে যুক্তরাষ্ট্র, প্যারিস এবং মাদ্রিদেও দেখা গেছে। বর্তমানে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খুঁজছে তুর্কি কর্তৃপক্ষ। তবে সৌদি কনস্যুলার জেনারেল ওতাইবি ইতোমধ্যেই নিজ দেশে ফিরে গেছেন। ফলে তাকেও জেরা করতে পারছেনা তুর্কি গোয়েন্দারা।

সাংবাদিক জামাল খাসোগজি নিখোঁজের বিষয়টি নিয়ে পূর্ণ তদন্ত চলছে এবং তাঁর নিখোঁজের বিষয়ে কিছু জানেন না সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান । মঙ্গলবার সৌদি যুবরাজ সম্পর্কে এ কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বার্তা সংস্থা এপি’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘কোনো কিছু প্রমাণ না হবার আগে সৌদি আরবকে দোষারোপ করা হচ্ছে’। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও সৌদি সফরে দেশটির বাদশাহ সালমান এবং ক্রাউন প্রিন্সের সঙ্গে এক বৈঠক করার পর এমন কথা জানালেন ট্রাম্প। ইতোপূর্বে ট্রা¤প সৌদি বাদশাহর সঙ্গে এক ফোনালাপের পর জানিয়েছিলেন, খাসোগজির বিষয়ে সৌদি বাদশাহ কিছুই জানেন না। তবে সৌদি প্রশাসনের একটি উগ্রবাদি এবং বিচ্ছিন্ন অংশ এই হত্যাকা-ে জড়িত থাকতে পারে বলেই দাবি করেন ট্রাম্প।

ট্রাম্পের এমন বক্তব্যের পরই মঙ্গলবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে সিএনএন জানায়, সৌদি আরবের ঘনিষ্ঠ এক কূটনীতিক সূত্রের বরাত দিয়ে তারা জানতে পেরেছে আগামী কিছুদিনের মধ্যেই খাসোগজি হত্যাকা-ে তাদের প্রশাসনের একটি বিচ্ছিন্ন ও দুর্বৃত্ত অংশ জড়িত এমন ঘোষণা দেবার প্রস্তুতি নিচ্ছে সৌদি আরব। তবে ট্রাম্পের বক্তব্যের পর যুক্তরাষ্ট্রের অনেক রাজনীতিবিদ, গণমাধ্যম এবং মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সৌদি আরবের গণসংযোগ কর্মকর্তার ভূমিকা পালন করছেন। এই কারণেই তিনি সৌদি আরবকে এই সঙ্কট থেকে পরিত্রাণের উপায় খুঁজে দিতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সিএনএন, বিবিসি, ডেইলি মেইল, ইয়েনি সাফাক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত