প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

৭ মিনিটের পথ যেতে লাগে ৭ ঘণ্টা

ডেস্ক রিপোর্ট : কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশের ব্যস্ততম দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে অব্যাহতভাবে নদী পারের অপেক্ষমাণ যানবাহনের দীর্ঘ সারি। এ পরিস্থিতি মঙ্গলবার সকাল থেকে আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ঘাট থেকে মাত্র ৭-৮ মিনিটের রাস্তা পাড়ি দিতে যানবাহনগুলোকে সিরিয়ালে আটক থাকতে হচ্ছে ৭-৮ ঘণ্টারও বেশি।

যশোর থেকে ছেড়ে আসা পূর্বাশা পরিবহনের যাত্রী রফিকুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার ভোরে তাদের বাসটি ছেড়ে এসে সকাল ৯টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাটের অন্যান্য যানবাহনের সঙ্গে সিরিয়ালে আটকা পড়ে। বেলা আড়াইটা বাজে এখনও ফেরিঘাটে পৌঁছতে পারিনি। মাত্র ৭-৮ মিনিটের পথ ৭-৮ ঘণ্টা বসে থাকতে হচ্ছে। তীব্র গরমে বাসের যাত্রীদের অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তিনি আরও জানান, দেশ এগিয়েছে, কিন্তু দৌলতদিয়া ঘাটের দুর্ভোগের চিত্র রয়েই গেছে।

কর্তৃপক্ষ বলেছে, নদীতে তীব্র স্রোতে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি সোমবার থেকে রো রো (বড়) ফেরি কেরামত আলী মঙ্গলবার সকাল থেকে ইউটিলিটি ফেরি রজনীগন্ধা যান্ত্রিক ত্রুটিতে বিকল হয়ে আছে। এ ছাড়া নদীতে ড্রেজিং করার কারণে ১নং ফেরিঘাট বন্ধ রাখা হয়েছে এবং ২নং ফেরিঘাটে তীব্র স্রোতের কারণে ফেরি ভিড়তে পারছে না। অপর তিনটি ফেরিঘাট সচল রয়েছে। অন্যদিকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল কখনও ব্যাহত আবার কখনও পুরোপুরি বন্ধ থাকায় ওই রুট দিয়ে পারাপার হওয়া যানবাহনগুলে নদী পার হতে এই রুটে আসছে। এতে করে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যানবাহনের চাপ স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়ে গেছে। সব কিছু মিলিয়ে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাট সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে মহাসড়কের প্রায় গোয়ালন্দ ফিডমিল পর্যন্ত অন্তত চার কিলোমিটারজুড়ে যানবাহনের দীর্ঘ সারি। প্রথম দিকের ফোর লেন সড়কের বাম পাশে পণ্যবাহী ট্রাক ও ডান পাশে যাত্রীবাহী বাস ও পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাকের সারি দৌলতদিয়া ক্যানেল ঘাট পর্যন্ত অন্তত দুই কিলোমিটার। এরপর থেকে এক লাইনে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান। এর মধ্যে অনেক ট্রাক আছে, যারা দুদিন আগে ঘাটে এসে আজও ফেরির নাগাল পায়নি। তবে নদী পার হতে আসা এসি বাসগুলো ডান পাশ দিয়ে দৌলতদিয়া বাইপাস সড়ক দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স ও ব্যক্তিগত গাড়ির সঙ্গে সরাসরি ফেরিঘাটে চলে যাচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, ট্রাফিক পুলিশকে অনৈতিক সুবিধা দিয়ে এসি বাসগুলো সরাসরি ফেরিঘাটে চলে যাচ্ছে।

একে ট্রাভেলস পরিবহনের যাত্রী আনোয়ার হোসেন, মোয়াজ্জেমুল হকসহ অনেকেই ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, তারা তীব্র গরমের মধ্যে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সিরিয়ালে থেকে কষ্ট করছেন, অথচ এসি পরিবহনগুলো ডান পাশ দিয়ে ঘাটে চলে যাচ্ছে। এ অনৈতিক কাজ মেনে নেওয়া তাদের জন্য আরও কষ্টকর। দৌলতদিয়া ঘাটে বিভিন্ন অনিয়ম যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া অফিসের ব্যবস্থাপক সফিকুল ইসলাম জানান, অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে দৌলতদিয়ায় সিরিয়ালে যানবাহন আটকে পড়ছে। নদীতে তীব্র স্রোত থাকায় প্রতিটি ফেরির ট্রিপে স্বাভাবিকের চেয়ে অতিরিক্ত সময় লাগছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে মঙ্গলবার ১৫টি ফেরি যানবাহন পারাপার করছে। যে দুটি ফেরি পাটুরিয়ার ভাসমান কারখান মধুমতিতে মেরামত করা হচ্ছে তার মধ্যে ইউটিলিটি ফেরি রজনীগন্ধার মেরামতের কাজ আজই শেষ করে ফেরি বহরে যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে। সূত্র : সমকাল

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত