প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টেকনাফে ১২ হাজার ৬৫৩ পিস ইয়াবাসহ আটক ৪

ফরহাদ আমিন টেকনাফ, (কক্সবাজার): কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ৪ জন মাদক পাচারকারীকে ৬ মাস করে সাজা দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ঘটনায় মাদক পাচারকারীদের ব্যবহৃত সিএনজি (অটোরিক্সা) জব্দ করা হয়েছে।

ইয়াবাসহ আটককৃতরা হলেন মোঃ সুলতানের ছেলে মোঃ শকিল আহমদ (১৯), নুরুল আমিনের ছেলে মোঃ আজিজুল হক (১৯), মোঃ আবুল কালামের ছেলে মোঃ নুর কায়েস (১৯), মোঃ ইসমাইলের ছেলে মোঃ আক্তার ফারুক (১৮)। সকলেই টেকনাফ পৌর এলাকা পুরান পল্লানপাড়ার বাসিন্দা।

টেকনাফ-২ বিজিবি’র পরিচালক অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ আছাদুদ-জামান চৌধুরী জানান, বৃহস্পতিবার রাতে ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ শীলখালী অস্থায়ী চেকপোষ্টে কর্মরত হাবিলদার মোঃ বাচ্চু মৃধার নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল শীলখালী মেরিন ড্রাইভ চেকপোষ্টে যানবাহন তল্লাশীর কাজে নিয়োজিত ছিল।

বিশ্বস্ত গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে জানতে পারে যে, শীলখালী মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে ইয়াবার একটি চালান টেকনাফ হতে কক্সবাজারে পাচার হতে পারে। টেকনাফ হতে কক্সবাজারগামী একটি সিএনজি উক্ত চেকপোষ্টে পৌঁছলে কর্তব্যরত টহলদল সিএনজিটি সিগন্যাল দিয়ে থামায়।

অতঃপর সিএনজিতে আরোহিত ৩ জন যাত্রী এবং চালকের আচরণ সন্দেহ হওয়ায় তাদেরকে ব্যাপকভাবে তল্লাশী করে কোমরের সাথে অভিনব পদ্ধতিতে ফিটিং অবস্থায় ইয়াবা ভর্তি প্যাকেট পাওয়া যায়। উক্ত প্যাকেটগুলো খুলে গণনা করে ৩৭ লাখ ৯৫ হাজার ৯০০ টাকা মূল্যমানের ১২ হাজার ৬৫৩ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট এবং ৪ লাখ টাকা মূল্যমানের ১টি সিএনজি আটক করতে সক্ষম হয়।

ইয়াবাসহ ৪ মাদক পাচারকারীকে আটক করা হয়। নিষিদ্ধ ঘোষিত মাদক ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিজেদের দখলে রাখার দায়ে ধৃত আসামীদের ২০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে প্রত্যেককে ৬ মাস করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। অবশিষ্ট ১২ হাজার ৪৫৩ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে। এছাড়া আটককৃত সিএনজিটি টেকনাফ শুল্ক গুদামে জমা করা হয়েছে’।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত