প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অবশেষে মুখ খুলল সৌদি আরব

সমকাল: আন্তর্জাতিক চাপের মুখে অবশেষে মুখ খুলল সৌদি আরব। নিখোঁজ সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে সৌদি ‘কিলিং স্কোয়াড’ হত্যা করেছে এমন অভিযোগ স্রেফ মিথ্যাচার বলে উড়িয়ে দিয়েছে রিয়াদ। তুরস্ক দাবি করে আসছে, ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর গত ২ অক্টোবর প্রবেশের দুই ঘণ্টার মধ্যে জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে। এমন অভিযোগ ওঠার পর একে একে ১০ দিন কেটে গেলেও নীরব ছিল সৌদি আরব। এরই মধ্যে এ ঘটনার সত্য উদ্ঘাটনে জোর আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্সসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছেন, খাসোগি নিখোঁজের নেপথ্যে যদি সৌদির হাত থাকে, তবে ভয়াবহ শাস্তির সম্মুখিন হতে হবে। গতকাল শনিবার জাতিসংঘও একই আহ্বান জানায়। অবশেষে ১১ দিনের মাথায় সৌদি আরব সরব হলো। এরই মধ্যে যৌথ তদন্তের জন্য তুরস্কে গেছে সৌদির একটি টিম। খবর বিবিসি, সিএনএন ও এএফপির।

গত শুক্রবার প্রথমবারের মতো বিষয়টি নিয়ে কথা বললেন সৌদি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স আবদুল আজিজ বিন সৌদ বিন নায়েফ বিন আবদুল আজিজ। রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সৌদি প্রেস এজেন্সিকে তিনি বলেন, আমরা এ ঘটনার প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনে আগ্রহী। তবে খাসোগি নিখোঁজের ঘটনায় কিছু গণমাধ্যমের প্রতিবেদন মিথ্যা অভিযোগ তুলেছে। এগুলো সৌদি আরবের বিরুদ্ধে স্রেফ ‘মিথ্যাচার’। তাকে খুনের নির্দেশনা-সংক্রান্ত প্রতিবেদনগুলো একেবারেই ভিত্তিহীন। এ সময় তিনি আরও বলেন, সৌদি আরব সব সময়েই আন্তর্জাতিক আইন ও রীতিনীতি মেনে চলে।

তবে তুর্কি কর্মকর্তারা অবশ্য দাবি করে আসছেন, এমন কয়েকটি অডিও-ভিডিও রেকর্ড রয়েছে তাদের হাতে, যা থেকে প্রমাণ করা সম্ভব, খাসোগিকে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরেই হত্যা করা হয়েছে। সেখানে খাসোগির সঙ্গে বিভিন্ন কর্মকর্তার যে কথাবার্তা শোনা গেছে, তা থেকে পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ অনুমান করা অসম্ভব কিছু নয়। তাদের আশঙ্কা, সৌদি আরব থেকে আসা একটি রাষ্ট্রীয় কিলিং স্কোয়াড কনস্যুলেটের ভেতরেই তাকে খুন করে এবং লাশ টুকরো টুকরো করে ফেলে। এরই মধ্যে তুর্কি নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের এ পর্যবেক্ষণ দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ানকে অবহিত করা হয়েছে। তবে তুরস্কের এমন দাবি অবশেষে প্রত্যাখ্যান করলেও জামাল খাসোগির ব্যাপারে এখনও কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি রিয়াদ।

এদিকে গভীর উদ্বেগ জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এই বার্তা দেওয়া জরুরি যে, এমন কিছু ঘটতে পারে না। তবে সেদিনের ঘটনার প্রকৃত সত্য খুঁজে বের করাটা জরুরি। এর আগেই জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থাও এ ঘটনার সত্য প্রকাশে জোর দাবি জানিয়ে আসছে। এ ঘটনায় পূর্বনির্ধারিত সৌদি সফর বাতিল করেছেন বিশ্বব্যাংক প্রধান। গত শুক্রবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাক্রোন বলেন, সৌদি সরকারের সমালোচক সাংবাদিক জামাল খাশোগির নিখোঁজ হওয়া বিপজ্জনক ঘটনা। এ ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটনে ফ্রান্স সম্ভব সবকিছু করতে চায়। ফরাসি প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, বিষয়টি পরিস্কার হলে ফ্রান্স একটি অবস্থান নেবে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘আমি বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন। এ সম্পর্কে বেশ কিছু বাজে গল্প আছে। আমি এগুলো পছন্দ করি না।’ সৌদি কর্তৃপক্ষকে হুঁশিয়ারি দিয়ে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট বলেছেন, ‘বন্ধুত্ব সমান মূল্যবোধের ওপর নির্ভর করে।’

খাসোগি নিখোঁজ-রহস্য যৌথভাবে তদন্তে সৌদি আরবের একটি প্রতিনিধি দল এরই মধ্যে তুরস্ক পৌঁছেছে। ওই দলের সঙ্গে সৌদি রাজপরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্য প্রিন্স খালিদ আল-ফয়সালও আছেন বলে জানা গেছে। গত বৃহস্পতিবার দলটি তুরস্ক পৌঁছায়।

সৌদি আরব থেকে নির্বাসিত সাংবাদিক ও কলামিস্ট খাসোগি ২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেট ভবনে প্রবেশের পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। এক সময় রাজপরিবারের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করা জামাল খাসোগি গত বছর সৌদি যুবরাজ দেশব্যাপী ভিন্নমতাবলম্বীদের ধরপাকড় শুরুর পর দেশ ছাড়তে বাধ্য হন। গত মার্চে তিনি বলেছিলেন, সৌদি সরকারের নীতিকে প্রশ্ন করলেই নাগরিকদের আটক করে কারাবন্দি করা হচ্ছে। সৌদি অভিজাত পরিবারে জন্ম নেওয়া এই সাংবাদিক গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাসনে যান। সেখান থেকে তিনি দ্য ওয়াশিংটন পোস্টে কলাম লিখতেন। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্বের জন্যও আবেদন করেছিলেন এই সাংবাদিক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ