প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

পুরান ঢাকার কারাগারের আদালত ঘিরে কড়া নিরাপত্তা

সুশান্ত সাহা : রাজধানীর পুরান ঢাকার পুরানো কেন্দ্রীয় কারাগার ঘিরে কড়া নিরাপত্তাবেষ্টনী গড়ে তোলা হয়েছে। কারাগারের ভেতর স্থাপিত বিশেষ আদালতে আজ বুধবার জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার দুই আসামি আদালতে অনাস্থার বিষয়ে আজ বুধবার আদেশ হওয়ার কথা রয়েছে। মামলার আসামি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অপর মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে এই কারাগারেই বন্দী আছেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, কারাগারের আশপাশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য অবস্থান নিয়েছেন। আশপাশের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।বন্ধ রাখা হয়েছে আশপাশের দোকানপাটও।

এছাড়া যেকোনও অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য। সামনে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ফায়ার সার্ভিসের গাড়িও।

এর আগে মামলার শুনানির জন্য এই কারাগারের প্রশাসনিক ভবনের ৭ নম্বর কক্ষকে অস্থায়ী আদালত হিসেবে ঘোষণা করে ৪ আগস্ট প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।গত সোমবার এই মামলার দুই আসামি আদালতে অনাস্থা দেন। এর ওপর তার প‌রের‌ দিন মঙ্গলবার আদেশ দেওয়ার দিন ঠিক করেছিলেন আদালত। গতকাল আদালত বলেন, অনাস্থার বিষয়ে আজ বুধবার আদেশ দেবেন।

মঙ্গলবার এর আগে খালেদা জিয়ার জামিন বাড়ার আবেদনের ওপর শুনানি ও আদেশের পর ২০ মিনিটের বিরতিতে যান আদালত। বিরতির পর আবারও তিনি আসেন। কিন্তু এসময় আদালতে ছিলেন না খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

আদালতের প্রতি অনাস্থা দেওয়া দুই আসামি হলেন বিআইডব্লিউটিএর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান। জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানো হয় জিয়াউল ইসলামকে। মঙ্গবার তাঁকে আদালতে হাজির করা হয়। তবে আদালতে তাঁর আইনজীবী আমিনুল ইসলাম হাজির ছিলেন না। মনিরুলের আইনজীবী আখতারুজ্জামান আদালতে হাজির ছিলেন। ২০ সেপ্টেম্বর এই মামলায় খালেদা জিয়া আদালতে না আসায় তাঁর বিচার চলবে বলে আদেশ দেন আদালত। মঙ্গলবারও খালেদা জিয়াকে আদলতে হাজির করা হয়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ চার জনের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুদক। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক।

মামলাটিতে বিএনপি নেতা সচিব হারিছ চৌধুরী, তার এপিএস জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রাক্তন মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান আসামি। মামলাটিতে খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ অভিযোগ গঠন করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত