প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘দুর্নীতিবাজ খালেদা-তারেককে মুক্ত করা প্রকল্প হাতে নিয়েছে ড. কামাল’

জান্নাতুল ফেরদৌসী: যুদ্ধাপরাধী জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে মুক্ত করা প্রকল্প হাতে নিয়েছে ড. কামাল হোসেন।

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের সমালোচনা করে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘এটা জোট নয়, এটা ঘোঁট। ঘোঁট পাকানোর মধ্য দিয়ে দেশে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি করতে চাইছেন তাঁরা।’ ইনু বলেন, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস-যুদ্ধাপরাধী এবং স্বীকৃত দুর্নীতিবাজকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের গণতন্ত্র উদ্ধারের ঘোষণা জাতির সঙ্গে ঠাট্টা-মশকরা।

আজ রোববার সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে এই ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়।

গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গতকাল শনিবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। গতকাল সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। এই ফ্রন্টের ঘোষণায় নির্বাচনের আগে সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দিয়ে সর্বদলীয় গ্রহণযোগ্য সরকার গঠন এবং খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দীর মুক্তি দাবি করা হয়। এ সময় বিএনপি, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্যের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তবে সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বা তাঁর দল বিকল্পধারার কোনো নেতাকে দেখা যায়নি। সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে ৭ দফা দাবি ও ১১টি লক্ষ্য ঘোষণা করা হয়।

তথ্যমন্ত্রী ইনু বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফা ও ১১ লক্ষ্যের আড়ালে জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও দুর্নীতিবাজকে রাজনীতিতে ফিরিয়ে আনার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। এটা অস্বাভাবিক সরকার আনার প্রস্তাব।

গতকাল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঘোষিত সাত দফার প্রথম দফাতেই সরকারের পদত্যাগ, জাতীয় সংসদ বাতিল, আলোচনা করে নিরপেক্ষ সরকার গঠন এবং খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দীর মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি করা হয়।

ইনু বলেন, বাংলাদেশে কোনো রাজবন্দী নেই। যারা আছেন, তাঁরা সবাই অপরাধী। খালেদা জিয়া দুর্নীতিবাজ, সাজাপ্রাপ্ত অপরাধী। তারেক রহমান খুনি, দুর্নীতিবাজ ও সাজাপ্রাপ্ত আসামি। এই জোটটা হচ্ছে এসব চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ ও সন্ত্রাসীকে মুক্ত করার প্রকল্প।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ