প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

এডিবির পূর্বাভাস
চলতি অর্থবছর শেষে প্রবৃদ্ধি হবে ৭.৫ শতাংশ

সাইদ রিপন : চলতি অর্থবছর (২০১৮-১৯) শেষে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৫ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)।তবে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন পরকাশ বলেছেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অর্থনীতিতে বড় ধরনের প্রভাব না পড়লে প্রবৃদ্ধি ৮ শতাংশও হতে পারে। এডিবির প্রকাশিত প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন, সংস্থাটির সিনিয়র ইকোনমিস্ট সুং চ্যান হু এবং প্রিন্সিপাল কান্ট্রি স্পেশালিষ্ট জয়তসানা ভারমা।

বুধবার আগারগাঁওয়ে এডিবির কার্যালয়ে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক-২০১৮ এর প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মনমোহন পরকাশ এ মন্তব্য করেন। মনমোহন পরকাশ বলেছেন, অর্থনৈতিক অবস্থা ইতিবাচক, মাইক্রো ইকোনমি স্টাবল। গত কয়েক বছর বাংলাদেশ অর্থনীতে ধারাবাহিকভাবে শক্তিশালী হয়েছে। আর দেশের মানুষ নির্বাচন নিয়ে উৎসাহিত তারা এখন নির্বাচনমুখী। এসব কারণে সামনে জাতীয় নির্বাচনে অর্থনীতিতে তেমন নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না।

এক প্রশ্নের জবাবে মনমোহন পরকাশ বলেন, আগামী অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ শতাংশ হওয়া সম্ভব। তবে এর জন্য বর্তমান পলিসি থাকতে হবে, সরকারি বিনিয়োগের পশাপাশি বেসকারি বিনিয়োগ বাড়াতে হবে।রাস্তা-ঘাটসহ অবকাঠামো উন্নয়নে জোড় দিতে হবে। সহজে ব্যবসা সূচক বা ডুইং বিজনেস ইনডেক্স সূচকে উন্নতি করতে হবে। তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশে যেভাবে সরকারি বিনিয়োগ বাড়ছে সেভাবে বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়েনি। শক্তিশালী অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ানো প্রয়োজন।

সংরক্ষণমূলক বাণিজ্যনীতির মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র শুল্ক আরোপ করছে। পাল্টা ব্যবস্থা হিসাবে চীনসহ অন্যান্য দেশও শুল্ক আরোপ করছে। এর ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বাণিজ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়বে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে, এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, এ থেকে বাংলাদেশ সুবিধা নিতে পারে। কারণ বাংলাদেশর অর্থনীতি ক্রমান্বয়ে অগ্রসর হচ্ছে। তৈরী পোশাক শিল্পে বাংলাদেশ খুব ভাল করছে। আইটি শিল্প, চামড়া শিল্প সম্ভবনাময় খাত। এসব সেক্টরে উন্নয়ন করে বাণিজ্য সুবিধা গ্রহণ করতে পারে বাংলাদেশ। এজন্য সরকারকে অবকাঠামো উন্নয়নে আরো জোড় দিতে হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছর রপ্তানির অবস্থা স্থিতিশীল থাকবে। তবে আমদানির গতি কিছুটা ধীর হবে। এছাড়া শিল্পখাতে প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা বাড়বে এবং স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি বজায় থাকবে। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য মতে বিদায়ী ২০১৭-১৮ অর্থবছরের জিডিপির চূড়ান্ত হিসেব অনুযায়ী প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ। মনমোহন প্রকাশ বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশের অর্থনীতির ভালো অগ্রগতি হয়েছে। অর্থনীতি উন্নয়নের জন্য সকরার কিছু ভালো পদক্ষেপ নিয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত