প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রথম রোহিঙ্গা পরিবারের মিয়ানমার প্রত্যাবর্তন

আসিফুজ্জামান পৃথিল : প্রথমবারের মতো কোন রোহিঙ্গা পরিবার ফিরেছে নিজ দেশ মিয়ানমারে। এ দাবি করেছে দেশটির দৈনিক পত্রিকা গ্লোবাল নিউ লাইট অফ মিয়ানমার। সংবাদপত্রটি সহ বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে এ সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেছে এএফপি।

গত বছরের ২৫ আগস্ট শুরু হওয়া মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংস অভিযানের পর প্রায় ৭ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নেয় বাংলাদেশে। রাখাইন রাজ্যে এই শরণার্থীরা বড় রকমের হত্যা, ধর্ষণ সহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। তাদের গ্রামগুলি পুড়িয়ে মাটিতে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে। জাতিসংঘের ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটি এ ঘটনাকে গণহত্যার স্বীকৃতি দিয়েছে। বিশ্বসংস্থাটি মিয়ামার সেনাবাহিনীর জেষ্ঠ্য কর্মকর্তাদের গণহত্যার জন্য আইসিসি’র মাধ্যমে বিচারের সুপারিশ করেছে। তবে দেশটি এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

বাংলাদেশ ও মিয়ানমার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য একটি চুক্তি করেছে। কিন্তু অধিকাংশ রোহিঙ্গা শরণার্থী এখনও মিয়ানমারকে কোনভাবেই নিরাপদ মনে করছে না। তারা বলছেন, নাগরিকত্বের অধিকার ছাড়া দেশটিতে ফেরা সম্ভব না। এছাড়াও তারা স্বাস্থ্য অধিকার এবং অবাধ চলাচলের স্বাধীনতা চান। মিয়ানমারের কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে গত এক মাসে প্রায় ১০০ বাস্তুচুত্য রোহিঙ্গা স্বভূমে ফিরেছে। তবে মানবাধিকার সংগঠনগুলো এ দাবীর সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।

মিয়ানমারের সরকারি মুখপত্র গ্লোবাল নিউ লাইট অব মিয়ানমার বলেছে, বুধবার মিয়ানমারে পৌঁছেছে এই ৫ সদস্যের পরিবারটি। মিয়ানমার প্রতিটি প্রত্যাবর্তন সদম্ভে ঘোষণা করলেও বাংলাদেশ বলছে এ প্রত্যাবর্তনে কোন নিয়ম মানা হয়নি। বাংলাদেশ সরকারের রোহিঙ্গা শিবির কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম জানিয়েছেন, তিনি শুনেছেন রোহিঙ্গা পরিবারটি চলে যাচ্ছে। তবে তিনি মিয়ানমার থেকে তাদের ফেরার কোন আনুষ্ঠানিক সংবাদ পাননি। তিনি বলেন, ‘যে কেউ চাইলেই ফেরত যেতে পারে। কিন্তু আনুষ্ঠানিক প্রত্যাবাসন এখনও শুরু হয়নি।’ কক্সবাজারের বালুখালি শিবিরের রোহিঙ্গা নেতা আব্দুর রহিম জানিয়েছেন, এই পরিবারটি বালুখালি শিবিরেই থাকতো। তিনি বলেন, ‘বুধবার তারা রাখাইনের মংডু শহরে নিজেদের বাড়িতে পৌঁছেছেন।’ চ্যানেলনিউজ এশিয়া, এএফপি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ