প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফের নির্বাচিত হলে মিরপুরকে গুলশান বানাব: এমপি আসলামুল

যুগান্তর: ঢাকা-১৪ আসনের এমপি মো. আসলামুল হক বলেছেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে জনগণের ভোটে আবার এমপি হলে মিরপুরকে গুলশান বানাব। এমপি থাকি বা না থাকি জনগণের সেবা ও মিরপুরের উন্নয়ন করতে চাই।

শনিবার গোলারটেক মাঠে (শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ সংলগ্ন) নাগরিক সংবর্ধনা গ্রহণকালে তিনি এসব কথা বলেন। নাগরিক ও পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের পক্ষ থেকে তাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

নাগরিক ও পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি মো. হোসেন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান বদিউর রহমান ও বিশেষ অতিথি সাবেক বিচারপতি সিদ্দিকুর রহমান।

উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের (উওর) সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আমানত আলী, রূপনগর বাড়ি মালিক সমিতির সভাপতি তহিদুল হাসান, সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার মজিদুল হক বেপু।

এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এজিএম সাইফুল ইসলাম, সাবেক কমিশনার দেওয়ান মো. শাজাহান, শাহ আলী থানার আওয়ামী লীগের সভাপতি আগাখান মিন্টু, মুজিব সারোয়ার মাসুম, মিরপুর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি এসএম হানিফ, মডেল একাডেমির প্রধান শিক্ষক বাবু শুভাশীষ বিশ্বাস, দারুসসালাম থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ফরিদুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আসলামুল হক বলেন, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। ১৯৯৭ সালে এই ১০ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। গোলারটেক মাঠে বস্তি গড়ে উঠলে শিশুরা খেলার মাঠ থেকে বঞ্চিত হবে। মাদক, সন্ত্রাস, ছিনতাই ও পরিবেশ দূষণমুক্ত করতে আমরা দুই ঘণ্টার মধ্যে বস্তি উচ্ছেদ করেছিলাম। আমার এলাকার মুরব্বিরা আদর করে, স্নেহ করে। আমি এমপি থাকি আর নাই থাকি সারাজীবন আপনাদের পাশে থাকতে চাই। এই সংবর্ধনার কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সৈনিক ও শেখ হাসিনার সৈনিক হিসেবে সারাজীবন ঢাকা-১৪ আসনের জনগণের কাছে ঋণী হয়ে থাকলাম। ১৪ আসনের মানুষকে দু’হাত ভরে দোয়া করব, সাহায্য করব।

আসলামুল হক বলেন, আমি যখন এই আসনের এমপি নির্বাচিত হয়ে শপথ নিই তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘এমপি হয়েছ জনগণের জন্য কাজ করো। আমি তোমাকে সহযোগিতা করব।’ আমার নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই এলাকা উন্নয়নের জন্য ৩ হাজার ৩শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন। যা দিয়ে আমি এই এলাকায় উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দিয়েছি।

তিনি বলেন, আমি সব সময় এই এলাকা নিয়ে চিন্তা করি। আবার আপনাদের ভোটে নির্বাচিত হলে এই আসনকে গুলশানে পরিণত করব। এখানকার প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে কনভেনশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করব। আধুনিক শহর হিসেবে গড়ে তুলব। স্কুল, মসজিদ, মাদ্রাসা আধুনিকায়ন করব। ৬০ বছর যাদের বয়স তারা আগামী নভেম্বর মাসে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে তথ্য দেবেন। আমি সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য স্মার্টকার্ডের ব্যবস্থা করব। আমি আপনাদের দোয়া চাই। আপনাদের শক্তি চাই। আপনাদের ভোটে ঢাকা-১৪ আসনের এমপি নির্বাচিত হতে চাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ