প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

অবৈধ আমদানিকৃত ইয়ামাহা মোটরসাইকেল রেজিষ্ট্রেশনে আদালতের নিষেধাজ্ঞা

ডেস্ক রিপোর্ট : অবৈধভাবে দেশে ইয়ামাহা ব্রান্ডের মোটরসাইকেল আমদানিকারক ও বিক্রেতাদেরকে রেজিষ্ট্রেশনে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেছে আদালত। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটিকে (বি আরটিএ) এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে দেশে ইয়ামাহা ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল আমদানি ও বাজারজাতের একমাত্র বৈধ প্রতিষ্ঠান (সোল ডিস্ট্রিবিউটর) এসিআই মটরস লিমিটেড। ফলে এখন থেকে অবৈধভাবে আমদানিকৃত ইয়ামাহা মটরসাইকেল বিপনন ও রেজিষ্ট্রেশন করাতে পারবে না।

আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, এতদ্বারা মূল মোকাদ্দমা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ৭ নং বিবাদিকে (বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি) অবৈধ/অননুমোদিত ডিলার/এজেন্ট/বিক্রেতার নিকট হতে ক্রয় করা ইয়ামাহা মটর সাইকেলের রেজিষ্ট্রেশন প্রদান করা হতে বিরত করিয়া অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আদেশ প্রদান করা হইলো।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, নিবন্ধন ছাড়া কোন মোটরসাইকেল রাস্তায় চলানোটা বেআইনি। এসিআই মটরস দেশের একমাত্র বৈধ আমদানিকারক হলেও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান অবৈধভাবে এ ব্রান্ডের মটরসাইকেল আমদানি করছে। এর মধ্যে পুশ ইন্টারন্যাশনাল, নিউ সোনারগাঁ মোটরস, আরএন এন্টারপ্রাইজ, পোলারিস টেক লিমিটেড, পাওয়ারপ্যাক ইন্টারন্যাশনাল ছাড়াও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে। অবৈধভাবে আমদানি ছাড়াও কিছু ক্ষেত্রে খুচরা যন্ত্রাংশ পরিবর্তন ও সংযোজন করে প্রতারিত করছে ভোক্তাদের। আবার চোরাই পথে টানা মটর সাইকেল এনে বৈধ হিসেবে বিক্রয় করে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে।

এ বিষয়ে বি আরটিএ এর এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে বিআরটিএ সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে আছে। অবৈধ আমদানিকৃত ইয়ামাহা মটরসাইকেলের রেজিষ্ট্রেশন প্রদানে আদালতের নিষেধাজ্ঞা দেবার বিষয়ে কাগজপত্র পেলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অবৈধ মোটরসাইকেল দিয়ে অপরাধমূলক কার্যক্রম হলে চিহ্নিত করতে অসুবিধায় পড়তে হয় পুলিশকে। বৈধ আমদানিকারকরা সঠিক মূল্য প্রদর্শন করে দেড়শ শতাংশের বেশি শুল্ক প্রদান করে। কিন্তু অবৈধ আমদানিকারকরা কম মূল্য দেখিয়ে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ভোক্তাদের প্রতারিত করে। প্রচলিত মডেল না হবার কারনে সঠিক যন্ত্রাংশও পাওয়া যায় না। আবার প্রচলিত মডেল না হবার কারনে অবৈধ মটরসাইকেলগুলো বাজারে বেশি দামে বিক্রি করা হয়। এতে প্রতারিত হচ্ছেন ভোক্তারা। তাই ভোক্তা ও দেশের স্বার্থ মোটরসাইকেল আমদানি প্রক্রিয়া ও রেজিষ্ট্রেশন প্রক্রিয়াতে কর্তৃপক্ষকে কার্যকর ভূমিকা নেবার পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

এ বিষয়ে এসিআই মটরস লিমিটেডের মহাব্যবস্থাপন মো. খাইরুল আহসান বলেন, আদালত আমাদের কাগজপত্র যাচাই বাছাই করে এ রায় দিয়েছে। এ রায়ের মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব বাড়ানোর পাশাপাশি ভোক্তা প্রতারিত রোধ করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি সকল অবৈধ আমদানিকারকদের নিকট থেকে ইয়ামাহা ব্রান্ডের মটরসাইকলে ক্রয় করে প্রতারিত না হবার জন্য সকলকে সতর্ক থাকার অনুরোধ করছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত