প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খাশোগি হত্যায় জড়িত সৌদি গুপ্তঘাতকদের পরিচয় প্রকাশ হবে : তুরস্ক

নূর মাজিদ : ভিন্নমতালম্বি সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যায় জড়িত সৌদি গুপ্তঘাতকদের পরিচয় তদন্ত আলোর মুখ দেখছে এবং অচিরেই তাদের পরিচয় প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে তুরস্ক। ২ অক্টোবর স¤পাদক জামাল খাশোগি তার সাবেক স্ত্রীকে দেয়া তালাকনামা নিয়ে ইস্তাম্বুলে অবস্থিত সৌদি কনস্যুলেটে যান। এরপর থেকেই তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তুর্কি কর্তৃপক্ষের দাবি, ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরেই সৌদি আরব থেকে আসা একটি বিশেষ গুপ্তঘাতক দলের সাহায্যে হত্যার পর লাশ গুম করা হয়েছে। এই বিষয়ে সৌদি আরবের দাবি, জামাল খাশোগি দূতাবাস থেকে স্বশরীরে প্রস্থান করেছেন, তবে তুরস্ক এই দাবি স¤পূর্ণ বানোয়াট বলে দাবি করেছে। এই বিষয়ে মুখ খুলেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান। গত বুধবার হাঙ্গেরি সফর শেষে দেশে ফিরেই এই বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এরদোগান। সৌদি বক্তব্যের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি।

এরদোগান বলেন, সৌদি আরবের কনস্যুলেটে বিশ্বমানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে, সেখানে আছে উন্নত প্রযুক্তির ক্যামেরা। অথচ একজন ব্যক্তি স্বশরীরে সেই স্থান ত্যাগ করলেন এমন কোনো ফুটেজ তাদের কাছে নেই। সৌদি কনস্যুলেটে যদি একটি পাখিও প্রবেশ করে, তবে সেটাও পর্যবেক্ষণ করার প্রযুক্তিগত সক্ষমতা তাদের রয়েছে। এই বিষয়ে সৌদি শাসকগোষ্ঠীকে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে বলে তিনি দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এই বিষয়ে দেশটির সকল গোয়েন্দা সংস্থা জোর তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে বলেই জানান এরদোগান।

এদিকে খাশোগি নিখোঁজের ঘটনায় নিজের প্রভাব খাটাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন জামাল খাশোগির বাগদত্তা তুর্কি নারী হাতিজ চেঙ্গিজ। গত বুধবার ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকায় লেখা এক বিশেষ কলামে তিনি এই আবেদন করেন। একই দিনে তার আবেদনে সাড়া দিয়ে সৌদি আরবের প্রতি খাশোগি নিখোঁজের বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের নিখোঁজ হয়ে যাওয়া অত্যন্ত দুঃখজনক। এই বিষয়ে সৌদি আরবকে অবশ্যই সন্তোষজনক জবাব দিতে হবে। মার্কিন প্রশাসন গভীর দৃষ্টিতে সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। আমরা এই ঘটনার শেষ পর্যন্ত দেখব। এসময় তিনি, সমবেদনা জানিয়ে খাশোগির বাগদত্তা হাতিজ চেঙ্গিজকে হোয়াইট হাউজে তার সঙ্গে সাক্ষাতের আমন্ত্রণ জানাবেন বলেও উল্লেখ করেন।

ট্রাম্পের এমন ঘোষণার পর সৌদি আরবের বিরুদ্ধে আরও কঠোর অবস্থান নেওয়ার আহবান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্টাকি অঙ্গরাজ্যের প্রভাবশালী রিপাবলিকান র‌্যান্ড পল। এসময় তিনি, খাশোগির নিরাপদে ফিরে আসার আগ পর্যন্ত সৌদি আরবকে দেয়া সকল মার্কিন সামরিক সহায়তা স্থগিত রাখার আহবান জানান। মার্কিন দৈনিক আটলান্টিককে তিনি বলেন, সৌদি আরবকে দেয়া সকল সামরিক প্রশিক্ষণ, পরামর্শ এবং সহযোগিতা বন্ধ করতে হবে। যতক্ষণ তারা খাশোগির নিরাপদে ফিরে আসা নিশ্চিত না করে ততক্ষণ পর্যন্ত এই ব্যবস্থা কার্যকর রাখতে হবে। এসময় তিনি আরও বলেন, সৌদি সরকারকে জবাবদিহিতার মুখোমুখি করতে হবে। এই নিয়ে মার্কিন প্রশাসনের পক্ষ থেকে তীব্র চাপের মুখে রয়েছে সৌদি আরব, গতকাল ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে একথা জানানো হয়।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট তাদের বুধবারের এক প্রতিবেদনে জানায়, খাশোগিকে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স বিন সালমানের সরাসরি নির্দেশেই হত্যা করা হয়েছে। অন্যদিকে তুর্কি কর্তৃপক্ষ জানায়, সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর থেকেই একজন কর্মকর্তা তাদের তদন্তে সহযোগিতা করতে সম্মত হয়েছেন। তবে নিরাপত্তার স্বার্থে তার নাম-পরিচয় আপাতত গোপন রাখা হচ্ছে। ওই কর্মকর্তা ঘটনার দিন সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর ধস্তাধস্তি এবং সাহায্য চেয়ে কাউকে চিৎকার করতে শুনেছেন। এর কিছুক্ষণ পরেই ওই আওয়াজ আসা বন্ধ হয়ে যায় বলেই তিনি তুর্কি কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন। আল জাজিরা

সর্বাধিক পঠিত