প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ভবিষ্যতে সব কিছুরই তদন্ত হবে: ফখরুল

ডেস্ক রিপোর্ট : প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী যারা এখন বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের হয়রানি করছেন, বিএনপি ক্ষমতায় গেলে তাদের জবাবদিহি নেওয়া হবে বলে সতর্ক করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

প্রতিহিংসার রাজনীতি না করার অঙ্গীকার করলেও এখন যারা লুটপাট করছেন, ভবিষ্যতে তাদেরও রেহাই দেওয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে নিরপেক্ষ সরকার গঠন এবং দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে রোববার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করে বিএনপি।

সমাবেশে দলটির মহাসচিব ফখরুল ৭ দফা দাবি তুলে ধরে তা আদায়ে আন্দোলনের কথা বলেন। সেই সঙ্গে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে কী কী করবে, ১২টি লক্ষ্যের কথাও জানান।

বিরোধী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা দায়েরের একটি পরিংখ্যান তুলে ধরে ফখরুল বলেন, “শুধু ১ সেপ্টেম্বর থেকে আজ পর্যন্ত ৪ হাজার ৯৪টি মামলা দেওয়া হয়েছে, গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪ হাজার ৩১৯ জনকে এবং আসামি করা হয়েছে ২ লক্ষ ৭২ হাজার ৭৩০ জনকে। এই যে গায়েবি মামলা, যার কোনো অস্তিত্ব নাই। পুরোপুরি ভৌতিক মামলা।

“জনগণকে আজকে তারা (সরকার) তাদের প্রতিপক্ষ বানিয়ে নির্যাতন-নিপীড়নের মধ্যে গ্রেপ্তার-হামলা-গুম করছে। আমাদের অনেক সহকর্মী গুম হয়ে গেছে, অনেক সহকর্মীকে খুন করা হয়েছে।”

পুলিশ কর্মকর্তাদের দিকে ইঙ্গিত করে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ফখরুল বলেন, “একবারও চিন্তা করছেন না, আমাদের সরকার ও পুলিশ কর্মকর্তাগণ, এই সব মামলা যে দিচ্ছেন, ভবিষ্যতে কী হবে?

“যখন তদন্ত হবে, যখন দেখা যাবে এই মামলাগুলোর কোনো ভিত্তি নাই, তখন সকলকেই জবাবদিহি করতে হবে, তখন সকলকেই কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।”

ক্ষমতাসীনদের হুঁশিয়ার করে তিনি বলেন, “কয়লাকে ধুলা বানিয়ে দিয়েছে, সোনাকে তামা বানিয়েছে, ব্যাংক থেকে টাকা লুট করে নিয়ে গেছে। তারপরও আশ মেটে না। ৫ বছর ১০ বছর করল, তারপরও আরও করতে চায়।

“এই সরকার কোথাও রেহাই পাবে না। যে হারে চুরি করেছে, লুট করেছে, বাংলাদেশকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাতে কারও কোনো রেহাই নাই।”

খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারেক রহমানের মামলা প্রত্যাহার এবং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে রোববার ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির জনসভার একাংশ। ছবি: মাহমুদ জামান অভি খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারেক রহমানের মামলা প্রত্যাহার এবং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে রোববার ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির জনসভার একাংশ। ছবি: মাহমুদ জামান অভি
বিএনপি ষড়যন্ত্রের জন্য দায়ী করে ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের বক্তব্যের পাল্টায় এক সময়ের বাম আন্দোলনের কর্মী ফখরুল কমিউনিস্ট ইশতেহারের শব্দবন্ধ তুলে বলেন, “আওয়ামী লীগ ভয় পেয়েছে, মারাত্মক ভয় পেয়েছে।

“বিএনপির ভুত দেখছে। এরা রাত্রি বেলা দুঃস্বপ্ন দেখে ‘বিএনপি-বিএনপি’ বলে চিৎকার করে উঠে। এরা স্বপ্ন দেখে ‘বেগম খালেদা জিয়া-খালেদা জিয়া, তারেক রহমান-তারেক রহমান’ বলে চিৎকার করে উঠে।”

কোটা সংস্কারের সঠিক বাস্তবায়ন ও নিরাপদ সড়কের আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করে তাদের সবাইকে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানান ফখরুল।

জাতীয় ঐক্যের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “কারাগারে যাওয়ার আগে দেশনেত্রী যে ঐক্যের কথা বলে গেছেন আজকে সারাদেশে সকল মানুষ ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে, সারাদেশে গণতান্ত্রিক শক্তি ও নাগরিক শক্তিগুলো ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। দেশনেত্রী যে জাতীয় ঐক্যের কথা বলে গেছেন, আজকে আমাদের সেই জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।” সূত্র : বিডি নিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত