প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এমন কীর্তিমান পরিবারের সন্তান জেলে কেন থাকবে : পিনাকী ভট্টাচার্য

ফেসবুক : নিজ দলের খুনি আর দুর্বৃত্তদের এভাবেই একাধিক হত্যা মামলার রায় থেকে পাওয়া ফাঁসির দণ্ডও মওকুফ করে দেয়া হচ্ছে। লক্ষ্মীপুরের আওয়ামী লীগ নেতা তাহের তার এই সুপুত্রকে দিয়ে কি ভয়ানক সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিলো তার খবর হয়তো আজকের প্রজন্মের অনেকেরই জানা নেই।

​​লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র আবু তাহেরের তিন ছেলেই একাধিক খুনের মামলার আসামি, এমনকি তাহের ও তাঁর স্ত্রীও খুনের মামলার আসামি ছিলেন।

বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে (১৯৯৬-২০০০) তাহের-পরিবারের সদস্যদের নানা অপরাধের কারণে লক্ষ্মীপুর সন্ত্রাসের জনপদে পরিণত হয়। ওই সময় বিএনপির নেতা আইনজীবী নুরুল ইসলামকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করা হয়।

নুরুল ইসলাম হত্যা মামলায় তাহেরের ছেলে এ এইচ এম বিপ্লবের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আদালত। কিন্তু তাহেরের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি তাঁর মৃত্যুদণ্ডাদেশ মওকুফ করেন। নুরুল ইসলাম হত্যা মামলা ছাড়াও বিপ্লব আরও চারটি হত্যা মামলার আসামি। এর মধ্যে দুটিতে তাঁর যাবজ্জীবন সাজা হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর থানা সূত্রে জানা গেছে, নুরুল ইসলাম হত্যা ছাড়াও বিপ্লবের বিরুদ্ধে চারটি হত্যা মামলা হলো: বিএনপির কর্মী কামাল হোসেন, পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক ফিরোজ আলম, শিবিরকর্মী মহসিন ও জাহের হোসেন হত্যা মামলা। এই পাঁচটি হত্যা মামলায় তাহেরের পালিত ছেলে আবদুল জব্বার লাভলু ওরফে লাবুও আসামি।

তাহেরের আরেক ছেলে এ কে এম সালাউদ্দিন ওরফে টিপু নুরুল ইসলাম, ফিরোজ আলম ও কামাল হোসেন হত্যা মামলার আসামি ছিলেন।

এমন কীর্তিমান পরিবারের সন্তান জেলে কেন থাকবে?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ