প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যুক্তিতর্ক শেষ না করে মামলার রায়ের তারিখ ঘোষণা আদালতের প্রতি সরকারের কর্তৃত্বের বহি:প্রকাশ : রিজভী

শিহাবুল ইসলাম : যুক্তিতর্ক শেষ না করে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ের তারিখ ঘোষণা আদালতের প্রতি সরকারের কর্তৃত্বের বহি:প্রকাশ। বুধবার দুপুরে সাংবাদিকদের এ কথা বলেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ।

রিজভী বলেন, কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা সাজানো, মিথ্যা, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাষ্ট মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ না করেই সরকারের হুকুমে আরেকটি ফরমায়েসী রায়ের দিন ধার্য করেছেন নিম্ন আদালত। যেটি সম্পূর্ণরুপে বেআইনী ও নিম্ন আদালতে সরকারের কর্তৃত্ত্ব প্রতিষ্ঠার নির্লজ্জ বহি:প্রকাশ। অসুস্থ ব্যক্তির অনুপস্থিতিতে বিচার কার্য চলার বিধান পৃথিবীর দেশগুলোতে নেই। বর্তমান ভোটারবিহীন অবৈধ সরকার বেআইনী খারাপ নজীর সৃষ্টিকারী সরকার। তারা জিঘাংসার নতুন নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করছেন, এটিও তার একটি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, অসুস্থতাজনিত কারণে বেগম খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে রায় দেয়া হলে তাও হবে পৃথিবীর ইতিহাসে নজীরবিহীন ঘটনা। এই রায় হতে যাচ্ছে তুষের আগুনের মতো জ্বলতে থাকা প্রতিহিংসা পূরণের চাঞ্চল্যে।

জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালার নামে আরেকটি ভয়ঙ্কর আইন করতে যাচ্ছে সরকার অভিযোগ করে রিজভী বলেন,
গণমাধ্যমকে সম্পূর্ণরুপে নিশ্চিহ্ন করে দিতে এবং মানুষকে বোবা বানিয়ে দিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পাশের পর এবার জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালার নামে আরেকটি ভয়ঙ্কর আইন করতে যাচ্ছে সরকার। গত পরশু মন্ত্রীপরিষদের বৈঠকে এ বিষয়ে একটি খসড়া নীতিমালা অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সরকার প্রধান কালাকানুন প্রনয়ন করে দেশকে পিছিয়ে দিচ্ছে দাবি করে বিএনপির এই মুখ্যপাত্র বলেন,
ভোটারবিহীন অবৈধ প্রধানমন্ত্রী নানা কালা কানুন প্রণয়ন করে দেশকে দু’শ বছর পূর্বের যুগে নিয়ে যাচ্ছেন। যা গণতন্ত্রের শেষ ক্ষীণ আলো নিভিয়ে দিয়ে ঘন বাকশালী অন্ধকারে চূড়ান্ত উত্তরণ। তিনি মুখে ডিজিটাল বাংলাদেশের কথা বলে জনগণকে গবাদি পশুর খোয়াড়ে আটকে রাখছেন। সরকারের করা একেকটা কালো আইন দেখে মানুষ এখন ৭২-৭৫এর কথাই বলাবলি করছে। সেই বাকশালী কালো আইনই বর্তমান সরকার তৈরি করছেন নতুন আদলে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত