প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি ও প্রার্থীর এজেন্টকে প্রশিক্ষণ দেবে ইসি

সাইদ রিপন: আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নতুন একটি উদ্যোগ নিয়েছে করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এবার নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি ও প্রার্থীদের নির্বাচনী এজেন্টকে প্রশিক্ষণ দিবে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের (ইটিআই) মহাপরিচালক মোস্তফা ফারুক বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আমরা আমাদের যাবতীয় প্রশিক্ষণ কার্যক্রম কিভাবে দেব সেটি নির্ধারণ করেছি। বিভিন্ন পর্যায়ে আমরা ১২টি প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করবো। এবার ইসি সিদ্ধান্ত নিয়েছে পোলিং এজেন্টদেরকে প্রশিক্ষণ দেবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা নিবন্ধিত প্রতিটি রাজনৈতিক দলের কাছে সাত জনের নাম চাইব। সাতজন করে প্রতিনিধি পাঠালে তাদেরকে আমরা এমনভাবে প্রশিক্ষণ দেব যাতে পরে উনারা মাঠপর্যায়ে গিয়ে নিজস্ব দলের পোলিং এজেন্টদের প্রশিক্ষণ দিতে পারেন। এই প্রশিক্ষণ তফসিল ঘোষণার আগেই অক্টোবরের মধ্যেই কেন্দ্রিয়ভাবে দেয়া হবে। একইভাবে তফসিল ঘোষণার পর আমরা মাঠপর্যায়েও প্রতি প্রার্থীর সাতজন করে প্রায় আট হাজার পোলিং এজেন্টকে প্রশিক্ষণ দেব। তারা প্রশিক্ষণ নিয়ে মাঠপর্যায়ে অন্যান্য পোলিং এজেন্টদেরকে প্রশিক্ষণ দেবে।

তিনি আরো বলেন, তফসিল ঘোষণার পর আমরা রিটার্নিং কর্মকর্তা, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও প্রশিক্ষণ দেব। এর বাইরেও সারাদেশের প্রায় আট লাখ নির্বাচনী কর্মকর্তাকে অর্থাৎ প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার হিসেবে যারা দায়িত্ব পালন করবেন তাদেরকে প্রশিক্ষণ দেব। নির্বাচনের ৫ থেকে ১০ দিন আগে এই প্রশিক্ষণগুলো সম্পন্ন করা হবে।

কি কি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে বা হচ্ছে? জানতে চাইলে ইটিআইয়ের ডিজি বলেন, এটি নির্ভর করবে আমরা কাকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। যেমন, আমরা যখন রিটার্নিং কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণ দেব, তখন মূলত রিটার্নিং কর্মকর্তার করণীয় কি, উনার সম্পৃক্ততা কি, রিটার্নিং কর্মকর্তার সঙ্গে কোন কোন আইন সম্পৃক্ত এটার উপর আমরা প্রশিক্ষণ দেব।

পোলিং এজেন্টকে প্রশিক্ষণ দেয়ার সময় ওনার কতটুকু এখতিয়ার আছে, কি বিষয়টি দেখবেন, আইনগত অধিকার কতটুকু, কি করতে পারবেন, কি করতে পারবেন না এসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইলেকট্ররাল ইনকুয়েরি কমিটিতে কাজ করবেন। তাকে আচরণবিধির বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিতে হবে, দন্ড কোনটা কোনভাবে আছে সেই বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিতে হবে। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মূলত আচরণবিধিটি দেখবেন। যে যেই অংশে কাজ করবেন অর্থাৎ একেক সেক্টরকে আমরা একেকভাবে প্রশিক্ষণ দেব। তবে নির্বাচন কমিশনের নিজস্ব ৬০০ কর্মকর্তাকে সকল সাচিবিক দায়িত্ব সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

তিনি বলেন, এর বাইরে আমরা ইভিএমের প্রশিক্ষণ শুরু করেছি। ইতোমধ্যে ১২টি ব্যাচে ৩০০ এর বেশি নিজস্ব কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। ২৪ ব্যাচে আমাদের এ প্রশিক্ষণ কর্যক্রম শেষ হবে। একসঙ্গে যারা মাঠপর্যায়ে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেবেন তাদেরকেও আমরা প্রশিক্ষণ দেয়া শুরু করেছি। এ পর্যায়ে আমাদের নিজস্ব ৬০০ কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম যেভাবেই হোক তফসিল ঘোষণার আগেই অক্টোবর মাসের মধ্যেই আমরা শেষ করবো। এছাড়া আমাদের মাঠপর্যায়ের ১৫০ কর্মকর্তাকে আমরা ইভিএমের উপর প্রশিক্ষণ দিয়েছি।

জাতীয় সংসদে ইভিএম ব্যবহারের কতটুকু প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দেখুন এখন পর্যন্ত জাতীয় সংসদে ইভিএম ব্যবহারের আইনগত কোনো ভিত্তি নেই। নির্বাচন কমিশন একটি আইন সংশোধন করে আইন প্রণয়নকারীদের কাছে পাঠিয়েছে। এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি জাতীয় সংসদে ইভিএম ব্যবহার হবে কি না। তবে প্রশ্ন আসতে পারে কেন প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন? সেক্ষেত্রে বলবো আমাদের স্থানীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের আইনগত ভিত্তি রয়েছে এবং স্থানীয় নির্বাচনে এর ব্যবহার ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। এছাড়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পরপরই সারা বাংলাদেশের সকল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় চলে আসবে। আমরা সাধারণত স্থানীয় নির্বাচনের জন্যই প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ