প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তনুশ্রী ‘ড্রামা কুইন’, নাকি নির্যাতিতা!

প্রথম আলো: চেহারায় নায়িকাসুলভ সেই চটক আর নেই। শরীরের ওজনও বেড়েছে। গ্ল্যামার জগতে এই গ্ল্যামারহীন নায়িকা তনুশ্রী দত্তের আর জায়গা নেই । এই মুহূর্তে বিটাউনে সবচেয়ে চর্চিত নাম ‘তনুশ্রী দত্ত’। বলিউডে রীতিমতো দাবানল ছড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

১০ বছর আগের ক্ষত নিয়ে তনুশ্রীর ফিরে আসার পেছনে অনেকে নানা জল্পনা-কল্পনা শুরু করেছেন। নতুন কোনো ছবিতে সাইন করতে চলেছেন তিনি। আর কে ছবিতে নেবেন স্থূলকায়, গ্ল্যামারহীন এই তনুশ্রীকে। তবে কি ‘বিগ বস’ হাউসে পা রাখতে চলেছেন এই বলিউড সুন্দরী? তাই এত ড্রামা। তনুশ্রী গলা ফাটিয়ে চিৎকার করে বারবার একটা কথাই বলছেন, ‘আমি বিচার চাই।’ আবারও কি তাঁর গলা দাবিয়ে রাখবেন বলিউডের প্রভাবশালী কিছু মানুষ? ঠিক ১০ বছর আগে যেমনটা করেছিলেন তাঁরা। এবারও কি বিচারের বাণী নীরবে-নিভৃতে কাঁদবে।

হলিউডে শুরু হওয়া ‘#মিটু’ প্রচারণায় অনেক নায়িকাই যোগ দিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁরা রীতিমতো নগ্ন করেছেন বেশ কিছু হলিউড পরিচালক ও নির্মাতাকে। এই তালিকায় হার্বি ওয়াইনস্টাইন এবং কেবিন স্পেসির মতো বরেণ্য মানুষের নামও আছে। হলিউড তাঁদের রীতিমতো বয়কট করেছে। এই সাহস বলিউডে আজ অবধি দেখা যায়নি। আর কেউ আওয়াজ তুলতে গেলে তাঁর মুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। মেয়েটির চরিত্রের দিকে আঙুল উঠেছে সবার আগে। আর নয়তো বলা হয়েছে প্রচারের আলোয় আসার জন্য এই ড্রামা। তনুশ্রীর ক্ষেত্রেও তা-ই হয়েছে। যাঁরা আজ ‘#আইবিলিভতনুশ্রী’ প্রচারণার কথা বলছেন, তাঁরা কি সত্যি সত্যি তনুশ্রীকে পুরোপুরি বিশ্বাস করতে পেরেছেন? তাঁরা কি পারবেন নানা পাটেকারের মতো মানুষদের বিরুদ্ধে শক্তভাবে দাঁড়াতে? তাই তনুশ্রী জোর গলায় বলেছেন, এই মায়ানগরীতে কোনো ‘#মিটু’ পদক্ষেপ সম্ভব নয়। তাহলে এক শ্রেণির বিকৃত মানুষের লালসার শিকার হতে হবে বিটাউনের এই নায়িকাদের? প্রতিনিয়ত তাঁদের শারীরিক, মানসিকভাবে ধর্ষণ হতে হবে। অনেকের বক্তব্য, নারীদের সব ক্ষেত্রেই যৌন হেনস্তার শিকার হতে হয়। এমনকি নিজের বাসায়ও মেয়েরা নিরাপদ নয়। বলিউড সমাজের বাইরে নয়। তাই এখানেও ঘটতে পারে এ ধরনের ঘটনা। সমাজের এটা চিরন্তন রীতি বলেই চুপচাপ মেনে নিতে হবে এই নির্যাতনকারীদের? আর এই বলিউড ইন্ডাস্ট্রিকে আমরা সব থেকে সভ্য বলে দাবি করি। এখানেই বসবাস করেন আমাদের স্বপ্নের নায়কেরা, যাঁদের ছবি বুকে আঁকড়ে ধরে তাঁদের মতো হওয়ার বাসনা কুরে কুরে খায় আমাদের। এ কী অসভ্যতা আমাদের এই সভ্য সমাজের বুকে?

ফিরে দেখা

তনুশ্রী দত্তকে মানুষ প্রায় ভুলতেই বসেছিল। সাবেক এই ভারত সুন্দরীকে বলিউডের মাত্র কয়েকটি ছবিতে দেখা যায়। ১০ বছর আগে হঠাৎ বিটাউন থেকে উধাও হয়ে যান তনুশ্রী। জানা গিয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্রে বিয়ে থা করে সুখে সংসার করছেন তিনি। ১০ বছর পর আবার ফিরলেন তনুশ্রী। আর এসেই তিনি উগরে দিলেন ১০ বছর আগে তাঁর সঙ্গে হওয়া যৌন শোষণের কথা। আজও সেই ক্ষত বহন করে চলেছেন তনুশ্রী। তাঁর এই অভিযোগ বলিউডের বরেণ্য অভিনেতা নানা পাটেকারের বিরুদ্ধে। নানার পাশাপাশি কোরিওগ্রাফার গণেশ আচার্য, পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রীর নামও উঠে এসেছে। ১০ বছর আগে তনুশ্রীর সঙ্গে কী ঘটেছিল? ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবির সেটে ঘটনাটা ঘটেছিল। এই ছবির সেটে নানা পাটেকার তনুশ্রীকে এতটাই শারীরিক এবং মানসিকভাবে উৎপীড়ন করেন যে, তিনি তাঁর ক্যারিয়ার ছাড়তে বিন্দুমাত্র ভাবেননি। এমনকি দেশ ছেড়ে চলে যান সাবেক এই ভারত সুন্দরী। তবে এই ঘটনা সেটের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল না। তনুশ্রী তখনো আওয়াজ উঠিয়েছিলেন। কিন্তু তখন তাঁর পাশে কেউ দাঁড়াননি। তনুশ্রী সিনে অ্যান্ড টেলিভিশন আর্টিস্টস অ্যাসোসিয়েশনের (সিনটা) কাছে গিয়ে নানার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান। কিন্তু নানা পাটেকারের মতো অভিনেতার বিরুদ্ধে কেউ একটি কথা শুনতে রাজি ছিলেন না। তনুশ্রীর মুখ বন্ধ রাখতে গুন্ডা দিয়ে হুমকি দেওয়া হয়। এমনকি তাঁর গাড়ি এবং বাড়িতে হামলা পর্যন্ত করা হয়। এই বলিউড অভিনেত্রীর পাশে সেদিন পুলিশও দাঁড়ায়নি। একরাশ লজ্জা, ক্ষোভ, অভিমান বুকে জমা করে দেশ ছেড়েছিলেন তনুশ্রী। আজ যা আগ্নেয়গিরির মতো ফেটে পড়েছে। যার লাভায় জ্বলে পুড়ে খাক হচ্ছেন নানার মতো কিছু মানুষ। আর একের পর এক মানুষের মুখোশ খসে পড়ছে এই লাভার উত্তাপে।

এই সময়
১০ বছর পর দেশে ফিরলেন তনুশ্রী। তবে আজ তিনি অন্য তনুশ্রী। এই তনুশ্রী অনেক বেশি সাহসী, অনেক পরিণত। দেশে ফিরে আবার তিনি আওয়াজ তুললেন ১০ বছর আগে তাঁর সঙ্গে ঘটে যাওয়া অন্যায়ের বিরুদ্ধে। তবে এবার তিনি একা নন। তনুশ্রীর আওয়াজকে আরও জোরদার করতে তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন একজন প্রতিষ্ঠিত মহিলা সাংবাদিক এবং একজন সহকারী পরিচালক। ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবির সহকারী পরিচালক শাইনি শেঠি এই ঘটনার সময় সেটে ছিলেন। তিনি দেখেছেন তনুশ্রী কীভাবে অপদস্থ হয়েছেন। কিন্তু সেদিন প্রতিবাদ করতে পারেননি শাইনি। কারণ এই ছবিটা ছিল তাঁর ক্যারিয়ারের প্রথম ছবি। তবে আজ তিনি তনুশ্রীর পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। মহিলা সাংবাদিকও সেদিনের ঘটনার কিছু অংশ নিজের চোখে দেখেছিলেন। তনুশ্রীকে সেদিন রীতিমতো বিধ্বস্ত লেগেছিল বলে তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানিয়েছেন। তবে অনেকে রীতিমতো কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন তনুশ্রীকে। কিছু মানুষের বক্তব্য, এত দিন কেন চুপ করে বসেছিলেন তনুশ্রী। কারও মতে, বলিউডে আবার পা রাখার জন্য তনুশ্রী প্রচারের আলোয় আসতে চান। আবার অনেকে বাজি ধরে ফেলেছিলেন যে এই বলিউড সুন্দরী নির্ঘাত ‘বিগ বস’ হাউসে আসতে চলেছেন। তাই এই সবকিছু তাঁর নাটক।

তনুশ্রীর পক্ষে-বিপক্ষে
আজ বলিউডের একাংশ তনুশ্রীর সঙ্গে ঘটে যাওয়া যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছে। বলিউডের একাধিক নায়ক-নায়িকা আজ তনুশ্রীর পক্ষে দাঁড়িয়েছেন। এমনকি তাঁরাও তাঁদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া অন্যায়ের কথা শেয়ার করেছেন। রাধিকা আপ্তে, কঙ্গনা রনৌত, দীপিকা পাড়ুকোন, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, স্বরা ভাস্কর, পরিণীতি চোপড়া, বিদ্যা বালান, কাজল, নেহা ধুপিয়া, রণবীর সিং, শাহরুখ খান, বরুণ ধাওয়ান, টুইংকেল খান্না, অর্জুন কাপুর, বিবেক ওবেরয়সহ আরও বলিউড তারকা আজ তনুশ্রীকে সমর্থন করছেন। কঙ্গনা নিজের সঙ্গে ঘটে যাওয়া অন্যায়ের কথাও বলেছেন। ‘কুইন’ ছবি খ্যাত চিত্রপরিচালক বিকাশ বহেলের এক কুকীর্তি ফাঁস করেন কঙ্গনা। যদিও এর আগে বিকাশের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির ঘটনা কানাঘুষা শোনা গিয়েছিল। কিন্তু কঙ্গনা সম্প্রতি সরাসরি আক্রমণ করেছেন বিকাশকে। এদিকে হৃতিক রোশনের ‘সুপার থার্টি’ ছবির পরিচালক তিনি। এই ঘটনার পর হৃতিকও স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল উঠবে, তাঁদের সঙ্গে কোনোভাবেই নেই তিনি। অভিনেত্রী চিত্রাঙ্গদা সিংও আওয়াজ তুলেছিলেন ‘বাবুমশায় বন্দুকবাজ’ ছবির সেটে। এই ছবিতে একটা অন্তরঙ্গ দৃশ্য করা নিয়ে তাঁর আপত্তি ছিল। তাই তিনি ছবি থেকে বেরিয়ে আসেন। বলিউড অভিনেত্রী জেরীন খানকে ‘অক্ষর টু’ ছবিতে অকারণে ছোটখাটো পোশাক পরিয়ে সাহসী দৃশ্যে অভিনয় করানো হয়। ছবির পরিচালক তথা নির্মাতাদের বিরুদ্ধে তিনি এই অভিযোগ আনেন। রাখী সাওয়ন্ত আবার তনুশ্রীর বিপক্ষে দাঁড়িয়েছেন। তাঁর মতে, তনুশ্রী ‘বিগ বস’ হাউসে যাওয়ার পথ তৈরি করছেন। বলিউডের বরেণ্য অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন এই বিতর্ক সুন্দরভাবে এড়িয়ে গেছেন। তিনি এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘আমি নানা নই, আমি তনুশ্রী নই।’ বিগ বির এই বক্তব্যের তীব্র নিন্দা করেছেন তনুশ্রী। ফারহা খান তাঁর সঙ্গে নানার ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করে বুঝিয়ে দিয়েছেন, তিনি বলিউডের এই দাপুটে অভিনেতার সঙ্গে আছেন। আমির খান, সালমান খান কেউ এই বিতর্কে নিজের নাম জড়াতে চাননি। অক্ষয় কুমারও চুপ থেকেছেন। বলিউডের বরেণ্যা অভিনেত্রী ডিম্পল কাপাডিয়া এ প্রসঙ্গে বলেন, নানার মতো অভিনেতার এই কালো দিকগুলো না দেখাই ভালো। অনেক বলিউড অভিনেতার বক্তব্য, ‘আমরা এক পক্ষ শুনে কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারি না। নানা পাটেকারের পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত আমরা কিছু শুনিনি। তাই নানাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো ঠিক নয়।’ এদিকে মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা নামের রাজনৈতিক দল শুরু থেকেই তনুশ্রীকে আক্রমণ করে চলেছে। তনুশ্রীর অভিযোগ, ১০ বছর আগে এই রাজনৈতিক দলের প্রধান রাজ থাকরের নির্দেশে তাঁর বাড়ি এবং গাড়ির ওপর হামলা করা হয়। এবার মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনার লোকজন লোনাভলায় ‘বিগ বস ১২’ স্টুডিওতে হানা দেয়। তাঁরা স্টুডিও কর্তৃপক্ষকে হুমকি দিয়ে চিঠি লেখেন, তনুশ্রী কোনোভাবেই যেন ‘বিগ বস’ হাউসে না ঢোকেন। এই রাজনৈতিক সংগঠনের কাছে নাকি খবর ছিল, কালারস চ্যানেল তনুশ্রীকে এই জনপ্রিয় শো-এ পাওয়ার তোরজোড় করছে। তাদের সেই আশায় পুরোপুরি জল ঢেলে দেন এই সংগঠনের অনুগামীরা।

নানার কথা
এখনো নানা পাটেকার তাঁর বিরুদ্ধে আনা এই অভিযোগের বিরুদ্ধে সেভাবে কিছু বলেননি। তাঁর বক্তব্য, এই ঘটনার জন্য অত্যন্ত দামি, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তিনি শুধু একটা কথা বলছেন, ‘এ ব্যাপারে আমি ১০ বছর আগেই কথা বলেছি। যেটা মিথ্যে, সেটা মিথ্যেই।’ নানা উল্টো তনুশ্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন, তনুশ্রী তাঁকে স্পর্শ করেছেন। তিনি তনুশ্রীকে কোনোভাবেই স্পর্শই করেননি। গতকাল সোমবার মুম্বাইয়ের সেলিব্রেশন ক্লাবে নানা পাটেকারের সংবাদ সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পরে তা বাতিল করা হয়। দুপুরে কিছু সাংবাদিক নানার বাসায় গিয়ে তাঁকে অনুরোধ করেন এই বিষয়ে কিছু বলার জন্য। নানা হাত জোড় করে উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘নতুন করে আমার কিছু বলার নেই। দশ বছর আগেই আমি বলেছি। মিথ্যা মিথ্যাই থাকবে।’ গত সপ্তাহে নানা পাটেকার এবং বিবেক অগ্নিহোত্রীর আইনজীবীরা তনুশ্রীকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন। তার জবাবে এই বলিউড সুন্দরী মুম্বাইয়ের ওশিওয়ারা পুলিশ স্টেশনে নানার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ, ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবির সেটে নানা তাঁকে যৌন হেনস্তা করেছেন।

‘#মিটু’ আন্দোলন
তনুশ্রী রীতিমতো হতাশ। তাঁর মতে, বলিউডে ‘#মিটু’ আন্দোলন সফল হওয়া মুশকিল। কিন্তু এবার মনে হচ্ছে একটু একটু করে এই আন্দোলনের ঢেউ এই মায়ানগরীর বুকে আছড়ে পড়ছে। এবার বলিউড তথা টেলিভিশন দুনিয়ার প্রবীণ অভিনেতা অলোক নাথের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনলেন বিনতা নন্দা। তিনি ছোট পর্দার চিত্র নাট্যকার, পরিচালক তথা প্রযোজক। অলোক নাথ তাঁর বাসায় বিনতাকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ। ঘটনার ১৯ বছর পর কেন তিনি মুখ খুললেন? এ ব্যাপারে বিনতার বক্তব্য, তিনি সঠিক সময়ের অপেক্ষায় ছিলেন। সম্প্রতি লেখক চেতন ভগতের বিরুদ্ধেও যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনেছেন এক নারী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই নারী চেতনের হোয়াটস আপ চ্যাট শেয়ার করেন। তবে এই ঘটনার জন্য চেতন নিজের ভুল স্বীকার করে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়েছেন। বলিউড অভিনেত্রী প্রীতি জিন্টা চেতনের এই সাহসিকতার প্রশংসা করে বলেছেন, ‘মানুষ মাত্র ভুল হতে পারে। তবে এই ভুলকে প্রকাশ্যে স্বীকার করে নেওয়া সবচেয়ে বড় কথা।’ তনুশ্রীর এই প্রতিবাদ বিনতার মতো অনেককেই হয়তো ধীরে ধীরে সাহসী করে তুলবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ