প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সম্প্রচার আইন হলে, নির্দ্বিধায় কেউ কথা বলতে পারবে না

আহসান কবির : সাংবাদিকরা দায়িত্বশীলভাবে তাদের  সংবাদ পরিবেশন করবেন, এতে কোন সমস্যা নেই। কিন্তু যিনি বিচার করবেন, তিনি যদি মনে করেন, যে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে, তার সাথে যারা জড়িত তাদের মর্যাদা, গোপনীয়তা বা অধিকার ক্ষুণœ করা হয়েছে , তখন তো এটি সাংবাদিকদের উপর বর্তাবে। তার মানে হচ্ছে, আপনি যতটা পারেন, কম সংবাদ পরিবেশন করেন ।

সংবাদ পরিবেশন না করাটাই যদি এই আইনটির মূল কারণ হয়, তাহলে যখন একদিন ক্ষমতায় থাকবেন না তখন কিন্তু এটি তাদের উপরই বর্তাবে। তখন তাদেরকেই এটি বহন করতে হবে।

তথ্যমন্ত্রী যদিও বলেছেন, এই আইনে আমরা কোন জায়গায় গণমাধ্যম কর্মীদের বিরুদ্ধে ভূমিকা রাখিনি। এর পরেও যদি এ আইন নিয়ে কোন আলোচনা থাকে, তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও মন্ত্রণালয় আলোচনা করে দেখবে। এখন বিষয় হচ্ছে, ডিজিটাল আইনটি কিন্তু যে কোনভাবেই হোক পাস হয়ে গেছে। এমন না যে, নতুন আরো কিছু বাকি আছে! তাহলে…?

এই আইনটি পাস হলে নির্দ্বিধায় কেউ কোন কথা বলতে পারবে না। আগে হয় তো নির্দ্বিধায় এবং শান্ত চিত্তে অনেক কিছু লিখতে পারতেন। এখন কথা বলতে গেলে প্রথমেই আপনাকে চিন্তায় ফেলে দেয়া হবে। ক্ষমতা যাদের হাতে থাকে তারা যেকোন ভাবেই এটির ব্যবহার করতে পারবে। এবং এটি সাংবাদিকদের বিপক্ষেই যাবে। মনে করেন, আপনি বাজার থেকে আলু কিনেছেন। এখন আমি লেখলাম, এ আলু আপনি আরো কম দামে কিনতে পারতেন। কে তদন্ত করতে যাবে যে, আমি আসলে সংবাদটা সত্যি পরিবেশন করছি না। বিচারক রায় দিয়ে দিলো, জাতির স্বার্থে এই দামেই আলু কেনা সঠিক ছিলো। তখন কি হবে!  আমি নিজেই এই আইনের স্বীকার হয়ে যাবো।

পরিচিতি : সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

সম্পাদনা : ফাহিম আহমাদ বিজয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ