প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গুজব, অপপ্রচার রোধ করবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

আনিস আলমগীর : ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অনুসন্ধানি সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে বড় ধরনের কোনো বাধা তৈরি করবে বলে আমি মনে করি না। সাংবাদিকতা তার আপন গতিতেই চলবে। তবে আশঙ্কার যায়গা হচ্ছে, এই আইনে পুলিশকে যে অবাধ ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে তার অপব্যবহার হতে পারে। কেননা যেকোনো একটি ধারায় ফেলে পুলিশ যেকোনো ব্যক্তিকে হয়রানি করতে পারে। সেটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ অন্য যেকোনো ক্ষেত্রে ব্যবহার করে হয়রানি করার সুযোগ রয়েছে। সেই অস্ত্রটা পুলিসের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। যেমনটা আমরা ৫৭ ধারার বেলায় দেখেছিলাম। ৫৭ ধারা যখন জারি হয় তখন বলা হয়েছিল, এর কোনো অপব্যবহার হবে না। কিন্তু তার যথেষ্ট অপব্যবহার হয়েছিল। যদি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বেলায়ও তেমনটা দেখা যায় তখন সাংবাদিকরাই সেটা প্রতিহত করতে পারবে। তবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অনুসন্ধানি সাংবাদিকতায় বড় রকমের প্রতিবন্ধকতা তৈরি হবে বা মূলধারার গণমাধ্যম বাধাগ্রস্থ হবে তেমনটা মনে হচ্ছে না।

সাংবাদিকতায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি নয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার বা মিথ্যা সংবাদ বন্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে। সেকারণে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন আমি ইতিবাচকভাবে দেখছি। কেননা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে পরিমাণ মিথ্যা সংবাদ, গুজব এবং অপপ্রচার চালানো হচ্ছে এটা মূলধারার সংবাদমাধ্যমের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। মিথ্যা সংবাদ, সত্য সংবাদকে ক্ষতিগ্রস্থ করছে। তাই আমি মনে করি এই মিথ্যা সংবাদ বন্ধে এমন ধরনের আইন করা দরকার ছিল। যে আইন গুজব, মিথ্যা সংবাদ এবং অপপ্রচার বন্ধ করে সত্য তুলে ধরবে। তবে আমরা যেমন আইন চেয়েছিলাম, এটা তার চেয়ে আরো বেশি কঠিন করে করা হয়েছে। কিন্তু এটা আমি বিশ^াস করছিনা যে, এই আইন অনুসন্ধানি সাংবাদিকতায় প্রভাব বিস্তার করবে। কেননা প্রকৃত অনুসন্ধানি সাংবাদিকতা করা হয়, সেটা রুখে দেওয়ার ক্ষমতা করোই নেই। কারণ দুর্নীতিবাজরা কখনোই সাংবাদিকদের সাথে বা আসল সাংবাদিকতার সাথে পেরে উঠবে না।  পরিচিতি : সাংবাদিক ও কলামিস্ট/মতামত গ্রহণ : লিয়ন মীর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ