প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অষ্টমি পূজায় মানুষের ঢল, প্রকৃতিজ্ঞানে কুমারীকেপূজা
রাজসুখ ও মন্ত্রিত্বলাভ কুমারী পূজার অন্যতম লক্ষ্য

বিশ্বজিৎ দত্ত : বাঙ্গালী হিন্দুর দুর্গাপূজার প্রধান দিন মানেই হলো অষ্টমির পূজা। আজ সকাল থেকেই তাই পূজা মণ্ডপে ভিড় একটু বেশি। সকালে আবহাওয়া ভাল থাকায় বৃদ্ধ থেকে শিশু সবাই অংশ নিচ্ছে পূজার আনন্দে। এরমধ্যে রামকৃষ্ণ মিশনের একটি বিশেষ পূজা হলো কুমারি পূজা।

হিন্দু ব্রহ্মবৈবর্ত পুরানে আছে, কুমারী হলো বিশ্বের সমস্ত নারীর প্রতীক। নারি হলো প্রকৃতির শক্তির উৎস যিনি কুমারী কন্যাকে বসন ভূষণ চন্দন দিয়ে পুজো করেন, তিনি আসলে প্রকৃতিকেই পূজো করেন। রামকৃষ্ণ মিশনে রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব নিজ স্ত্রী সারদা দেবীকে কুমারী জ্ঞানে পূজা করেছিলেন ১৯০১ সালে। স্বামী বিবেকানন্দ নিজেই কুমারী পূজা করেছিলেন। আগে ৯জন কুমারীর পূজা হতো। এখন অবশ্য ১ জনের করা হয়।

হিন্দু তন্ত্রশাস্ত্রে অসাধ্যকে সাধন করার জন্য কুমারী পূজো করা হয়ে থাকে। শাস্ত্রে বলা হয়, কুমারী পূজা করে জটিল থেকে জটিলতর সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। এই পূজার বিশেষ মাহাত্ম্য আছে এবং বিশেষ পূণ্যও লাভ করা যায়। দশ বছর বয়স পর্যন্ত কুমারী মেয়েকেই পূজোর জন্য নির্বাচন করা হয়ে থাকে।

এই কুমারী পূজোর নানা শাস্ত্রে নানা বিধান আছে যা সংসারী মানুষদের পক্ষে পালন করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাই ঘরে বসেই কী ভাবে নিয়মবিধি মেনে সহজ উপায়ে সুফল লাভ করা যায়।

১। কুমারী পূজোর মধ্যে প্রথম জিনিসটি হল কুমারী চয়ন করা ২। দুই থেকে দশ বছরের কন্যা চয়ন করা খুবই ভাল।৩। বিভিন্ন বয়সের কন্যা পূজায় বিভিন্ন ফল লাভ করা যায়। বয়স অনুসারে কুমারী কন্যাকে নানা নামে অভিহিত করা হয়, তার পূজায় অনেক সুফল লাভ করা যায়-
বয়স- ২ বছর

নাম- কুমারী কন্যা।
ফলাফল- দুঃখ ও দারিদ্র কাটানোর জন্য, ধন বৃদ্ধির জন্য, শত্রুনাশ, আয়ু বৃদ্ধির জন্য কুমারী কন্যার পূজো অত্যন্ত লাভজনক।
বয়স- ৩ বছর

নাম- ত্রিমূর্তি কন্যা।
ফলাফল- পুত্র সন্তান, বিদ্যা ও বুদ্ধির জন্য এবং সবরকম মনস্কামনা পূরণের জন্য ত্রিমূর্তি কন্যার পূজো করা খুবই শুভ।
বয়স- ৪ বছর

নাম- কল্যাণী কন্যা।
ফলাফল- রাজসুখ প্রাপ্তির জন্য, মন্ত্রিত্ব পাওয়ার জন্য, জটিল থেকে জটিলতর সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য এবং সর্বক্ষেত্রে বিজয়ী হওয়ার জন্য কল্যাণী কন্যার পূজো করা ফলপ্রদ।
বয়স- ৫ বছর
নাম- রোহিনী কন্যা।
ফলাফল- সমস্ত রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য, গৃহে সুখ-শান্তির জন্য রোহিনী কন্যার পূজো করা অত্যন্ত শুভ।
বয়স- ৬ বছর
নাম- মাতা কালিকা।
ফলাফল- শত্রু জয়ের জন্য, আকর্ষণ বৃদ্ধির জন্য এবং সবার প্রিয় হওয়ার জন্য মাতা কালিকার পূজো করে সুফল পাওয়া যায়।
বয়স- ৭ বছর
নাম- মাতা চণ্ডি।

ফলাফল- ধনসম্পত্তি বৃদ্ধির জন্য, ধনসম্পত্তি রক্ষার জন্য, অকাল মৃত্যু থেকে বাঁচার জন্য, মান-সম্মান ফিরে পাওয়ার জন্য, তা উত্তরোত্তর বৃদ্ধিলাভের জন্য মাতা চণ্ডিকার পূজো করা হয়। বয়স- ৮ বছর
নাম- মাতা গৌরী। ফলাফল- বিবাদ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য, যে কোনও ধরনের সিদ্ধি লাভের জন্য মাতা গৌরীর পূজো করা হয়।

বয়স- ৯ বছর
নাম- মা দুর্গা।
ফলাফল- কঠিন থেকে কঠিনতর সমস্যা সমাধানের জন্য, বিভিন্ন ধরনের ভয় থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য, শত্রু যেন আপনার সামনে মাথা উঁচু করে না দাঁড়াতে পারে তার জন্য ৯ বছরের কন্যাকে পূজো করা হয়।
বয়স- ১০ বছর
নাম- সুভদ্রা।
ফলাফল- অশুভ শক্তির হাত থেকে বাঁচার জন্য, কল্যাণকারী কাজে সর্বদা যুক্ত থাকার জন্য এবং সুখ সমৃদ্ধির জন্য সুভদ্রার পূজো করুন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ