প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফায়ার সার্ভিসে আসছে ‘চমকে যাওয়া’ পরিবর্তন!

সুজন কৈরী : ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরে যুক্ত হয়েছে ইমার্জেন্সি টেন্ডার। পাশাপাশি ওয়াটার রেসিস্টেন্স ভেহিকেল, ২০ হাজার লিটার পানিবাহী গাড়ী ও ২৫টি ডাবল বেডের বিশেষ অ্যাম্বুলেন্স যুক্ত হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, মর্ডানাইজেশন প্রকল্পের আওতায় দুটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন টিটিএল (টার্ন টেবল লেডার বা সু উচ্চ মই যুক্ত গাড়ী) ইতিমধ্যে অধিদফতরে যুক্ত হয়েছে। একই প্রকল্পের আওতায় ৪টি ২০ হাজার লিটার পানবাহী গাড়িও যুক্ত হয়েছে। এছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের আওতায় বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় ১১টি ইমার্জেন্সি টেন্ডার (উদ্ধার সরঞ্জাম সম্বলিত গাড়ী) অতি সম্প্রতি ফায়ার সার্ভিসে যুক্ত হয়েছে। আরো ১১টি যুক্ত হওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। এছাড়া ৬টি ওয়াটার রেসিস্টেন্স ভেহিকেল যুক্ত হয়েছে। কিন্তু আধুনিক এসব সরঞ্জাম এখনই ব্যবহৃত হচ্ছেনা। এরজন্য সরঞ্জামগুলোর চালকসহ সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এরপর এগুলোর ব্যবহার শুরু হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ৫দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। সূত্র জানায়, গণপূর্তের আওতায় জাইকার সহায়তায় আরো একটি ২০ হাজার লিটার পানিবাহী গাড়ি ও ৫৭ মিটার উচ্চ একটি এরিয়াল প্লাটফর্ম লেডার যুক্ত হওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের আওতায় বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় ৬টি ট্রাক ফায়ার সার্ভিসে যুক্ত হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, দুর্যোগ-দুর্ঘটনায় জীবন ও সম্পদ রক্ষার মাধ্যমে নিরাপদ বাংলাদেশ গড়ে তোলার মিশন নিয়ে এগিয়ে চলা ফায়ার সার্ভিসের ভিশন হচ্ছে অগ্নিকান্ডসহ সকল দুর্যোগ মোকাবেলায় এশিয়ার অন্যতম শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান হিসেবে সক্ষমতা অর্জন করা। এটি করতে হলে প্রয়োজন আধুনিক সরঞ্জামাদিসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা। ভিশন বাস্তবায়নের অংশ হিসেবেই অধিদফতরে একের পর আধুনিক বিভিন্ন সরঞ্জাম যুক্ত করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে আরো হবে। এসব সরঞ্জাম যুক্ত হওয়ায় অগ্নিকান্ডসহ যে কোনো দুর্যোগ মোকাবেলায় ফায়ার সার্ভিসের সক্ষমতা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরের উপ-পরিচালক (পরিকল্পনা) অজিত কুমার ভৌমিক বলেন, ফায়ার সার্ভিসকে আধুনিকায়নে কাজ চলছে। এরই অংশ হিসেবে কিছু উন্নত প্রযুক্তির সরঞ্জাম ইতিমধ্যে অধিদফতরে যুক্ত হয়েছে। আরো কিছু যুক্ত হওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। যুক্ত হওয়া সরঞ্জামগুলো পরিচালনার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এরপরই এসব সরঞ্জাম ব্যবহার করা হবে।

তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে অ্যাম্বুলেন্স সেবা সম্প্রসারণ (প্রথম সংশোধন) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ২৫টি ডাবল বেডের অ্যাম্বুলেন্স ক্রয় করা হয়েছে। এর ফলে যেকোনো দুর্ঘটনায় হতাহতদের উদ্ধারের ক্ষেত্রে ফায়ার সার্ভিসের সক্ষমতা বৃদ্ধিসহ বেশি পরিমাণ নাগরিকদের সেবা দেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। জাপানের তৈরি এসব এ্যাম্বুলেন্সের এসেমব্লি হয়েছে থাইল্যান্ডে। অ্যাম্বুলেন্সগুলোতে দুটি করে বেড থাকছে। প্রয়োজনে এগুলো সাধারণ মানুষও ব্যবহার করতে পারবে। তবে এরজন্য স্বল্পমূল্যে ভাড়া পরিশোধ করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত