প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

পল্টন-সোহরাওয়ার্দী কোনোটাই পাচ্ছে না বিএনপি

ডেস্ক রিপোর্ট : আগামীকাল বৃহস্পতিবার প্রথমে রাজধানীতে জনসভা করার ঘোষণা দিয়েছিল বিএনপি। ওইদিন সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে কর্মসূচি পালনের অনুমতি চেয়ে চিঠিও দেয় দলটি। তবে গতকাল মঙ্গলবার জনসভার নতুন তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ধার্য করে তারা।

নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা। তবে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) একজন উচ্চপদস্থ দায়িত্বশীল কর্মকর্তা গতকাল  জানান, ২৯ সেপ্টেম্বর পল্টন ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি মিলবে না বিএনপির। দলটি চাইলে ইনডোরে কোনো জায়গায় জনসভা করতে পারে। সেটা হতে পারে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউশন। তবে ২৯ তারিখ ছাড়া অন্য কোনো তারিখে পল্টন ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি জনসভা করতে চাইলে ‘সার্বিক পরিস্থিতি’ বিবেচনায় অনুমতি মেলা বা না মেলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। সংশ্নিষ্ট একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এসব তথ্য জানায়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গতকাল সন্ধ্যায় রুহুল কবির রিজভী জানান, ২৯ তারিখ সমাবেশ করার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। অনুমতির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানার অপেক্ষায় রয়েছেন তারা। পল্টন ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি না মিললে পরে এ ব্যাপারে মন্তব্য করা হবে।

কেন এখন সোহওয়ার্দী উদ্যান বা পল্টনে জনসভা করার অনুমতি মিলছে না- এ ব্যাপারে জানতে চাইলে দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানান, চলতি মাসের ১ তারিখে বিএনপিকে পল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। তখন ওই সড়কে ব্যাপক যানজট তৈরি হয়। এ কারণে সেখানে আপাতত সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। এক মাসের মধ্যে বিএনপি কী কারণে রাজপথে আরেকটি সমাবেশ করতে চায়, সেটার যৌক্তিকতা নিয়ে সন্দিহান নীতিনির্ধারকরা। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে চেয়েছিল। সেখানে তাদের অনুমতি না দিয়ে মহানগর নাট্যমঞ্চে ২৯ সেপ্টেম্বর সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়। একই দিন চাইলে বিএনপি ঘরোয়া পরিবেশে সমাবেশ করতে পারবে। এ ছাড়া ২৮ সেপ্টেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের একটি কর্মসূচি রয়েছে। একদিন পরই একই ভেন্যুতে আরেকটি কর্মসূচি রাখতে চায় না ডিএমপি।

সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী জানান, ২৭ সেপ্টেম্বর সমাবেশের অনুমতি চেয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও গণপূর্ত অধিদপ্তরকে চিঠি দিয়েছে বিএনপি। পরদিন মঙ্গলবার তিনি নয়াপল্টনে সংবাদ সম্মেলন করে জানান, জনসভা পিছিয়ে ২৯ সেপ্টেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে জনসভা করার কোনো অনুমতি তারা এখনও পাননি; কিন্তু পাবেন বলে আশা করছেন তারা।

এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে পুলিশের মতিঝিল বিভাগের ডিসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ২৯ সেপ্টেম্বর বিএনপি পল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করতে চায়, এ ধরনের কোনো চিঠি এখনও পাননি তারা। সাধারণত ডিএমপি কার্যালয়ে অনুমতি চেয়ে আবেদন করলে সংশ্নিষ্ট এলাকার ডিসি হিসেবে ওই আবেদনের অনুলিপি তার কার্যালয়ে পাঠানো হয়।

পুলিশের রমনা বিভাগের ডিসি মারুফ হোসেন সরদার বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২৯ সেপ্টেম্বর জনসভা করার কোনো চিঠি তিনি পাননি।

ডিএমপি সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান, বিএনপির পক্ষ থেকে ২৯ তারিখে জনসভা করার অনুমতি চেয়ে কোনো চিঠি তারা পাননি। তবে দলটির কার্যক্রমের ওপর খোঁজ রাখছেন তারা। সংবাদ সম্মেলন করে ২৯ তারিখ জনসভা করার তারিখ ঘোষণার বিষয়টি নীতিনির্ধারণী মহলের নজরে এসেছে।

দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তা জানান, রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে রাজপথে জ্বালাও-পোড়াও এবং নৈরাজ্য বন্ধে কঠোর নজর রাখা হবে। যারা পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে, তাদের ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। সূত্র : সমকাল

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত