প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সবচেয়ে বেশি দূষণ ছড়াচ্ছে কোক-পেপসি-নেসলে

বাংলাদেশ জার্নাল : সবচেয়ে বেশি পরিবেশ দূষিত করছে কোক-পেপসি-নেসলে। ২০১৬ সালে “ব্রেক ফ্রি ফ্রোম প্লাস্টিকস” বিশ্বের বিভিন্ন সমুদ্র উপকূল থেকে প্লাস্টিক জাতীয় দ্রব্য উদ্ধারের উদ্যোগ নেয়। এখনও পর্যন্ত তারা পৃথিবীর ৪২টি দেশের উপকূল প্লাস্টিকমুক্ত করেছে।

কিন্তু প্লাস্টিক জাতীয় দ্রব্য সবচেয়ে বেশি উঠে এসেছে পানীয় পণ্য কোকা-কোলা, পেপসি, নেসলে’র মোড়ক। পাশাপাশি রয়েছে ডানোন, মণ্ডেলেজ, প্রোক্টের এন্ড গ্যাম্বেল, ইউনিলিভারের মতো কোম্পানির নামও।

“ব্রেক ফ্রি ফ্রোম প্লাস্টিকস” ১৮৭,০০০ টিরও বেশি প্লাস্টিকের টুকরো উদ্ধার করেছে। যার মধ্যে ৬৫% প্লাস্টিক কোকাকোলা, পেপসি এবং নেসলের।

সংগঠনের বিশ্ব সমন্বয়কারী ভন হারনান্দেজ জানিয়েছেন, বিশ্বের এই দূষণের জন্য কোম্পানিগুলির অবদান তারা নিজেরাও অস্বীকার করতে পারবেন না।

প্লাস্টিকমুক্ত করার ৯ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর ১০ হাজার ভলেন্টিয়ার ২৩৯টি উদ্যোগ নিয়েছিলেন। এছাড়া পরিবেশ রক্ষার্থে ৪২টি দেশের সমুদ্র উপকূল প্লাস্টিকমুক্ত করা হয়েছে।

ভন হারনান্দেজ জানিয়েছেন, কোম্পানিগুলিকে একটি বিষয় বেছে নিতে হবে। তারা সমস্যার অংশ হতে চান নাকি সমাধানের অংশ হতে চান? যদি তারা এই পদ্ধতিই চালিয়ে যান, এবং প্যাকেজিং-এর জন্য অতিরিক্ত প্লাস্টিক ব্যবহার করতে চান তারা শুধুমাত্র দূষণকে আরও উৎসাহ দেবেন।

প্রায় ১ লক্ষের কাছাকাছি প্লাস্টিক যা তৈরি হয়েছে পলিস্টেরিন, পিভিসি, পিইটি জাতীয় রাসায়নিক দিয়ে। যা একেবারেই জীবাণুবিয়োজ্য নয়।

শত সতর্কতা সত্ত্বেও প্লাস্টিক ব্যবহারে রাশ টানা যায়নি। বরং প্রতি বছর বেড়ে চলেছে এর ব্যবহার। যা গ্রীনহাউস গ্যাসের পরিমাণ বৃদ্ধি করে চলেছে প্রতিনিয়ত। এবং এই প্লাস্টিকগুলি বেশিরভাগই জীবানুবিয়োজ্য নয়।

এখনও পর্যন্ত এই বিপুল পরিমাণ প্লাস্টিকের মাত্র ৯ শতাংশকে পুনরায় ব্যবহারযোগ্য করে তোলা গেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ