প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উখিয়া বিদ্যুৎ সংযোগের নামে চাঁদাবাজি

কক্সবাজার প্রতিনিধি : কক্সবাজারের উখিয়া জালিয়া পালং ছেপটখালী, মাদারবনিয়ায় পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে মোটা অংকের টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে।

এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি মৌলভী ইউনুছ ও তার চাঁদাবাজ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে। ৩শ ৪৬ টি পরিবারের কাছ থেকে ২ হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার কথা বলে জালিয়া পালং ছেপট খালী, মাদারবনিয়ার বাসিন্দাদের কাছ থেকে স্থানীয় প্রভাবশালী মৌলভী ইউনুছ’র নেতৃত্বে একদল ভদ্রবেশী চাঁদাবাজ পল্লীবিদ্যুৎ এর প্রতিটি লাইনের জন্য ২ হাজার টাকা চাঁদা তোলে। আবার আরও ১ হাজার চাঁদা দাবি করেন অন্যথায় বিদ্যুৎ পাবে না বলে হুমকি দেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সরকার দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে বিনামুল্য বিদ্যুৎ দিচ্ছে। তার ধারাবাহিকতায় কক্সবাজারের উখিয়া জালিয়াপালং, ছেপটখালী, মাদার বনিয়ায় পল্লি বিদ্যুৎ’র লাইন সংযোগের জন্য খুঁটি দেওয়া হচ্ছে। তা দেখে এলাকার একদল ভদ্রবেশী চাঁদাবাজ গ্রামের সহজ সরল লোকজনদেরকে ভুল বুঝিয়ে বিদ্যুৎ পেতে হলে ২ হাজার টাকা এবং পরে আরও ১ হাজার টাকা দিতে হবে বলে ঘরে ঘরে গিয়ে প্রতিটি ঘর থেকে ২ হাজার টাকা করে ৩শ ৪৬ ঘর থেকে টাকা নেয়।

গ্রামে যখন বিদ্যুৎ লাইন টানার জন্য খুঁটি বসানোর কাজ চলছে, তখন কিছু সচেতন মানুষ জানতে পারে এটি সরকার বিনা মুল্য দিচ্ছে। ঠিক তখনই এলাকায় চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। লোকজন মৌলভী ইউনুছ ও তার চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট থেকে টাকা ফেরত চাইলে বিদ্যুৎ সংযোগ, টাকা ফেরত না দেওয়ার হুমকি দেয়। চাঁদাবাজ সিন্ডিকেটের মধ্যে মৃত ছিদ্দিক আহমদের পুত্র মৌলভী ইউনুছ,এখলাছের পুত্র মোস্তাক আহমদ, মৃত এজাহার মিয়ার পুত্র মৌলভী কাশেম, হাশেমের পুত্র মুসলিম, আব্দু জলিলের পুত্র আব্দুল্লাহ।

এ বিষয়ে উখিয়া পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী জসীম উদ্দীন বলেন, টাকা উত্তোলনের বিষয়ে জানে না। টাকা উত্তোলনের কোন নিয়ম নেই বলে সাফ জানিয়ে দেন তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত