প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচন সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর তথ্য নিষিদ্ধ করল ফেসবুক

রাশিদ রিয়াজ: যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনকে সামনে রেখে ফেসবুক ভোটকেন্দ্রগুলোতে সহিংসতা কিংবা জাল ভোট সংক্রান্ত মিথ্যা তথ্যভিত্তিক জরিপ নিষিদ্ধ করেছে। নির্বাচন সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে দেয়া প্রতিরোধ করতেই ফেসবুক এধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ফেসবুকের কাছে মার্কিন সিনেটর রন ওয়াইডেন ৬ সপ্তাহ আগে জানতে চান, নির্বাচনে বিভ্রান্তকর তথ্য ছড়িয়ে ভোটারদের ভোট দেওয়া থেকে বিরত রাখতে ফেসবুক ব্যবহারের বিষয়ে কি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। রয়টার্স

বিশ্বে প্রতিদিন ফেসবুক ব্যবহার করছে দেড় বিলিয়ন মানুষ। ফলে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জরিপ ফলাফল ফেসবুকের মাধ্যমে নির্বাচনে অনেক সময় ভোটারদের মনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে এবং তারা ভোট দানে বিরত হয়। ফেসবুক কর্মকর্তারা বলছেন, মিথ্যা বা বিভ্রান্তিকর তথ্যসম্বলিত কোনো পোস্ট মুছে ফেলার চেয়ে বরং এধরনের চেষ্টা নিষিদ্ধ করাই অধিক কার্যকর। তবে ফেসবুকের প্রোডাক্ট ম্যানেজার টেসা লিয়নস মনে করেন, মিথ্যা তথ্য দিয়ে বা বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আসল তথ্য সম্পর্কে জ্ঞাত মানুুষকে খুব একটা ভুল পথে পরিচালিত বা ভুল সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করা যায় না। এমনকি মিথ্যা তথ্য ছড়িয়েও এ ক্ষেত্রে লাভ হয় না। তবে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা তাদের বন্ধুদের যেকোনো তথ্য শেয়ার করে থাকে তা ভুল হোক আর সঠিক হোক।

২০১৬ সালে মার্কিন নির্বাচনে নেতিবাচক প্রভাব সৃষ্টির জন্যে ফেসবুককে দোষারোপ করা হয়। ওই নির্বাচনে রাশিয়ার প্রভাব সৃষ্টির জন্যে মাধ্যম হিসেবে ফেসবুককে দায়ী করা হয়। এবং এক্ষেত্রে ফেসবুকের কোনো পদক্ষেপ না নেয়ার বিষয়টিও সমালোচিত হয়। এরপর বেশ কিছু পরিবর্তন আনতে শুরু করে ফেসবুক। ফেসবুকের পর রেডডিট ও টুইটার তাদের নীতিমালায় কিছু পরিবর্তন আনে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ