প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এই সেই জাফরুল্লাহ!

বিভুরঞ্জন সরকার : ঘটনাটি পুরানো। ১৯৬৫ সাল। বাম ধারার ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন ছাত্র ইউনিয়ন মতাদর্শিক কারণে বিভক্ত হয়। মস্কো-পিকিং দ্বন্দ্বের ফলেই এই বিভক্তি। মস্কোপন্থি বলে পরিচিত অংশের নেতৃত্বে ছিলেন মতিয়া চৌধুরী। বর্তমানে কৃষিমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। পিকিংপন্থি গ্রুপের নেতৃত্ব দেন রাশেদ খান মেনন। বর্তমানে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী এবং ওয়াকার্স পার্টির সভাপতি। ছাত্র ইউনিয়ন পরিচিত হয় মতিয়া গ্রুপ ও মেনন গ্রুপ নামে।

একদিন ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে মতিয়া গ্রুপ ছাত্র ইউনিয়নের একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিলো কার্যকরী সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে। পঙ্কজ ভট্টাচার্য এখন ঐক্য ন্যাপের সভাপতি এবং দেশের একজন প্রবীণ রাজনীতিবিদ। ওই সমাবেশে মেনন গ্রুপ হামলা চালালে উভয় পক্ষের কয়েকজন আহত হন। ঘটনার জের ধরে থানায় পঙ্কজ ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে একটি ঘড়ি চুরির মামলা করেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী, যিনি তখন ঢাকা মেডিকেল কলেজে মেনন গ্রুপ ছাত্র ইউনিয়নের নেতা ছিলেন। মামলাটি যে মিথ্যা ও বানোয়াট ছিলো সেটা এখন বলার অপেক্ষা রাখে না। কিন্তু পঙ্কজ ভট্টাচার্যকে তখন ১৯ দিন হাজতবাস করতে হয়েছিলো।

ওই ঘটনার ২৫ বছর পর এরশাদ পতনের আগে আগে তার বিরুদ্ধে আন্দোলন চলাকালে ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর পঙ্কজ ভট্টাচার্যকে গ্রেপ্তার করা হয়; ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ আরো কিছু প্রতিষ্ঠান ভাংচুরের অভিযোগে। স্বৈরশাসক এরশাদের একজন ঘনিষ্ঠ মিত্র ছিলেন ডা. জাফরুল্লাহ।

এখন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সরকারবিরোধী জাতীয় ঐক্য গড়ার একজন কারিগর হিসেবে কাজ করছেন। সেনাবাহিনী প্রধানের বিরুদ্ধে অসত্য তথ্য দিয়ে তিনি আলোচনায় এসেছেন। একজন সহকর্মীর বিরুদ্ধে যিনি মিথ্যা মামলা করতে পারেন, তিনি কতটা ‘উল্টাপাল্টা’ মানুষ তা বোঝার জন্য আর বেশি তথ্য খোঁজার দরকার পড়ে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ