প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে গণতন্ত্রের ‘গ’ পর্যন্ত নাই: বি. চৌধুরী

শিহাবুল ইসলাম: বিকল্পধারা বাংলাদেশ এর প্রেসিডেন্ট ও যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী (বি. চৌধুরী) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ‘আপনার মধ্যে গনতন্ত্রের ‘গ’ পর্যন্ত নাই। গনতন্ত্র আপনার মাথায়ও নাই, হৃদয়েও নাই। যা দেশের প্রতি নিষ্ঠুরতা, কোটি কোটি মানুষের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করা।

রাজধানীর কুরিলে অবস্থিত বিকল্পধারা বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শুক্রবার বিকেলে বর্তমান রাজনীতি ও ভারসাম্যের রাজনীতি ও যোগদান শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বি. চৌধুরী বলেন, রাষ্ট্রকে গণতন্ত্রও দিতে হবে উন্নয়নও দিতে হবে। উন্নয়ন আর গণতন্ত্রের মধ্যে বিরোধ নাই, এ দুটো হাতে হাত রেখে চলবে। না হলে জীবন বির্তৃশনা হয়ে মানুষ মরে যাবে। মানুষদের যে কথা বলার অনুভূতি বুকের মধ্যে চাপা পড়ে আছে, তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করতে পারে না, বুঝাতে পারে না কি কষ্টে আমরা আছি। এই যাতনা কতদিন মানুষ ভোগ করবে?

বর্তমান সরকার প্রধান শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, কেনো আপনি কথা বলতে দিবেন না? রাষ্ট্রের যারা অধিপতি আছে এ প্রশ্ন তো আমি করবোই। আমরা কি মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করি নাই? আমরা কি লক্ষ লক্ষ মানুষের শাহাদাৎ এর বিনিময়ে পতাকা অর্জন করি নাই? আমাদের লক্ষ লক্ষ মা-বোনদের অশ্রুতে এই মাটি সিক্ত হয় নাই? তাদের প্রতি আমাদের কি দায়িত্ব নাই? দুঃখ, ক্ষোভ আমাদের বুকের মধ্যে জমে আছে। কথা বলতে দিবেন না? হোয়াট ইজ দিস নন্সেন্স?

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, আপনাদের লোক যেখানে-সেখানে মিটিং করতে পারবে, আমাদের করতে পার্মিশন নিতে হবে! ইচ্ছে হলে দিবেন না ইচ্ছে হলে দিবেন না! প্রায়ইতো দেখি বিরোধী দল কিছু করতে চাইলে করতে দেন না। এটা আমার দেশ আমি আমার মানুষের সাথে কথা বলবো, সে অনুমতি দিবেন না মানে কি? গণতন্ত্রে বড়াই করেন? কিসের গণতন্ত্র? আপনার মধ্যে গণতন্ত্রের ‘গ’ পর্যন্ত নাই। গনতন্ত্রের গ অক্ষরটাও আপনার ভিতরে নাই। গণতন্ত্র আপনার মাথায়ও নাই, হৃদয়েও নাই। এটা দেশের প্রতি নিষ্ঠুরতা। কোটি কোটি মানুষের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করা।

সংসদ নির্বাচন সম্পর্কে বলেন, কোনো ভদ্র দেশে নিয়ন্ত্রিত নির্বাচন হতে পারে না। নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করে সরকার নিয়ন্ত্রিত নির্বাচন করতে চায়। এবার তা করতে দেওয়া হবে না। আমাদের দাবি সংসদ ভেঙে দিতে হবে, বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে তাহলেই নির্বাচন সুষ্ঠু হবে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, দলটির মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান, যুগ্ম মহাসচিব মাহি বি. চৌধুরী সহ দলের বেশ কিছু নেতাকর্মী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ