প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সু চির নাগরিকত্ব কেড়ে নিল কানাডা

অনলাইন ডেস্ক : রোহিঙ্গা নিধন বন্ধে ব্যর্থ হওয়ায় কানাডার পার্লামেন্ট সর্বসম্মতিক্রমে মিয়ানমারের নেতা অং সাং সু চির সম্মানসূচক নাগরিকত্ব বাতিল করার পক্ষে রায় দিয়েছে।

কানাডার আইনপ্রনেতারা রোহিঙ্গা মুসলিমদের হত্যাযজ্ঞকে ‘গণহত্যা’ হিসেবে আখ্যায়িত করার এক সপ্তাহ পর বৃহস্পতিবার এই প্রস্তাবের ওপর ভোট দিলেন।

ফলে কানাডার পার্লামেন্টে মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেতা অং সাং সু চির সম্মানসূচক নাগরিকত্ব বাতিলের প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে পাস হয়েছে।

সু চি ২০০৭ সালে যখন অটোয়া থেকে এই সম্মান লাভ করেন তখন তিনি গৃহবন্দি অবস্থায় গণতন্ত্রের দাবিতে আন্দোলন করছিলেন। কিন্তু, গত বছর মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর দমন ও নিপীড়নের ফলে ৭ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়ার পর থেকে সু চি সমালোচনার সম্মুখীন হন।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা ওই হত্যাযজ্ঞকে ‘জাতিগত নিধনের আদর্শ উদাহরণ’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। কিন্তু, সু চি সেনাবাহিনীর এই কর্মকাণ্ডের কোনো নিন্দা বা সমালোচনা করেননি।

রোহিঙ্গা গণহত্যার সমালোচনা না করার বিষয়ে অটল থাকায় এই সম্মানসূচক নাগরিকত্ব বাতিল করা হলো বলে জানিয়েছেন কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডের মুখপাত্র অ্যাডাম অস্টেন।

‘আমরা মানবিক সহায়তা ও মিয়ানমারের জেনারেলদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে এবং আন্তর্জাতিক মহলে দায়ী ব্যক্তিদের বিচার দাবি করে রোহিঙ্গাদের সমর্থন জানিয়ে যাব,’ বলেন অস্টেন।

মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সু চির ভূমিকার স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৯১ সালে তাকে নোবেল শান্তি পুরস্কার দেয়া হয়।

গত মাসে প্রকাশিত এক জাতিসংঘ প্রতিবেদনে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে দেশটির সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের অভিযুক্ত করা হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গণহত্যা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে দেশটির শীর্ষ ছয়জন সামরিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্ত এবং বিচার হওয়া দরকার।

নির্যাতনের শিকার হয়ে গত এক বছরে দেশ ছেড়ে অন্তত ৭ লক্ষ মানুষ পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে।

কানাডা এখন পর্যন্ত মাত্র ছয়জন মানুষকে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব দিয়েছে। ফলে এটি অত্যন্ত বিরল এক সম্মান ছিল সু চির জন্য।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে এর আগে অক্সফোর্ডসহ ব্রিটেনের কয়েকটি শহর সু চিকে দেয়া সম্মান প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত