প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জামায়াত প্রশ্নে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় বিভক্তি সৃষ্টি হবে : সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম

আশিক রহমান : জামায়াত প্রশ্নে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় বিভক্তি সৃষ্টির আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষাবিদ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার ভবিষ্যৎ খুব একটা উজ্জ্বল নয়। কারণ তারা পরিষ্কারভাবে কিছু বলছেন না। জামায়াতে ইসলামী থাকবে কী, থাকবে না এই প্রশ্নের মীমাংসা এখনো হয়নি। যদি থাকে কীভাবে, না থাকলে কোথায় থাকবে তারও কোনো মীমাংসা আমরা এখনো পর্যন্ত দেখিনি। আর বিএনপি কি জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার মধ্যে সর্বোতভাবে চলে আসবে? অথবা ২০ দল কি পুরোটাই চলে আসবে ঐক্য প্রক্রিয়ায়? নাকি বিএনপির একটা অংশ থাকবে ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে, অন্য অংশটি নিজেরা নির্বাচিন ক্যাম্পেইন করে যাবে? এসব বিষয়ে পরিষ্কার করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, কিছুদিন ধরে শুনছি ড. কামাল হোসেন, বি. চৌধুরী এবং কোনো কোনো পত্রিকায় মাহী বি. চৌধুরীর উদ্বৃতি দিয়ে বলা হচ্ছে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় জামায়াতে ইসলামী থাকলে ঐক্য হবে না। তাই ঐক্য প্রক্রিয়ায় জামায়াতকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে না। টেলিভিশন ও পত্রিকায় তা দেখছি, শুনছি, পড়েছিও। তারা এটি এখনো বলে যাচ্ছেন। কিন্তু দুদিন আগে একটি টকশোতে শুনলাম বিএনপি নেতা জয়নুল আবদিন ফারুক পরিষ্কার ভাষায় বলছেন, বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের ঐক্য আছে, তা বিচ্ছিন্ন হবে না। প্রশ্ন হচ্ছে ড. কামাল হোসেন ও তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ রক্ষা কমিটির প্রকৌশলী শহিদুল্লাহ সাহেব তাহলে কীভাবে জামায়াতকে গ্রহণ করলেন?

এক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি যখন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে, বিএনপির পেছনে ছায়া হয়ে তো জামায়াত এসেছে। কারণ বিএনপির তো জামায়াতের সঙ্গে ঐক্য রয়েছে। তাদের এই ঐক্য প্রক্রিয়ায় জামায়াত অন্তর্ভুক্তি কীভাবে বুঝতে পারছি না। আমার মনে হয়, জামায়াত প্রশ্নে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় বিভক্তি সৃষ্টি হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি, যুক্তফ্রন্ট ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া তৈরি হয়েছে নির্বাচনকে মোকাবেলা করার জন্য। এবং বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ের জন্য। এখন বিএনপি যদি নিজস্ব একটা বলয় রেখে চলে, আবার ঐক্য প্রক্রিয়ায়ও একটা অংশগ্রহণ থাকে তাহলে তো হবে না। এ বিষয়ে এখনো পরিষ্কার নই আমরা, সত্যিকার অর্থে ঐক্য প্রক্রিয়ায় বিএনপি কতখানি অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। যদি বিএনপি পুরোপুরি অন্তর্ভুক্ত হয়, তাহলে বিএনপির মিত্র জামায়াতে ইসলামী কি বাইরে থাকবে, নাকি বিএনপির মাধ্যমে অংশগ্রহণ করবে? এ বিষয়টি এখনো পরিষ্কার না।

তিনি আরও বলেন, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া অনেক প্রশ্নের উত্তর না রেখে প্রক্রিয়াটা হয়েছে। আমি মনে করি ঐক্য প্রক্রিয়া করার আগে তাদেরকে আরও হোমওয়ার্ক করা উচিত ছিল। ১০-১২ প্রশ্ন নিয়ে প্রত্যেকটির সুনির্দিষ্ট চূড়ান্ত উত্তর পাওয়ার পরই তাদের ঐক্যের ঘোষণা দেওয়া উচিত ছিল। তারপর ড. কামাল হোসেন, বি. চৌধুরী ভূমিকা কী হবে এটাও পরিষ্কার না।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন ঘনিয়ে আসছে, সবগুলো দল সেখানে অংশগ্রহণ করবে, আমরা সবাই তা চাই। যদি একটি ঐক্য প্রক্রিয়া হয় তাহলে তো তা ভালো। এতে সরকারের প্রতি একটা চ্যালেঞ্জ আসবে, তারা সতর্ক হবে। ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট পাস হলো, এ নিয়ে নিশ্চয় অনেক সমালোচনা হচ্ছে। বড় একটি মোর্চা যদি সমালোচনা করে তাহলে তো সরকার একটু মন দিয়ে শুনবে। নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসে এ ধরনের সমীকরণ আমরা বিভিন্ন দেশে দেখি। বাংলাদেশেও সেটা হয়েছে। এটাকে গণতন্ত্রের জন্য একটা শুভ উদ্যোগ বলে মনে করি আমি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত