প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দূর্গোৎসব উপলক্ষ্যে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা
টেকনাফে পাঁচটি মন্দিরে শারদীয় দুর্গাপূজা

ফরহাদ আমিন : কক্সবাজারের টেকনাফে হিন্দু সম্প্রদায়ের দূর্গোৎসবকে ঘিরে পাঁচটি পূজামণ্ডপে চলছে শেষ প্রস্ততি। এ লক্ষ্যে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। তবে পূজায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনও ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করেছেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ইতিমধ্যে টেকনাফ কেন্দ্রীয় বিষ্ণু মন্দির, ডেইল পাড়া দূর্গা মন্দির, হ্নীলা পুরান বাজার কালী মন্দির, নাঠমুরা পাড়া হরি মন্দির, বাহারছড়া শামলাপুর বিষ্ণু মন্দিরের পূজা মন্ডপে দুর্গা দেবী, লক্ষ্মী, সরস্বতী, গণেশ ও কার্তিকের প্রতিমা নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। মন্ডপ সমূহে প্রতিমা স্থাপন, আলোক সজ্জাসহ আনুষাঙ্গিক কার্যক্রম চলছে।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা ১৫ সেপ্টেম্বর সোমবার সন্ধায় ষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে, সপ্তমী, মহাষ্টমী ও কুমারী পূজা, মহানবমী, ২০ সেপ্টেম্বর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে।

এ উপলক্ষে ইউএনকে আহবায়ক করে উপজেলা মনিটরিং ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে মন্দির সুরক্ষা কমিটি গঠন করা হয়। দূর্গোৎসবে মন্দির এলাকায় কড়া নজরদারী বৃদ্ধিসহ সব প্রস্ততি সম্পন্ন করেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন ।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সভাপতি শিব পদ ভট্রাচার্য বলেন, সোমবার থেকে টেকনাফে পাঁচটি মন্ডপে পুজা উদযাপিত হবে। পূজার সময় রাস্তাঘাটে ইভটেজিং, প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিমা বির্সজনে বিশৃংখলা রোধে প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। তবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে পূজায় খরচও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানায়। এতে সরকারের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন তিনি।

টেকনাফ ডেইলপাড়া দূর্গা মন্দির সভাপতি সনজিত কুমার শীল জানান, পূজার মণ্ডপের সব প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে। তবে মন্দিরটি একটু ভিতরে হওয়ায় প্রতিমা দর্শনে সন্ধার পর পুজারীদের চলাচলে ইভটিজিং এর শিকার হতে হয়। তাছাড়া বির্সজনের সময় সাগর পাড়ে বিশৃংখলা সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে প্রশাসনের কড়া নজরদারী প্রয়োজন রয়েছে। তবে প্রতিমা বির্সজনের সময় সাগর পাড়ে প্রশাসনের কড়া নজরদারী আশা করছেন তিনি।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া বলেন, দূর্গোৎসব উপলক্ষে পাঁচটি পূজা মন্ডপ এলাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। পূজা মন্ডপ সমূহের আশপাশ এলাকা ও রাস্তাঘাটে নাশকতা ঠেকাতে সব প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। এবারে পূজা মন্ডপ সমূহে সার্বক্ষণিক পুলিশ ও আনসারসহ মোবাইল টিমও নিয়োজিত থাকবেন।

তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কয়েক স্থরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোড়দার থাকবে বলে জানা যায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ