প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্যানিটারি টয়লেট স্থাপনে পিকেএসএফ এর ১৬৮ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ

আহমেদ ইসমাম : গ্রামে স্বাস্থসম্মত স্যানিটারি টয়লেট স্থাপন করার জন্য পল্লী কর্মী-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) মাধ্যমে ১৬৮.২০ কোটি টাকা স্যানিটেশন উন্নয়ন ঋণ বিতরন করা হয়েছে।এর বাইরেও ১,০৩১ জন স্থানীদের মাঝে ১১.১৯ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়।

রোববার নিজস্ব অডিটরিয়ামে ওবাআ আউট (আউটপুট বেস্ট এইড) স্যনিটেসন মাইক্রফিনেস প্রোগ্রাম শীর্ষক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন বিষয়ক সমাপনী অনুষ্ঠানে এ তথ্য দেন পিকেএসএফ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল করিম।

পিকেএসএফ নিজস্ব অর্থায়ন ও বিশ্বব্যাংকের কারিগরী সহায়তায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছে যা বিগত ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে আরম্ভ হয়ে ৩০ জুন ২০১৮ সালে নির্ধারিত সময়েই সমাপ্ত হয়েছে।

পিকেএসএফ-এর সভাপতি ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন দেশের গ্রামীণ অঞ্চলে অনেক পরিবার রয়েছে যাদের স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়নে হাতে পর্যাপ্ত নগদ অর্থ নেই, কিন্তু তাদের স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট স্থাপনের খরচ একাধিক অংশে ভাগ করে পরিশোধের সুযোগ দিলে তারা নিজেদের জন্য একটি উন্নত টয়লেট স্থাপনে সমর্থ্য হবে। এ প্রকল্পের আওতায় পিকেএসএফ ‘স্যানিটেশন উন্নয়ন ঋণ’ চালু করেছে যার আওতায় শুধুমাত্র টয়লেট নির্মাণ করা বা মলত্যাগের প্রকোষ্ট তৈরী করাটাই উদ্দেশ্য নয় বরং স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট তৈরি ও ব্যবহারের মাধ্যমে মানুষের আচরণ ও মূল্যবোধে পরিবর্তন করা উদ্দেশ্য বলে তিনি উল্লেখ্য করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব কাজী শফিকুল আযম বলেন পিকেএসএফ-এর কাজের গুনগতমান ভাল হওয়ায় বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী পিকেএসএফ-এর সাথে কাজ করতে এখন অনেক বেশি আগ্রহী। পিকেএসএফ যদি ভালমানের প্রজেক্ট বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেয় তবে ইআরডি সেখানে অর্থায়নের ব্যবস্থা করবে এবং ইআরডি-র অব্যাহত সমর্থন বজায় রাখবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে খোলা জায়গায় মলত্যাগের মাত্রা ১৯৯০ সালে ছিল ৩৪ শতাংশ, ২০১৫ সালে তার মাত্রা ১ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৪০ শতাংশ লোক স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট ব্যবহার করে। অবশিষ্ট ৬০ শতাংশ লোক এখনও অস্বাস্থ্যকর পিট ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। এ বিশাল জনগোষ্ঠীর বিদ্যমান পীট টয়লেটকে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেটে পরিবর্তনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় কৌশল নির্ধারনের লক্ষ্যে পিকেএসএফ ও বিশ্বব্যাংক যৌথভাবে এ পরীক্ষামূলক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছে।

উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ, সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব কাজী শফিকুল আযম, সিনিয়র সচিব, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ, অর্থ মন্ত্রণালয়। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব সঞ্জয় শ্রীবাস্থব, প্রোগ্রাম লিডার (বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপাল), বিশ্বব্যাংক, পিকেএসএফ-এর উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব মোঃ ফজলুল কাদের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত