প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

বেলালনামা

বিভু রঞ্জন সরকার: অফিসে আসার জন্য বাহনের অপেক্ষায় আছি। একজন রিকশা চালক এগিয়ে এলেন। গন্তব্য জানতে চেয়ে সম্মত হলেন। ভাড়াও একটু কমই চাইলেন। লক্ষ করলাম রিকশা চালকের একটি হাত নেই। একহাতে রিকশা চালানো! কত কঠিন কাজ। ওই রিকশায় উঠতে একটু দ্বিধা করছিলাম। একহাতে তিনি রিকশা চালাবেন, আমি আরামে বসে থাকবো। অমানবিক না ব্যাপারটা! আবার ভাবলাম মানবিক কারণে তার রিকশায় না চড়লে তার জীবন চলবে কীভাবে?

উঠে বসে বুঝলাম রিকশাটা ব্যাটারিচালিত। অস্বস্তি কিছুটা দূর হলো।

কথা বললাম তার সাথে। নাম মো. বেলাল হোসেন। শরিয়তপুরে বাড়ি। বয়স ২৩। ১৬ বছর আগে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে বাঁ হাতটি সম্পূর্ণ গেছে।
দরিদ্র পরিবারের সন্তান। জীবিকার সন্ধানে বালকবেলায়ই চলে এসেছেন ঢাকায়। হোটেলে কাজ করেছেন। তবে এক হাতে কাজ করেন বলে কোনো কোনো গ্রাহকও বিদ্রূপ করতেন। এক হাত দিয়ে সব কাজ করো?
ভালো লাগতো না বেলালের। তারপর কোনো রকমে কেনেন একটি রিকশা। তখন থেকে রিকশা চালান।
সংসার করেছেন কি না জানতে চাইলে একটু সলজ্জ হাসি দিয়ে সম্মতিসূচক মাথা নাড়লেন।
সন্তানাদি?

একটি ছেলে। তারপর আমার দিকে মুখ ফিরিয়ে বললেন, আমার বৌটা খুব লক্ষ্মী স্যার।
মুখে ছড়িয়ে পড়লো প্রশান্তির হাসি।
ভাড়া মিটিয়ে চলে আসবো। হঠাৎ মনে হলো বেলাল হোসেনের একটি ছবি থাক না আমার হাতের মুঠোয়।
বললাম, আপনার একটি ছবি তুলি?
এবারও একটি লাজুক হাসি।

বললেন, আমি রাস্তার মানুষ। আমার ছবি তুলে আপনি কি করবেন? দোয়া করবেন, ছেলেটাকে যেন মানুষ করতে পারি।
বেলাল এবং তার স্ত্রী-পুত্রের জন্য আমার বুক উজাড় করা ভালোবাসা। আত্মসম্মান নিয়ে স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকুন বেলাল।

লেখক: গ্রুপ যুগ্ন-সম্পাদক, আমাদের নতুন সময়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত