প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সৌদিতে নারী শ্রমিক নির্যাতনের অভিযোগ পুরোপুরি সত্য নয়

হ্যাপি আক্তার: স্বপ্ন নিয়ে সৌদি আরবে বিদেশ পাড়ি জমায় বাংলাদেশী নারী গৃহকর্মীরা। সেখানে তাদের ওপর অনেক রকমের নির্যাতনের প্রমাণ মিলেছে। বিষয়টি বহুপাক্ষিক ফোরামে তুলে ধরার তাগিদ এসেছে বিভিন্ন মহল থেকে। তবে এসব অভিযোগ পুরোপুরি সত্য নয়, এমনই দাবি করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত সৌদি রাষ্ট্রদূত।

গৃহকর্মীসহ বিভিন্ন ধরনের কাজ নিয়ে বিদেশে যান বাংলাদেশি নারীরা। পরিসংখ্যান বলছে, চলতি বছরের প্রথম আট মাসে গেছেন ৬৮ হাজার নারী। এর মধ্যে ৫০ হাজারই গেছেন সৌদি আরবে। সৌদি যাওয়া নারীদের মধ্যে প্রায় দেড় হাজার জন ফিরে এসেছেন যৌন হয়রানি ও শারীরিক অত্যাচারের শিকার হয়ে।

নির্যাতনের শিকার বাংলাদেশী নারী গৃহকর্মীরা জানিয়েছেন সে সব অত্যাচারের কথা। বাড়ির মালিক ও অন্যান্য সদস্য সবাই তাদের নির্যাতন করেছে। কখনো খাবারের কথা বলতো না শুধু কাজ করাতো।

এ ব্যাপারে রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিটের (রামরু) চেয়ারম্যান ড. তাসনিম সিদ্দিকী বলেছেন, দ্বিপাক্ষিক আলোচনা দিয়েও বাংলাদেশী নারী গৃহকর্মীদের নির্যাতনের বিষয়টি সমাধান করা যাচ্ছে না। সে ক্ষেত্রে বহুপাক্ষিক ফোরামগুলোতে এই বিষয়টিকে খুব জোরের সাথে নিয়ে আসতে হবে ।

তবে সৌদি আরব মনে করে, দেশটিতে থাকা বিদেশি শ্রমিকের তুলনায়, এ সংখ্যা এতই নগন্য যে, তা আমলে নেবার কোনো কারণ নেই। ঢাকায় সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত আব্দুল্লাহ এইচ আল মুতায়েরি বলেছেন, আমরা মুসলিম উম্মার নেতা, আমরা আমাদের মেয়েদের মতোই অন্যান্য দেশের মেয়েদের সাথে ব্যবহার করি। সৌদি আরবে কত বাংলাদেশি মেয়েরা থাকেন, যারা অভিযোগ করেছেন তাদের সংখ্যাটি খুবই সামান্য এবং যা অভিযোগ করেছেন তার সবটুকু সত্যও নয়। গৃহকর্মীদের ওপর নির্যাতন করলে তার কঠোর শান্তির বিধান আছে।

জনশক্তি খাতের বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশ যেখানে মধ্য আয়ের পথে অগ্রসর হচ্ছে, সেখানে সৌদি কিংবা অন্যদেশে গৃহকর্মী হিসেবে নারীদের পাঠানোর বিষয়টি নতুন করে ভাবা উচিৎ। নিঃস্ব হয়ে দেশে ফেরা নারীদের জন্য সরকারের বিশেষ ব্যবস্থা করা উচিত বলেও মত দেন বিশেষজ্ঞরা। সূত্র : চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত