প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

রাজধানীতে মাটির নিচে নির্মাণ হবে আধুনিক ট্রাফিক বক্স

শাকিল আহমেদ : রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে মাটির নিচে আধুনিক ইন্টারনেট সংযোগ ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থাসহ ৬২টি ট্রাফিক পুলিশ বক্স নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এবিষয়ে সম্ভাব্যতা যাচাই বাছাই চলছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশ (ডিএসসিসি) সূত্রে এতথ্য জানা গেছে।

ডিএসসিসি সূত্র জানায়, গত ২৭ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিবের সভাপতিত্বে ‘ঢাকা মহানগরীসহ দেশের ট্রাফিক ব্যবস্থার সার্বিক উন্নয়ন ও নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতকরণ’-এ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতাধীন বিভিন্ন ইন্টারসেকশনে অবস্থিত ট্রাফিক পুলিশ বক্সগুলো মাটির নিচে স্থাপনের সম্ভাব্যতা বিষয়ে আলোচনা হয়। ওই বৈঠকে মাটির নিচে পুলিশ বক্স স্থাপনের জন্য সিটি করপোরেশনকে অনুরোধ করা হয়।পরে সিটি করপোরেশনের অনুরোধে ডিএমপি ডিএসসিসির ৬২টি স্থানের চাহিদাপত্র পাঠায়। গত ১৯ সেপ্টেম্বর ডিএমপি ট্রাফিকের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মীর রেজাউল আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মো. বিলাল বরাবর ওই তালিকা পাঠানো হয়।

ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মো. বিলাল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মাটির নিচে পুলিশ বক্স নির্মাণের বিষয়ে একটি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সে অনুযায়ী পুলিশের পক্ষ থেকে ৬২টি স্থানের তালিকা পাঠানো হয়েছে। আমরা কন্সালটেন্ট দ্বারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছি কোথায় কি করা যায়। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা থাকলেও এ কাজে একমাস সময় লাগতে পারে। কারণ এধরনের পরিকল্পনা আমাদের দেশে প্রথম। এতে পুলিশের বিশ্রাম, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থাসহ নানাবিধ সুযোগ সুবিধা থাকবে। তাছাড়া মাটির নিচে পুলিশ বক্স স্থানান্তরের বিভিন্ন চ্যালেঞ্জও রয়েছে। কেননা পুলিশের পক্ষ থেকে যে তালিকা দেওয়া হয়েছে সেসব স্থানে মাটির নিচে বিভিন্ন সেবা সংস্থার ইউটিলিটি সার্ভিস রয়েছে।

এদিকে প্রায় ৪ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে ডিএসসিসির ৪টি ইন্টারসেকশন উন্নয়নসহ ৭১টি স্বচ্ছ পুলিশ বক্সের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ১৮টি পুলিশ বক্সের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। এরমধ্যে ৫টির উদ্বোধন করা হয়েছে। এ অবস্থায় মাটির নিচে পুলিশ বক্স স্থাপন করতে গেলে নবনির্মিত পুলিশ বক্সগুলো ভাঙতে হবে। এবিষয়ে খান মো. বিলাল বলেন, মাটির নিচে পুলিশ বক্স নির্মান করতে প্রায় তিন থেকে চার বছর সময় লাগবে এতদিন তারা কিভাবে কাজ করবে। তাছাড়া যেখানে পুলিশ বক্স নেই সেখানে এগুলো স্থানান্তর করা হবে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল আলম বলেন, মাটির নিচে ট্রাফিক বক্স নির্মান হলে পুলিশের পয়ঃনিষ্কাশন ও বিশ্রামসহ আধুনিক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি পাবে। একইসাথে বক্সে পুলিশের ধারন ক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। কারণ বর্তমান বক্স গুলোতে বিশেষ প্রয়োজনে পুলিশের দাড়ানোরও জায়গা থাকেনা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত